আহম্মদ কবির: তাহিরপুরে ফসল রক্ষা বাঁধে পাটলাই নদীর পানি ছুঁই ছুঁই,বস্তা দিয়ে আটকানোর চেষ্টা
সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার পাটলাই নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায়,চরম ঝুঁকিতে পড়েছে উপজেলার পাটলাই নদী ঘেষা নান্দিয়ার হাওর,পালইর হাওর,কাটুয়ামারা হাওরসহ বিভিন্ন হাওরের ফসল রক্ষা বেরি বাঁধ। উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ছিলানী তাহিরপুর গ্রাম হতে কামালপুর গ্রাম পর্যন্ত নদীর পানি ছুঁই ছুঁই করছে বাঁধের শেষাংশ। যে কোন সময় বাঁধ উপচে অথবা ভেঙে হাওরের ফসল তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে হাওরপারের কৃষকরা। তারা সেচ্ছাশ্রমে বস্তা দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে।

ছিলানী তাহিরপুর হতে কামালপুর পর্যন্ত ফসল রক্ষা বাঁধটি ভেঙে গেলে শুধুই নান্দিয়ার হাওর, পালইর হাওর কিংবা বনুয়ার হাওরেই নয়,উপজেলার বোর ফসলের ভান্ডার খ্যাত মাটিয়ান হাওরের ফসলও তলিয়ে যাবে বলে জানান হাওরপারের কৃষকরা।

জানা যায় প্রতি বছরই সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে অন্যান্য হাওরের ন্যায় এই হাওরেও কাজ করা হয়।কিন্তু এ বছর পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ না করায় হাওরের কান্দা গুলো নিচু থাকায় নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কান্দা উপচে হাওরে পানি প্রবেশ করা শুরু করলে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ সাজিনুর মিয়া সহ এলাকার কৃষকদের প্রাণপণ চেষ্টায় উপচেপাড়া পানি আটকাতে সক্ষম হয়।

প্রায় ৪-৫ কিলোমিটার হেঁটে এসে প্রতিদিন বাঁধে মেরামত কাজ করছেন বলে জানান উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের তরং গ্রামের কৃষক মোঃ উজ্জ্বল মিয়া,শিবরামপুর গ্রামের কৃষক মোঃ মহিবুল মিয়া।তারা বলেন ৩০থেকে ৪০জন কৃষক দিনরাত আসছেন বাঁধে কাজ করতে।এতে কোন পারিশ্রমিকও পাচ্ছেন না।অন্যদিকে বাঁধগুলো পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে না থাকলেও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির এর সহযোগিতায় একদল শ্রমিক প্রতিদিন যেদিকে পানি গড়াচ্ছে সে দিকেই বাঁশ বস্তা ভর্তি মাটি দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করছে। এমন অবস্থায় গত কয়েকদিন ধরেই তারা এই বাঁধ রক্ষায় প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে নদীতে পানি বৃদ্ধি’র কারণে যে কোন সময় বাঁধ উপচে অথবা নদীর পানির চাপে ভেঙে হাওরে পানি প্রবেশ করার আতঙ্কে রয়েছে স্থানীয় কৃষকরা।

স্থানীয় কৃষক আব্দুল হালিম জানান আগাম জাতের ব্রি-২৮ ধান পাকলেও হাইব্রিড ২৯সহ অন্যান্য ধান পরিপক্ষ হতে এখনো সময় লাগবে আরো ৭-৮ দিন।তারপরও এরই মধ্যে তারা কাঁচা ধানই কেটে ফেলছেন অনেকেই।

একই এলাকার শ্রীয়ারগাও গ্রামের কৃষক মোঃ আলাউদ্দিন বলেন নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বাঁধ ফসল তলিয়ে যাওয়ার আতঙ্কে কাঁচা ধানই কাটছি,যে কারণে ধানের ধাম কমসহ ওজনে কম হচ্ছে। সব মিলিয়ে আমরা মারাত্মক ক্ষতির মুখে রয়েছি।

উপজেলা জয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভাঃপ্রাঃ প্রধান শিক্ষক ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের বাসিন্দা হাদিউজ্জামান বলেন নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় আমাদের গ্রামের পশ্চিম পাশে বাঁধ উপচে হাওরে পানি প্রবেশ করতে শুরু করলে আমরা গ্রামবাসী মিলে প্রাণপণ চেষ্টা করে পানি আটকাতে সক্ষম হই।কিন্তু এখনো নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বাঁধের বেশকিছু যায়গা জোরে ছুঁই ছুঁই করছে পাটলাই নদীর পানি।উপজেলা প্রশাসন সার্বক্ষণিক নজরদারি করছেন বস্তা বাঁশ দিয়ে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তারসাথে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আর্থিক সহযোগিতাসহ নিজে থেকে সার্বক্ষণিক তদারকি করছেন।

উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোঃ সাজিনুর মিয়া বলেন আমি আমার সামর্থ্য অনুযায়ী সহযোগিতা ও সার্বক্ষণিক তদারকি করছি। উপজেলা প্রশাসন প্রয়োজনীয় বাঁশ বস্তা ও শ্রমিক দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছেন।আর মাত্র কয়েকটা দিন হাওরটি রক্ষা করতে পারলে পাকা আধাপাকা যাই হউক পুরোপুরি ফসল গড়ে তুলতে পারতো।

Previous articleপাবনায় স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের নিয়ে যক্ষা বিষয়ক মতবিনিময় সভা
Next articleনোয়াখালীতে বিদ্যুতের ছেঁড়া তারে মা-ছেলের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।