তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর থেকে চাঁদপুরে যাওয়ার পথে আঞ্চলিক মহাসড়ক দিয়ে চরপাতা বোর্ডারবাজার। তার পাশেই চরমান্দারি নামের নীরব একটি গ্রাম। ওই গ্রামের সড়কের পাশেই কয়েকটি পরিবার মিলে স্ত্রী, দুই ছেলে ও মা’কে নিয়েই দিনমজুর মানিকের পরিবারের বসবাস। প্রতিদিন সকালে দিনমজুর কাজে ঘর থেকে বের হওয়ার আগেই মানিক শিশু ছেলে খলিলের কপালে চুমু খান। পরে সাথে করে চার বছরের বড় ছেলে শাকিলকে মাদরাসায় পৌঁছে দিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে চলে যান মানিক। কাজ করার সময়ে হঠাৎ বাড়ি থেকে সংবাদ পান খলিল পুকুরে ডুবে মারা গেছে। এতেই তার মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়ে, আর তাতেই সে কাজের মধ্যে জ্ঞান হারান। এর মধ্যে শিশু খলিলকে পুকুর থেকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নিয়েআসেবাড়ির লোকজন।

এঘটনায় বাড়িতে ছুটে এসে কাউকে না পেয়ে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ছুটে যান। মানিককে দেখেই তার স্ত্রী কহিনুরসহ অন্য সন্তানরা জড়িয়ে ধরে চিৎকার দিয়ে কাঁদতে থাকে। পরে কর্তব্যরত ডাক্তার শিশুকে মৃতঘোষনা করেন। পরে বিকাল ৫টার সময় নিহত শিশু খলিলকে তাদের বাড়িতে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। ঘটনার দিনের কথা (৩ জানুয়ারী) এভাবেই বর্ণনা করেছেন সন্তানহারা পিতা অসহায় দিনমজুর মোঃ মানিক।

মারা যাওয়ার আগে বল খেলা করছিলো শিশুটি:-
——————————————————————–
কিভাবে মারা গেলো শিশুটি জানতে চাইলে তার মা কহিনুর বেগম বলেন,,দেড় বছরের শিশু মোঃ খলিল। আমাদে দ্বিতীয় সন্তান সে। তার বড় ভাই সোহেল বাবার সাথে মাদরসায় চলে যায়। খলিল আমার সামনেই বল খেলছিলো। আমি রান্নার কাজে ব্যাস্ত ছিলাম। তার বাবা সকালেই কাজের সন্ধানে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। চোখের পলকে কখন যে বসতঘরের পাশে খলিল পুকুরে ডুবে যায় তা দেখি নাই। খোঁজাখুজি করে খলিলকে না পেয়ে চিৎকার করে আমি জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটে পড়ি। পরে তার বাবাকে সংবাদ দেই। এসময় বাড়ির লোকজন আমার চিৎকার শুনে এগিয়ে এসে প্রায় ২৫ মিনিট পর খলিলের মৃত দেহ ভাসতে দেখে পুকুর থেকে দ্রুত উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতাল নিয়ে যাই। পরে কর্তব্যরত ডাক্তার আমার খলিলকে মৃত ঘোষনা করেন।

মাথায় পেট চেপে ঝাকানো হয়েছিলো শিশুটিকে:-
——————————————————————–
হাসিব হোসেন নামের বাড়ির এক লোক পুকুর থেকে খলিলকে উদ্দার করে শিশুটিকে নাভি বরাবর পেটের অংশ মাথার উপর চেপে রেখে ঝাঁকি দিতে থাকেন। তখনো তাদের ধারনা ছিলো এভাবে পানি বের করে দিতে পারলে শিশুকে বাঁচানো যেতে পারে। কিছুক্ষন ঝাঁকালেও কাজ হচ্ছিলো না। পরে দ্রুত শিশুকে হাসপাতাল নেন।

হাপাতালে নেওয়ার পরে ১৫ মিনিটেও ডিউটি ডাক্তার মেলেনি—
—————————————————————–
রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তারা পড়েন বিপাকে। সন্তানের নিথর দেহটি কোলে নিয়ে বসে ছটপট করেন মা। ওদিকে ডাক্তারের সহকারি ফোন দেন আর ওই মাকে শান্তনা জানান। মা-কহিনুর বলেন,প্রায় ১৫ মিনিট কোন ডাক্তার ছিলো না। এর পর মহিলা ডাক্তার এসে শিশুকে শুইয়ে বিভিন্নভাবে পরিক্ষা করে অবশেষে বলেন, শিশুটিকে মৃত ঘোষনা দেন।

শিশুটির মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া:-
————————————————————
এতে শিশু খলিলের মৃত্যুতে দিনমজুর অসহায় মা-বাবা ও দাদিসহ পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বিকালে আসরের নামাজের পর কবরে লাশ দাফন শেষে সবাই চলে যাওয়ার কবরকে জড়িয়ে ধরে দির্ঘক্ষন মা-বাবার কান্না দেখে প্রতিবেশিরাও কেঁদেছেন। চরপাতা ইউপি সদস্য আমিন পাটোয়ারী বলেন, অসহায় দিনমজুর মানিকের শিশু সন্তানের মৃত্যুতে পরিবারের সাথে আমরাও শোকাহত। বিভিন্ন সভার মাধ্যমে পুকুরে পড়া রোধ থেকে সবাইকে সচেতন হতে হবে।।

উল্লেখ্যযোগ্য পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু:-
———————————————————
গত বছরের ৬ মার্চ দুপুরে মা ও ভাই-বোনদের অগোচরে বাড়ির পুকুর ঘাটে খেলা করতে গিয়ে পড়ে ডুবে একসঙ্গে মারা যায় ৩ বছরের ফাইয়াজ ও ৪ বছরের আরিয়া। তারা দুইজনই চট্রগ্রাম আন্দরকিল্লাহ শাহি জামে মসজিদের খতিব আলহ্বাজ মাওলানা আনোয়ার হোসেন তাহের জাবেরির নাতি-নাতনি এবং আলহ্বাজ মাওলানা তাহের ইজ্জুদ্দিনের মেয়ে ও আলহ্বাজ মাওলানা জাহেদ ইজ্জুদিনের ছেলে। ১৪ ডিসেম্বর চরমোহনা ইউপির উত্তর রায়পুর গ্রামের কৃষক রহিমের ছেলে ওয়াহিদুর রহমান রাইমন (২) এবং একইদিন সোনাপুর ইউপির মহাদেবপুর গ্রামের কাশিমের ছেলে আবদুর রহমান (৪) পুকুরে ডুবে মারা যায়।
গত বছর ( ১৩ মাস ২২ দিনে) ৫৫ জন শিশু মারা যায় এবং হাসপাতালে ভর্তির পর ১২৭ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে।

রায়পুরের সচেতন মহলের পরামর্শ:
————————————————–
এই সচেতন না হওয়ায় পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে । কিন্তু-এটি ‘নীরব মহামারি’ রূপ ধারণ করে থাকলেও সচেতনমহল বলেন,সরকারি বা বেসরকারি যেসব উদ্যোগ রয়েছে তা প্রতিকার ও প্রতিরোধে যথেষ্ট না। বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুুত্রে জানাযায়, ১৩ মাস ২২ দিনে পানিতে ডুবে মারা যায় শিশু। ২০২১ সালে পুকুরে ডুবে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১২৩ শিশু। ২০২০ সালে ৪৫ জন মারা যায় ও ভর্তি হয় ১১১ জন শিশু।।

রায়পুর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার বাহারুল আলম বক্তব্য:
——————————————————————- মাসে ১০/১৫ পর পরপর আবার সপ্তাহে ২/৩ জন মারা যাওয়া শিশু হাসপাতালে নিয়ে আসছে। অভিভাবকদের অ-সচেতনতাই এর জন্য দায়ি। তাদেরকে আরো বেশি সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন ডাক্তারগন।

২০২১ সালের আলোচিত মর্মান্তিক ঘটনা:-
——————————————————————– ৩০ অক্টোবর পৌরসভার দেনায়েতপুর এলাকায় নানার বাড়ীতে বেড়াতে এসে দুই বোনের দুই ছেলে শিহাব (১৮ মাস) ও আবদুল্লাহ (২) পানিতে ডুবে মারা যায়। গত ২৬ জুন চরআবাবিল ইউপির হায়দরগঞ্জের সাইয়্যেদ মন্জিলের ভিতরে পুকুরে শিশু ছেলে আরিয়া (৬) ও তার চাচাতো ভাই ফায়সালের ছেলে ফাইয়াজ হোসেন (৭) সাঁতার না জানার কারনে বাড়ীর ভেতরে পুকুরে এক সঙ্গে-ডুবে মারা যায়। উপজেলার উত্তর চরবংশী, দক্ষিন চরবংশী, উত্তর চরআবাবিল, দক্ষিন চরআবাবিল, চরমোহনা ও বামনী ইউপিতে বেশি পরিবার শিশুরা পানিতে ডুবে মারা যায়।

শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় সচেতন শিক্ষকে বক্তব্য:-
——————————————————————
রায়পুর এলএম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, “সন্তানকে সাঁতার শেখাতে ব্যক্তি উদ্যোগের কোনও বিকল্প নেই। ”অভিভাবকের উধাসিনতার কারনে শিশুরা পুকুরে ডুবে মারা যাচ্ছে। সামাজিক অবস্থায় ছেলেদের ‍উন্মুক্ত পরিবেশে সাঁতার শেখানো গেলেও মেয়েদের ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব নয় বলেন।”

Previous articleডিমলায় অসহায় পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ বিতরণ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের সীমান্তে ৫৩ বিজিবি’র অভিযানে ৪০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।