ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছার চরাঞ্চলে লতানো তরমুজ গাছে ছেয়ে আছে মাঠ। ফুটেছে ফুল কিন্তু ধরেনি ফল । চরাঞ্চলের ১১ একর জমিতে শোভা পাচ্ছে হাতে গোনা কয়েকটি ছোট ছোট তরমুজ। পঁচে যাচ্ছে তরমুজের বৃহৎ একটি অংশ। উপজেলায় ছাওলা ইউনিয়নে শিবদেব চরে তরমুজের এমন ফলনে এক কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

ছাওলা ইউনিয়নের শিবদেব চরের আক্তার মন্ডলের ছেলে কৃষক তোজাম্মেল হককে ইস্পাহানি বীজ কোম্পানির মার্কেটিং ম্যানেজার খালিদ হাসান, প্রোক্টান্ডশন ম্যানেজার আব্দুল হামিদ ও পাওটানাহাটের ওই কোম্পানীর ডিলার মিজানুর রহমান তরমুজ চাষে উদ্বুদ্ধ করেন। তাদের কথায় কৃষক রাজী হলে উভয়ে মিলে গত বছরের ১৯ নভেম্বর কৃষক তোজাম্মেল এর ১১একর জমিতে তরমুজ বীজ রোপন করেন। হাইব্রিড জাত কালোমালিক, গ্রীনডায়মন্ড ও সুইট ড্রাগন বীজ থেকে সময়মতো চারা গজিয়ে লতানো গাছে খেত ছেয়ে যায়। ফুলও ধরেছে। কিন্তু তরমুজ আর ধরে না। দু-একটি গাছে একটি-দুটি তরমুজ ধরলেও তা আকারে খুবই ছোট এবং তাতে ধরেছে পঁচন।

বীজ কোম্পানির কোম্পানির মার্কেটিং ম্যানেজার খালিদ হাসান, প্রোক্টান্ডশন ম্যানেজার আব্দুল হামিদ ও তাদের ডিলার মিজানুর রহমান এর পরামর্শমতো তাদের উপস্থিতিতে কৃষক ঠিক সময়ে সার, কীটনাশক দিয়েও কোনো ফল পাননি। এখন সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন কৃষক তোজাম্মেল হক। কৃষক তোজাম্মেল হক জানান, কোম্পানির লোকজনের কথায় টাকা ধার নিয়ে ১১ একর জমিতে ৩৬ হাজার বীজ রোপন করেছি। বাজারে অন্যান্য এলাকার তরমুজ বিক্রয়ের জন্য দেখা গেলেও আমার জমিতে তরমুজ নেই। তরমুজ চাষে বীজ, সার, কীটনাশকসহ অন্যান্য মিলে প্রায় ৮ লক্ষ টাকা খরচ করলেও দেখা মিলেনি কোন তরমুজের। কোম্পানির লোকজন বলেছিলো অনেক তরমুজ পাবো। গাছ ভালো হলেও নেই তরমুজ। এখন আমার পুরোটাই ক্ষতি।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা হারুনুর রশিদ বলেন, আমি ডিলার মিজানুর রহমানসহ তরমুজ খেত নিয়মিত পরিদর্শন করেছি। জমিতে রোগ কিংবা পোকার আক্রমন তেমন হয়নি। ইস্পাহানি কোম্পানীর বীজগুলো ছিল পূরাতন। খেতে পুরুষ গাছের সংখ্যা বেশি। মহিলা গাছ নেই বললেই চলে। এজন্য তরমুজ গাছে ফলন নেই। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওই বীজ কোম্পানির মার্কেটিং ম্যানেজার খালিদ হাসান বলেন, হয়তো আবহাওয়ার কারনে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে পুরাতন বীজ দেয়ার কথা তিনি অস্বীকার করেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম বলেন, বীজের কারণে এ রকম সমস্যা হতে পারে। ইস্পাহানি কোম্পানীর বীজ নি¤œমানের। এর চেয়েও ভালো ভালো কোম্পানীর বীজ রয়েছে। কৃষকের উচিত ছিলো কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে তরমুজ চাষ করা। এভাবে কোম্পানীর প্রতিনিধিরা কৃষককে ভুল বুঝিয়ে নি¤œমানের বীজ দিয়ে কৃষকের ক্ষতি করলে কৃষকরা দিনে দিনে চরম ক্ষতির সম্মূখীন হবে।

Previous article‘আল্লাহ আপনাদের মাফ করবেন না’
Next articleপাকিস্তানের পার্লামেন্ট ভেঙে দিলেন রাষ্ট্রপতি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।