প্রদীপ অধিকারী/শফিকুল ইসলাম: পাঁচবিবি উপজেলার সাতনা গ্রামে মুরগীর মাংস খায়ানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে গিয়ে শিশু দেবর লাবিব হোসেনকে (৪) শ্বাসরোধ করে হত্যার করেছে আপন বড় ভাইয়ের স্ত্রী রিমা আক্তার (১৮)। শিশু দেবরকে হত্যার ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে নিজ ভাড়ি থেকে রিমা আক্তারকে আটক করা হয়।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, জাহের আলীর দুই ছেলে। মেস্তাউল ও লাবিব। মেস্তাউলের স্ত্রী রিমা খাতুন বিয়ের পর থেকে প্রায় শ্বশুর- শ্বাশুড়ির সাথে ঝগড়া বিবাদে লেগে থাকতো। ফলে বাধ্য হয়ে জাহের আলী তার বড় ছেলে মেস্তাউলকে ভিন্ন বাড়ি করে দেন। ঘটনার দিন সকালে জাহের আলী তার বড় ছেলে মেস্তাউলকে সঙ্গে নিয়ে মাঠে ধান কাটার জন্য যায়। এই সুযোগে পূর্ব পরিকল্পনায় ভাবী রিমা খাতুন তার একমাত্র দেবরকে ভাত খাওয়ানোর কথা বলে নিজ বাড়ীতে নিয়ে আসে। ভাত খাওয়ার পরে রিমা শ্বাস রোধ করে লাবিবকে হত্যার পর নিজ ঘরের ভিতর লেপ দিয়ে ঢেকে রাখে। পরে রিমার শ্বাশুড়ী তার শিশু ছেলেকে নিয়ে যাবার জন্য বড় ছেলে মেস্তাউলের বাড়িতে আসে। বড় ছেলের বাড়িতে না পেয়ে শিশু লাবিবকে খুজতে থাকে তার মা। একপর্যায়ে লাবিবের লাশ ঘরের ভিতর থেকে উদ্ধার করা হয়।

পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ পলাশ চন্দ্র দেব ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, রিমা তার দেবর লাবিবকে শ্বারোধ করে হত্যার কথা জানালে পুলিশ তাকে আটক করে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য জয়পুরহাট মর্গে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে। পাঁচবিবি সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ইশতিয়াক আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

 

Previous articleমুন্সীগঞ্জে আগুনে পুড়লো ৫০লক্ষ টাকার দোকান
Next articleকলাপাড়ায় পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।