আহম্মদ কবির: সে এই ধন্য নরকূলে লোকে নাহি ভুলে,মনে মন্দিরে নিত্য সেবে সর্বজন। এ দেশে যে কয়জন কর্মযজ্ঞে জনগণের মনে আস্থার জায়গা করে নিয়েছেন,তাদের ন্যায় আমাদের সীমান্ত ঘেঁষা প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চলেও এমন একজন সরকারি কর্মকর্তা রয়েছেন,যিনি তার কর্মযজ্ঞে জনগণের হৃদয়ে আস্থার জায়গায় করে নিয়েছেন।দেশের প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চল সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির।

অত্যন্ত সৎ,মেধাবী, বিনয়ী,সদালাপী, দায়িত্ব ও কর্তব্যপরায়ণ এ কর্মকর্তা প্রায় একবছর পূর্বে তাহিরপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে যোগদান করেন। সেই থেকেই উপজেলাবাসীর কল্যাণে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।প্রত্যন্ত এই অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল না হলেও তিনি দিনরাত একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে ছুটে চলেছেন।যে কোন দুর্যোগে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সম্প্রতি উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে নদীতে পানি পরিপূর্ণ হয়ে ঢলের পানির চাপে উপজেলার কয়েকটি ফসল রক্ষা বাঁধ ফাটল ধরে ধসে পড়ে যায়। এতে তিনি এ উপজেলার একমাত্র বোর ফসল রক্ষার স্বার্থে সরকার কর্তৃক দেওয়া বাসভবন ছেড়ে নির্ঘুমে রাত কাটাচ্ছেন কখনো কৃষকদের কাগজের চাউনি দিয়ে তৈরী অস্থায়ী কুড়ের ঘরে,কখনো বা নৌকায়। এভাবেই প্রতিটি ঝুকিপূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত ফসল রক্ষা বাঁধগুলো পূর্ণ মেরামত করার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কৃষকদের নিয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। কখনো নিজের ব্যক্তিগত অর্থ দিয়ে বাঁশ বস্তা ক্রয় করে ঝুকিপূর্ণ বাঁধ রক্ষায় কৃষকের পাশে দাঁড়িয়েছেন,কখনো ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ মেরামত কাজে কৃষকদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য নিজেই কাজে লেগে যেতেও দেখা যাচ্ছে। এতে স্থানীয় জনগণ ও কৃষকদের মাঝে আস্থার জায়গা করে,দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি।

দুর্যোগে কৃষকদের ফসল রক্ষার্থে ক্ষতিগ্রস্ত ফসল রক্ষা বাঁধ মেরামতে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম হতে এক্সপার্ট ব্যাক্তিদের নিয়ে এসে ফসল রক্ষার ঝুকিপূর্ণ বাঁধ গুলো ,ঝুঁকিমুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। মাঝেমধ্যে নিজের ব্যাক্তিগত অর্থ দিয়ে কর্মরত শ্রমিকদের কাজে মনোযোগী হওয়ার জন্য শুকনো খাবার বিতরণ এমন দৃশ্য সত্যি প্রশংসার দাবিদার।ফসল রক্ষা বাঁধের সমস্যাজনিত কোন তথ্য পেলেই তিনি কারো মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজেই দ্রুত ছুটে যান সেই সমস্যা জনিত বাঁধে।এবং সমস্যা সমাধানের জন্য সাথে সাথেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে যাচ্ছেন তিনি । উপজেলার ছোটকাট দু’একটা হাওরের ফসল ডুবির ঘটনা ঘটলেও,তার কর্ম চেষ্টায় উপজেলার সর্ববৃহৎ সবকটি হাওর এখনো রয়েছে শঙ্কা মুক্ত।তার এ চেষ্টা তিনি এখনো চলমান রেখেছেন।এভাবেই তিনি কাজ করে সাধারণ মানুষের হৃদয় স্থান করে নিয়ে,জনগণের কাছে আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতীক হয়ে উঠেছেন।

এখানেই শেষ নয় গেল কিছুদিন পূর্বে বৈশ্বিক প্রাণঘাতী মহামারি করোনাভাইরাস এর প্রাদুর্ভাব রোধে নিয়েছিলেন সময়োপযোগী পদক্ষেপ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উপজেলার প্রত্যেকটি এলাকায় মাইকিং,লিফলেট বিতরণ সহ গণসংযোগ সভা-সমাবেশ এর মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করার জন্য নিরলসভাবে চেষ্টা করেছেন।মাস্ক পরিধান, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা,জনসমাগম রোধ,বিভিন্ন হাট-বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা জরিমানা আদায়,দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করে উপজেলার সাধারণ মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছেন বহুবার।

উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর গ্রামের হতদরিদ্র কৃষক হুমাইউন কবির জানান,নদীতে মাঝে পানি বাড়ায় আমরার হাওরের বাঁধে ফাটল ধরিয়া ধসিয়া পড়লে ইউএনও স্যার নিজের জীবনের মায়া না কইরা এই ঝড়-তুফানের মাঝে সারা রাইত কান্দায় তাইক্কা শ্রমিক নিয়া যেভাবে কাজ করছেন,আমি এর আগে কোনদিন দেখছিনা কোন ইউএনও স্যার এইভাবে কাজ করতে। আমি উনার মঙ্গল কামনা করি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাওর পাড়ের এক ব্যক্তি জানান, একদিন আকাশে বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে, প্রচন্ড ঝড়-তুফান আসছে,আমি ইউএনও স্যার কে মোবাইল ফোনে বল্লাল স্যার আপনি কোথায়,উনি উত্তরে বললেন ফসল রক্ষা বাঁধে, আমি বললাম স্যার ঝড়-তুফান আসছে,আপনি নিরাপদ স্থানে চলে আসুন,আপনার জন্য ঝুঁকি হয়ে যাবে,উনি উত্তরে বল্লেন যদি বাঁধের কোন ক্ষতি হয়, এখানে একটা নৌকা আছে আমি এখানেই আছি,বাঁধের কাজ করতে হবে।যাহাতে কৃষকের ফসলের কোন ক্ষতি না হয়। উনি আমাকে বাঁধে শ্রমিক নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করলেন।উনি বলেন প্রত্যেকটি মানুষের ভাল কাজের প্রশংসা হলো থাকে দক্ষ সেবক ও কারিগর হিসাবে গড়ে তোলার উত্তম হাতিয়ার। কেননা এটাই একজনকে নিজের শক্তি সম্বন্ধে আত্মবিশ্বাসী করে তুলতে পারে।তাই আসুন আমরা উনার ভাল কাজের প্রশংসা করে তার আগ্রহ বৃদ্ধি করি।এতে দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণ বয়ে আনবে।

উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের লামাগাও গ্রামের কৃষক রাকাব মিয়া বলেন,একজন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে এইভাবে রাতের পর রাত জেগে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে দেখিনি,সত্যি উনি একজন দেশপ্রেমিক এইরকম ইউএনও প্রতিটি উপজেলায় দরকার,

পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা বলেন তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির,চলমান দুর্যোগ মোকাবিলা যেভাবে করছেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির বলেন,প্রজাতন্ত্রের জন্যই জনপ্রশাসন আর জনগণের সেবা করাই জনপ্রশাসনের প্রধান কাজ।এটাও আমার কাজেরই একটা অংশ।যদি স্থানীয় জনগণের সার্বিক সহযোগিতা ও আল্লাহর রহমতে এলাকার জনগণের ফসল রক্ষা পায় তবেই আমার এই কষ্টের স্বার্থকতা।

Previous articleলবিস্ট দিয়েও দুঃশাসন আড়াল করতে পারেনি আ.লীগ: রিজভী
Next articleসংবাদ প্রকাশের পর সেতু নির্মানে আনা হলো নতুন পাথর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।