আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলায় একমাত্র বোর ফসল রক্ষায় কৃষকেরা নির্ঘুমে রাত কাটাচ্ছেন,ফসল রক্ষা বাঁধে ফাটল ও ধসে পড়ার সংবাদ শুনলেই একমাত্র বোর ফসল রক্ষায় দলবদ্ধ হয়ে ছুটে চলছে বাঁধে বাঁধে।

গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নদ-নদীতে দ্রুত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় একমাত্র সোনালী ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা। উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর সহ ছোট-ছোট কয়েকটি হাওরে বাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে গেছে হাওরের ফসল।সম্প্রতি উপজেলার মাটিয়ান হাওরের আনন্দনগর গ্রাম সংলগ্ন ফসল রক্ষা বাঁধ ও টাঙ্গুয়ার হাওর সংলগ্ন বাঘমারা ফসল রক্ষা বাঁধে দেখা দিয়েছিল ফাটল ও ধসে পড়েছিল।বাঁধ রক্ষায় উপজেলা প্রশাসন নির্ঘুমে রাত কাটাচ্ছে,ফসল রক্ষা বাঁধের খারাপ খবর আসলেই মসজিদে মসজিদে মাইকিং করা হচ্ছে।মাইকে খারাপ খবর শুনলেই একমাত্র বোর ফসল রক্ষায় কৃষকেরা দলবদ্ধ হয়ে রাতের আঁধারেই বাঁধ রক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়ছে।

জানাযায় সম্প্রতি বাঁধ ভেঙ্গে ও উপচে পড়ে উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের গইন্যাকুড়ি,এরাইল্যাকুনা, এবং টাঙ্গুয়ার হাওরের নজরখালী বাঁধ ভাঙায় হাওরের উত্তর পশ্চিম পাশে মধ্যনগর উপজেলার বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের সোনাডুবি, বানবিল,সামসাগর বিল,পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে একমাত্র বোর ফসল। এছাড়াও হুমকিতে রয়েছে হানিয়া, কলমা,শালদিঘা,মুক্তার খলা সহ তাহিরপুর উপজেলার নয়হাল,খাউয়ারখাল,খাউজ্যাউরীসহ কয়েকটি হাওরের ফসল। রাতের বেলা মাইকের আওয়াজ শুনলেই দিশেহারা হয়ে পড়ছেন কৃষকেরা। হাওরের আধা-কাঁচা ধান নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই তাদের। চলমান পরিস্থিতিতে নির্ঘুমে রাত কাটাচ্ছেন হাওর পাড়ের মানুষ। মাইকে বাঁধ রক্ষার আহবান আসলেই যে যার মতো উরা-কোদাল ছুটছে বাঁধ রক্ষায়।এ যেন এক প্রকৃতির সাথে কঠিন যুদ্ধ।

স্থানীয় জয়পুর গ্রামের কৃষক কপিলনুর মিয়া বলেন এখন মসজিদে মাইকের আওয়াজ শুনলেই ভিতরটা শুকিয়ে যায়,না জানি কোন বাঁধের খারাপ সংবাদ, তাই আমরা এখন নির্ঘুমেই রাত কাটাতে হচ্ছে। যদি এবার ফসল ডুবে যায় পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে।

গতরাতে বাঘমারা বাঁধে অবস্থানরত শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের রামসিংহপুর গ্রামের কৃষক আইকুল মিয়া বলেন বাঘমারা বাঁধ ধসে পড়েছে শুনে দিশেহারা হয়ে যাই,কি করবো গত তিনদিন ধরে রাতে দিনে একাধারে কাজ করে যাচ্ছে একমাত্র ফসল রক্ষার জন্য, আল্লাহর রহমতে বাঁধের অবস্থা এখন ঝুঁকিমুক্ত। তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির স্যার সার্বক্ষণিক নজরদারি রাখছেন উনি প্রতিদিন বাঁধে এসে দেখে যাচ্ছেন।

অন্যদিকে যে কোন বাঁধে ফাটল ও ধসে পড়ার সংবাদ শুনলেই গভীর রাতেই ছুটে চলছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির,কৃষকদের পাশে গিয়ে সাহস দিয়ে যাচ্ছেন।

উউল্লেখ্য যে সম্প্রতি মাটিয়ান হাওরের আনন্দনগর গ্রাম সংলগ্ন ফসল রক্ষা বাঁধ ধসে যাওয়ার ঘটনায় অজ্ঞাতনামা সহ ১০জনের নাম উল্লেখ করে তাহিরপুর থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তাহিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করে উপজেলা প্রশাসন।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির বলেন উপজেলার কয়েকটি ফসল রক্ষা বাঁধে ফাটল ও ধসে পড়লেও স্থানীয় লোকজনসহ আমরা তাহা ঝুঁকিমুক্ত করতে পেরেছি, আল্লাহ রহমতে এখন সবকটি বাঁধ ঝুঁকিমুক্ত আছে।

Previous articleরাজধানীতে ভুয়া র‍্যাবের কবলে ব্যবসায়ী, উদ্ধারে প্রকৃত র‍্যাব
Next article‌পাঁচবিবিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।