আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দিনভর জাল ভোট, প্রভাব বিস্তার, প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকে সিল ও ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে পুলিশের ফাঁকা গুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশ, আনসারসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। এছাড়া নির্বাচন পরবর্তি সহিংসতায় বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের মমিনপুর এলাকায় প্রতিপক্ষের হামলায় ৭জন আহত হয়েছে। এতে ইউপি সদস্য পদে পরাজিত প্রার্থীর বাড়ি ঘর ভাঙচুর ও কর্মী সমর্থকদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, রবিবার নির্বাচন শেষে ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে ফলদা রামসুন্দর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র ও গাবসারা ইউনিয়নের চরচন্দনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এসময় কেন্দ্রে দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট, প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, র‌্যাব পুলিশ ও নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে রাখার ঘটনা ঘটে। এতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা ৯৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। এতে দুইটি কেন্দ্রে পুলিশ, আনসারসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়। এঘটনায় পৃথক দুইটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এই দুইটি মামলায় অজ্ঞাত ৪ হাজার জনকে আসামী করা হয়েছে।

এদিকে সোমবার সকালে উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের মমিনপুর এলাকায় ইউপি সদস্য পদে দুই প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ভাঙচুর করা হয়েছে চারটি ঘরবাড়ি। এতে পরাজিত ইউপি সদস্য ফুটবল প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল মালেকের কর্মী সমর্থকের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় আব্দুল হাই, বেলায়েত, মালেক, বাদশা, হারুন, কাইয়ুম ও বিথী আহত হয়। পরে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত কাইয়ুম জানান, আওয়ামী লীগ নেতা হারুন, বিলাত, আমজাদের নেতৃত্বে একদল লোকজন বাড়ি ঘর ভাঙচুর করে হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে আহত করেছে। তারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এলাকায় মহড়া দিচ্ছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ভূঞাপুর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. মহীউদ্দিন বলেন, নির্বাচনের দিন সহিংসতায় পুলিশ, আনসারসহ ৪৯জন হাসপাতালে এসে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে ৭জনকে হাসপাতালে ভর্তি এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য দুইজনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া সোমবার সকালের নির্বাচন পরবর্তি সহিংসতায় ৬-৭জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছে। ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল ওহাব বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট, প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের অবরুদ্ধ, সরকারী কাজে বাঁধা, নাশকতা ও বিশৃঙ্খলার সৃষ্টির দায়ে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়া নির্বাচনী সহিংসতায় পুলিশ, আনসারসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরআগে কেন্দ্রের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্যান্য বাহিনীরা ৯৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের অবরুদ্ধ থেকে মুক্ত করা হয়।

Previous articleরংপুরে বৈশাখী টেলিভিশনের ১৭ বছরে পদার্পন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত
Next articleমুলাদীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ব্যবসায়ীর বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।