বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মোটরসাইকেল কিনে না দেয়ায় মাকে মারপিট করেছে দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক ছেলে। চুরি করেছে মায়ের তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ৭৬ হাজার টাকা। ওই ঘটনায় ছেলে মোঃ ফেরদৌসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন মা মোছাঃ শুকলা বেগম। বৃহস্পতিবার রাতে ছেলেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়।

ফেরদৌস রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউনিয়নের হাটবাড়ীয়া গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে।

মামলার বাদি জানিয়েছেন, ফেরদৌস একজন মাদকসেবী ও জুয়ারী। সে একটি মোটরসাইকেল কেনার জন্য তাদের চাপ দিয়ে আসছিলো। গত ৩ জানুয়ারি সকাল ১০টার দিকে তিনি তার বসত ঘরের ঘাটে ঘুমিয়ে ছিলেন। সে সময় ফোরদৌস ঘরে প্রবেশ করে এবং তোষকের নিচ থেকে চাবি নিয়ে শোকেজের ড্রায়ারে থাকা তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ৭৬ হাজার নগদ টাকা নিয়ে নেয়। ওই সময় শব্দে মায়ের ঘুম ভেঙে গেলে সে ফেরদৌসকে দেখতে পান। তিনি বাধা দিলে ফেরদৌস তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। এতে তিনি জ্ঞান হারান। ওই সময় সে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। যে কারণে তিনি রাজবাড়ীর ১নং আমলী আদালতে ফেরদৌসের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।

রাজবাড়ী থানার এসআই মেজবা উদ্দিন জানিয়েছেন, আদালতের নির্দেশে মামলাটি থানা রেকর্ড করা হয়েছে। একই সাথে আসামি ফেরদৌসকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে জবাড়ী জেলা সর্বপ্রকার মাদকে ভাসছে। করোনায় স্কুল কলেজ বন্ধ। পড়ালেখার চাপ না থাকায় মাদক ব্যাবসায়ীদের লোভনীয় অফারে কিশোর ও স্কুল পড়ুয়া শিক্ষথীরা মাদক ব্যবসায় নেমে পড়েছে। আর মাদক ব্যবসার জন্য মোটরসাইকেল জরুরি দরকার হয়।

তবে লাইসেন্সনবিহীন মোটর সাইকেলের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান কমে যাওয়ায় কিশোর মোটরসাইকেল চালকরা মাদক ব্যবসাসহ নানান অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে।

Previous articleমাদারীপুরে সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ
Next article‘বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করে সরকারের পতন ঠেকানো যাবে না’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।