অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার বগা ইউনিয়নের উত্তর রাজনগর পালপাড়া সার্বজনীন কালী মন্দিরে পবিত্র কোরআন রেখে পালানোর সময় স্থানীয়রা ইদ্রিছ খান (৪৮) নামের এক ব্যাক্তিকে হাতেনাতে ধরে ফেলেছে।

গতকাল বুধবার (২৭ এপ্রিল) রাত সারে তিনটার দিকে ওই ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহষ্পতিবার ভোরে বাউফল থানা পুলিশ ধৃত ব্যাক্তিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এঘটনায় ওই এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। এলাকায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আজ বৃহষ্পতিবার সরেজমিন জানা গেছে, ওই কালী মন্দিরের অদুরে দিলীপ পালের বাড়ি নাম কীর্তন অনুষ্ঠান হচ্ছিল। বৃহষ্পতিবার ভোরে ওই নামযজ্ঞ শেষ হওয়ার কারণে বুধবার রাতে নাম কীর্তন অনুষ্ঠানে কয়েক হাজার ভক্তের সমাগম ঘটে। সন্ধার দিকে অচেনা ওই ব্যাক্তি ইদ্রিছ খান এলাকায় ঘোরাঘুরি করছিল। রাতে কীর্তন অনুষ্ঠানে খাবারও খেয়েছিল। এরপর রাত সারে তিনটার দিকে কীর্তন আঙ্গিনা থেকে ১০০ মিটার দুরে উত্তর রাজনগর পালপাড়া সার্বজনীন কালী-শীতলা মন্দিরে ইদ্রিছ খান ঢুকে কালী প্রতিমার সামনে থাকা ঘটের উপর কোরআন রেখে পালিয়ে যাচ্ছিল। এসময় কীর্তনের স্বেচ্ছাসেবকরা মন্দির থেকে ইদ্রিছকে বের হতে দেখে তাকে ধরে ফেলে এবং মন্দিরের ঘট থেকে কোরআন উদ্ধার করে। এরপর তারা বাউফল থানায় খবর দিলে বৃহষ্পতিবার ভোরে পুলিশ গিয়ে ধৃত ইদ্রিছ খানকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে হৃদয় পাল(২২), সঞ্জয় পাল(৩৪), সৌরভ পাল(২১), সজল পাল (৩০) ও কার্তিক পাল(৩৫) জানায়, কীর্তনে অনেক নারী-পুরুষের সমাগম ঘটায় তারা নিয়মিত কীর্তন আঙ্গিনার চারদিকে টহল দিচ্ছেলেন। এসময় ইদ্রিছ খানকে কালী মন্দির থেকে বের হতে দেখে তাকে ধরে ফেলি এবং কালী মন্দিরের ঘট থেকে কোরআন উদ্ধার করি। এসময় ধৃত ইদ্রিছ খান কালী মন্দিরের ঘটের উপর কোরআন রাখা ভুল হয়েছে বলে স্বীকার করেন। এঘটনার পর কীর্তন আঙ্গিনায় সমবেত ভক্তদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। কীর্তন কমিটির সভাপতি দিলীপ পাল জানান, ভোর সারে ৫ টার দিকে কীর্তন অনুষ্ঠান শেষ করেছি কিন্তু ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী বৃহষ্পতিবার দিনে কিছু অনুষ্ঠান থাকলেও সেগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে হিন্দু অধ্যুষিত উত্তর রাজনগর পাল পাড়ার সকল পরিবারের মধ্যে অজানা আতংক বিরাজ করছে।

দিলীপ পাল জানান, দীর্ঘকাল থেকে আমরা হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খ্রীস্টান এক সাথে বসবাস করে আসছি। কখনো এমনটা দেখিনি। তিনি ধারণা করে বলেন, এখন বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে গ্রুপিং হওয়ায় স্বাধীনতা বিরোধি ও হিন্দু বিদ্বেষীরা আওয়ামী লীগের মধ্যেই স্থান করে নিয়েছে। এসব তাদেরই কর্মকান্ড হতে পারে। এখন আমাদের থাকাটাই কঠিন হয়ে পড়েছে। তিনি আরো বলেন, যদি আমাদের ছেলেরা ইদ্রিছ খানকে ধরতে না পারতো তবে বৃহষ্পতিবার সকালে এই গ্রাম কুমিল্লার নাসিরনগরের মতোই হতো।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল-মামুন জানান, প্রথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, ধৃত ব্যাক্তির বাড়ি বাখেরগঞ্জ উপজেলার নলুয়া ইউনিয়নে। সে দুমকি উপজেলার আঙ্গারিয়া এলাকার কদমতলা আবাসনে থাকে। বুধবার বিকেলে পটুয়াখালী থেকে এমভি কামাল খান লঞ্চে উঠে বগা লঞ্চঘাটে নেমে ওই গ্রামে যায়। এবিষয়ে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছে। তাকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে আবেদন জানানো হবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের আতংক দুর করার জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মোহম্মদ শহীদুল্লাহ জানান, এবিষয়ে কোন ছাড় দেয়া হবে না। আমরা ঘটনার মূল তথ্য বের করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নিচ্ছি। বর্তমানে এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে। কেউ যাতে গুজব ছড়াতে না পারে এবং এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের আতংক দুর করতে পুলিশি পাহার বসানো হয়েছে। এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ বাউফল উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক অতুল চন্দ্র পাল স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়কে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আতংকিত হিন্দু সম্প্রদায়কে ভীত না হওয়ার অনুরোধ করেন। তিনি ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে জড়িতদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।

Previous articleনোয়াখালীতে এমপির ব্যর্থতাকে দুষে আ’লীগ নেতার পদত্যাগ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে চাঞ্চল্যকর ডাকাতির মামলার এজাহারভুক্ত পলাতক আসামি আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।