বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর সুধারামের চরমটুয়া ইউনিয়নের পশ্চিম মহতাপুর গ্রামে এক গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ভাবে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে সুধারাম মডেল থানায় ৪ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষনের মামলা দায়ের করে। পুলিশ দাউদ নামে একজন গ্রেফতার করেছে শনিবার দুপুরে আদালতে পাঠিয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাতে। ঐ গৃহবধু মেডিকেল পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি চলছে। ভিকটিম জানান, গত এক বছর থেকে ৯/১০জন বিবাদী বিভিন্ন সময়ে আমাকে একা পেয়ে ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ ও নির্যাতন করে আসছে এবং তারা আমাকে হুমকি দিয়ে যায় এ ঘটনা কাউকে জানালে প্রাণে হত্যা করবে। বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এরই জের ধরে সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার রাতে ঘরে ঢুকে স্থানীয় জসিম (মেম্বার প্রার্থী), হাসান, হৃদয়, মুন্সীয়া সহ ৪জন আমাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং এ ঘটনা কাউকে না জানানোর প্রাণে হত্যার হুমকি দিয়ে যায়। পরে আমি বিষয়টি স্থানীয় ইউপি. চেয়ারম্যান বাবলুকে বিষয়টি খুলে জানায়। তিনি বিষয়টি শুনে আমাকে থানায় পাঠান। ভিকটিম জানান, আমার স্বামী মহিউদ্দিন ওরপে দুখু ঢাকায় একটি মাদ্রাসায় বাবুর্চির চাকরি করে। এই সুবাধে আমাকে ঘরে একা পেয়ে এ ঘটনা ঘটায় তারা। তারা আমাকে দীর্ঘদিন অত্যাচার, পাশবিক নির্যাতন ও পালাক্রমে ধর্ষণ করে আসছে।

ভিকটিম আরও জানান, এ ঘটনার সাথে জড়িত ৪ জন ছাড়াও আরও কয়েকজন বিভিন্ন সময়ে জড়িত থাকার কথা নাম উল্লেখ করে বলেন, তারা হলো মেহরাজ, খোকন, দাউদ সহ কয়েকজন। এর আগে ঘটনাটি স্থানীয় মেম্বার রিয়াজ ও মসজিদ কমিটির নেতা ফয়েজ সহ কয়েকজনকে জানানোর পরও তারা কোন ব্যবস্থা নিতে পারেননি। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি মেম্বার রিয়াজ উদ্দিন ভূইয়া অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ ঘটনা আমাদেরকে আগে জানানো হয়নি, বরং অন্য সমাজকে জানানো হয়েছে। আমরা পরে শুনে চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি এবং চৌকিদার দিয়ে মেয়েকে থানায় পাঠিয়েছি এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চরমটুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বাবলু সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মহিলাটি আমার ইউপি. অফিসে এসে আমাকে ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি মহিলার বরাত দিয়ে বলেন, মহিলা বলেছেন তাদের উপর্যপুরী (ধর্ষণ) আমি আর সহ্য করতে পারিনি। আমাকে তারা আলীগ নেতা নিশাত সেলিমের মত হত্যার হুমকি দিয়ে বার বার নির্যাতন ও ধর্ষণ করছে। পরে আমি অসহায় মহিলাটিকে থানায় আইনগত ব্যবস্থা নির্দেশ দিই। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) জাকির হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার বলেন, এ ঘটনায় ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এবং পুলিশ দাউদ নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে। মহিলার মেডিকেল পরীক্ষার প্রস্তুতি চলছে।

Previous articleদেশে করোনায় মৃত্যু বেড়েছে, কমেছে শনাক্ত
Next articleকরোনা বাড়লে আবারো লকডাউনের সিদ্ধান্ত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।