জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় পল্লীতে প্রতিবেশিকে পাকা কলা না দেয়ায় মাদ্রাসা পড়ুয়া নবম শ্রেণীর এক ছাত্রের মাথার চুল কর্তন করা হয়েছে। নিজেদের জমিতে রোপন করা পাকা কলা পাড়ছিলেন গৃহবধু হালিমা বেগম। এসময় প্রতিবেশী এলাই বক্স খেতে চাইলে কলা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন গৃহবধু। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে এলাই বক্স মোড়ল ওই গৃহবধুর ছেলে হোসাইনকে ধরে নিয়ে নির্মমভাবে মাথার চুল কেটে দেয়।

ঘটনাটি ঘটেছে কেশবপুর উপজেলার ভালুকঘর মোড়লপাড়া এলাকায়। এঘটনায় কেশবপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ভালুকঘর মোড়লপাড়া এলাকার আলা উদ্দীন সরদারের স্ত্রী হালিমা বেগম সোমবার বসতবাড়ির পাশে নিজেদের জমিতে রোপন করা একটি গাছ থেকে পাকা কলা পাড়ছিলেন। এ সময় প্রতিবেশী এলাই বক্স মোড়ল কলা খাইতে চান। গৃহবধু কলা দিকে অপারগতা প্রকাশ করলে এলাই বক্স জোর করে কলা নিতে যান। গৃহবধুর সাথে থাকা তার ছেলে হোসাইন এগিয়ে আসলে উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। পরবর্তীতে এলাই বক্স, রুহুল আমিন ও হাফিজুর রহমান একত্রিত হয়ে হোসাইনকে ধরে এনে বেধে রেখে মারপিট করে মাথার চুল কেটে দেয়। হোসাইন ভালুকঘর আজিজিয়া ফাযিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণীতে লেখাপড়া করছে। এঘটনায় ওই ছাত্রের পিতা আলা উদ্দীন কেশবপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দীন বলেন, এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন ।

Previous articleকোন মুক্তিযোদ্ধাকে রিকশা চালিয়ে ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করতে হয়না: বাণিজ্যমন্ত্রী
Next articleনোয়াখালীতে দুর্লভ প্রজাতির শকুন অবমুক্ত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।