অতুল পাল: দীর্ঘ ১১ বছর পর আগামীকাল ৭ ফেব্রুয়ারি সোমবার বাউফলের চারটি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বহুল প্রতিক্ষিত এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর থেকেই চারটি ইউনিয়নের জনপদ প্রার্থীদের পদচারনা ও মিছিল মিটিংয়ে সরব ছিল।

ভোটাররাও দীর্ঘদিন পর তাদের পছন্দের প্রার্থীদের বাছাই করে নেয়ার সুযোগ পেয়ে আনন্দে উব্দেলিত। আগামীকাল ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থী বাছাই করে নেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। বিচ্ছিন্ন দু’একটি ঘটনা ছাড়াই প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়েছে। বড় ধরণের কোন হাঙ্গামার ঘটনা ঘটেনি। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনও শক্ত অবস্থানে রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সীমানা জটিলতা নিয়ে উপজেলার মদনপুরা, নাজিরপুর, দাসপাড়া এবং বাউফল সদর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন ১১ বছর ধরে বন্ধ ছিল। দীর্ঘদিন পর আগামীকাল ৭ ফেব্রুয়ারি সোমবার কাঙ্খিত ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচনে চারটি ইউনিয়নের মধ্যে দাসপাড়া ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় এককভাবে নৌকার প্রার্থী এম.এন জাহাঙ্গী হোসেন নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি তিনটি ইউনিয়নের মধ্যে নাজিপুরে ৩ জন, মদনপুরায় ৮ জন এবং বাউফলে ৫ জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

অপরদিকে চারটি ইউনিয়নে সাধারন ইউপি সদস্য পদে ১৪৯ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৪৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। সরেজমিন জানা গেছে, নাজিরপুর ব্যতিত মদনপুরা ও বাউফল সদর ইউনিয়নে শক্ত স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী থাকায় নৌকার কান্ডারীরা অনেকটাই চাপের মধ্যে রয়েছেন। বাউফল সদর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী মো. জসিম উদ্দিনের সাথে স্বতন্ত্র(বিদ্রোহী) প্রার্থী মো. জাহিদ হোসেনের এবং মদনপুরা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তাফার সাথে স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী)প্রার্থী মো. মিজানুর রহমানের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। নৌকার প্রার্থীদের সাথে বিদ্রোহী প্রার্থীদের তুমুল লড়াই হচ্ছে বলেই আভাস পাওয়া যাচ্ছে। এদিকে প্রতিটি সাধারন ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের বিপরিতে বহু সংখ্যক প্রার্থী থাকায় ভোটারাও রয়েছে বিভ্রান্তির মধ্যে। তবে সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের জন্যই নির্বাচনী আমেজ অনেকটাই প্রস্ফুটিত রয়েছে। সদস্য পদে বেশি সংখ্যক প্রার্থী থাকায় ভোটারদের উপস্থিতিও বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আল মামুন জানান, প্রতি কেন্দ্রে ৫ জন জন পুলিশ থাকবে। মাঠে পুলিশ, র‌্যাব এবং বিজিবি’র মোবাইল টীম থাকবে। এছাড়াও প্রয়োজনীয় সংখ্যক আনসার-ভিডিপি মোতায়েন থাকবে। উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. তারিকুল ইসলাম জানান, চারটি ইউনিয়নে মোট ৭৪ হাজার ১৭০ জন ভোটার রয়েছে। নির্বাচনকে প্রভামুক্ত ও সুষ্ঠু করতে সকল ধরণের কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। চারটি ইউনিয়নেই ইভিএম’র মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল আমিন জানান, চারটি ইউনিয়নে মোট ৪১টি কেন্দ্র রয়েছে। সার্বিক আইন-শৃংখলা রক্ষায় ৮ জন ম্যাজিষ্ট্রেট সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে। কোথাও কোন বিশৃংখলা দেখা দিলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleরংপুর চিড়িয়াখানায় বাঘিনীর মৃত্যু
Next articleচেয়ারম্যান-মেম্বারদের সালিশে কিশোরীর ইজ্জতের মূল্য ২ লাখ টাকা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।