বাংলাদেশ প্রতিবেদক: লবণের দাম হঠাৎ করে অর্ধেকে নেমে এসেছে। এতে করে কক্সবাজারের চকরিয়া ও পেকুয়া উপকূলের লাখো ব্যবসায়ী, শ্রমিক, মালিক ও চাষী পড়েছেন বিপদে। বিদেশ থেকে লবণ আমদানি করতে না পেরে দেশের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা সিন্ডিকেট করে এ দরপতন ঘটিয়েছেন বলে দাবি চাষীদের।

চকরিয়া উপজেলার লবণ শিল্পখ্যাত ইউনিয়ন খুটাখালীর ব্যবসায়ী আকতার কামাল জানান, হঠাৎ করেই লবণের দাম অর্ধেকে নেমে এসেছে। মার্চের আগ পর্যন্ত প্রতিমণ লবণের দাম ৩৫০ টাকা ছিল। একই লবণ পহেলা মার্চের পর ১৫০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, প্রায় ২৫ একর জমিতে তিনি লবণের মাঠ করেন। তিনি অভিযোগ করেন, লবণ মিল মালিক সিন্ডিকেটই জিম্মি করছে চাষীদের। এ অবস্থা কিছুদিন চললে চাষীদের পরিস্থিতি করুণ হতে পারে।

খুটাখালী ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী আবদুল গফুর জানান, বিদেশ থেকে কেউ লবণ আমদানি করছে না, তবুও কৃষকরা লবণের দাম পাচ্ছে না।

তিনি বলেন, খুটাখালী বহলতলী, ফুলছড়ি ও মেধাকচ্ছপিয়ায় প্রায় ১০ হাজার একর লবণ চাষ হয়। জমির মালিক, লবণচাষী, শ্রমিক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীসহ ৫০ হাজার মানুষ এর সাথে সম্পৃক্ত। হঠাৎ করে লবণের দাম কমায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন লবণ ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত ওই ৫০ হাজার মানুষ।

হাজী আবদুল গফুর আরো বলেন, লবণের প্যাকেটের গায়ে তো প্রতি কেজি লবণের মূল্য এখনো ৩০ টাকা লেখা রয়েছে, কিন্তু উৎপাদনের জায়গায় এক কেজি লবণের দাম ৫ টাকা হবে কেন? ধারণা করা হচ্ছে, লবণের দাম আরো কমতে পারে।

দেশের বড় ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা সিন্ডিকেট হয়ে লবণের দাম পানিতে মিশিয়ে দিচ্ছেন বলে দাবি করছেন ব্যবসায়ী আবদুল গফুর। এ অবস্থা চলতে থাকলে লবণচাষীরা মানবেতর জীবনযাপন করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বাংলাদেশ লবণ চাষী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট শহীদ উল্লাহ চৌধুরী জানান, কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের কিছু অংশসহ দেশে ৫৬ হাজার একর জমিতে লবণের চাষ হয়। দীর্ঘদিন ধরে লবণ ব্যবসার সাথে জড়িত একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট দেশীয় লবণের ধস নামাতে বিদেশ থেকে লবণ আমদানি করতে সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে তদবির করে আসছে। কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিবের কারণে ওই সিন্ডিকেট লবণ আমদানি করতে পারেনি।

তিনি বলেন, প্রতি একর লবণ মাঠে উৎপাদন খরচ হয় প্রায় ৪০ হাজার টাকা, সেই জায়গায় বিদেশ থেকে লবণ আমদানি করলে দেশীয় লবণশিল্প মাঠেই মারা যাবে। বর্তমানে ওই প্রভাবশালী সিন্ডিকেট দেশীয় লবণ উৎপাদনকারী চাষীদের হয়রানি করতে লবণের ন্যায্য দাম কমিয়ে দিয়েছে।

অ্যাডভোকেট শহীদ উল্লাহ আরো বলেন, লবণশিল্প দেশের জন্য বড় সম্পদ, এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কিন্তু দেশের কিছু অসাধু অতি মোনাফালোভী ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট এ শিল্পকে জিম্মি করার চেষ্টা করছে। এ শিল্পের সাথে দেশের লাখো ব্যবসায়ী, শ্রমিক, চাষী ও জমির মালিকের জীবন-জীবিকা জড়িত।

হঠাৎ করে দাম কমানোর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় একটি শক্তিশালী তদরকি টিম গঠনের দাবিও জানান তিনি। না হয় এ শিল্পের সাথে জড়িতরা লবণের ন্যায্য দাম না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করবে।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে পৃথক অভিযানে তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
Next articleগাজীপুরে যুবলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে ক্ষমতার জোরে জমি দখলের চেষ্টা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।