ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বা আদিবাসী সম্প্রদায়ের চাচীকে ধর্ষণচেষ্টা ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে ভাতিজার বিরুদ্ধে। পরে এনিয়ে বাদি হয়ে ভাতিজাকে আসামী করে আদালতে মামলা করেছে সেই চাচী। চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার পার্বতীপুর ইউনিয়নের দেওপুরা দমাদিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, গতবছরের ১০ ডিসেম্বর রাত ৯টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে বাদি নারী বাড়ির পিছনে থাকা টয়লেটে গেলে পুকুর ধারে এ ধর্ষণচেষ্টা হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, অভিযুক্ত দেওপুরা দমাদিপুর গ্রামের রূপচাঁদের ছেলে শ্রী রতিকান্ত (২৮) এর আগেও একাধিকবার এমন কাজ করেছে। এনিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ নারী ও শিশু ট্রাইবুন্যাল আদালতে মামলা দায়ের করেছেন সেই নারী।

মামলায় একমাত্র আসামী করা হয়েছে শ্রী রতিকান্তকে। গত ১৫ ডিসেম্বর আদালতে এই মামলা দায়ের করেন তিনি। জানা যায়, ধর্ষণচেষ্টার শিকার নারী সম্পর্কে অভিযুক্ত রতিকান্তের চাচী হয়। তার বাবার আপন চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রী সেই নারী।

শ্লীলতাহানির শিকার নারী জানান, একদিকে রতিকান্ত যেমন আমার স্বামীর চাচতো ভাইয়ের ছেলে, তেমনি পাশাপাশি বাড়ি। ঘটনার দিন রাত ৯টার দিকে স্বামীকে খেতে দিয়ে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে বাড়ির পেছনে পুকুরের ধারে যায়। এসময় হঠাৎ করে রতিকান্ত পেছন থেকে চেপে ধরে। এমনকি কাপড় খুলে নেয় এবং শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। চিৎকার করলে চারপাশের লোকজন এসে হাজির হলে পালিয়ে যায় রতিকান্ত৷

প্রতিবেশী নারী শ্রীমতি ববিতা জানান, ঘটনার রাতে হঠাৎ চেচামেচির শব্দ পেয়ে দৌড়ে এসে শুনি এমন ঘটনা। পরে জানতে পারলাম এমন একটি লজ্জাজনক কাজ করার চেষ্টা করছিল রতিকান্ত। আশেপাশের লোকজনও বিষয়টি জানে। তাদের দুইজনের সম্পর্কটাও এমন যে, বলতেও লজ্জা লাগে।

সেই নারীর এক জা জানান, কয়েক মাস আগে একটা বিষয়ে কথা কাটাকাটি হলে আমাকে ধর্ষনের হুমকি দেয়। রতিকান্ত বলে, বেশি বাড়াবাড়ি করলে ইজ্জত শেষ করে দিব। সে বলে, এটা করা আমার কাছে খুবই সাধারণ ব্যাপার।

স্থানীয় বাসিন্দা মাজহারুল ইসলাম জানান, এর আগেও রতিকান্তের ব্যাপারে এমন ঘটনা ঘটানাের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাশ্ববর্তী গ্রামে এক মুসলিম মেয়ের সাথে একই ঘটনা ঘটালে আমরা স্থানীয়ভাবে শালিস করে দেয়। রতিকান্ত একজন মাদকসেবী বলেও জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

এবিষয়ে রতিকান্তের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ফোন কেটে বন্ধ করে দেয়। তার তার মা জানান, ভোটের বিরোধ নিয়ে সেই নারীর পরিবারের সাথে আমাদের ঝামেলা। তাই প্রতিশোধ নিতে এমন মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে তারা। সেই রাতে এমন কোন ঘটনা ঘটেনি।

পার্বতীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ভোটের সময় থেকেই দুই ভাগে বিভক্ত দুইটি পরিবার। এরই জের ধরে তাদের মধ্যে একটি ঝামেলা হয়। এনিয়ে রতিকান্তই প্রথম আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে আসেন। পরে সমাধানের চেষ্টা করলেও উভয় পক্ষ সম্মতি না দেয়ায় তা হয়নি। পরে শুনলাম, ধর্ষণচেষ্টার একটি মামলা হয়েছে।

গোমস্তাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহাদাত হেসেন জানান, তদন্তকাজ চলমান রয়েছে। তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে এবং প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleদুর্নীতিবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে, কেউ ছাড় পাবে না: কাদের
Next articleফেসবুকে এমপিকে নিয়ে কটূক্তি, উল্লাপাড়ায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।