বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভারতের গজলডোবার গেট খুলে দেয়ায় উজানের ঢল ও বর্ষণে তিস্তা পাড়ে শুরু হওয়া বন্যার্তদের মধ্যে খাবারের তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। সরকারি তরফ থেকে যে খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয়েছে তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই সামান্য। এদিকে শনিবার বিপৎসীমার নিচে থাকলেও আবারো ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তিস্তার পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করার পূর্বাভাস দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব জানান, বৃষ্টিপাত এবং উজানের ঢলের কারণে ডালিয়া ব্যারেজ পয়েন্টে তিস্তার পানি শনিবার বিকেল ৩টায় ২৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে উজানে ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। এতে ত্স্তিার পানি ডালিয়া পয়েন্টে আবারো বিপৎসীমা অতিক্রম করবে।

সরেজমিনে দেখা গেছে তলিয়ে যাওয়া রংপুরের গঙ্গাচড়ার নোহালী, আলমবিদিতর, কোলকোন্দ, লক্ষিটারী, সদর, গজঘণ্টা ও মরনেয়া, কাউনিয়ার বালাপাড়া, পীরগাছার ছাওলা, তাম্বলপুর ইউনিয়নের তিস্তার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের বাদামসহ বিভিন্ন ফসলি জমি। হাজার হাজার বাসা-বাড়িতে হাঁটু থেকে কোমর পর্যন্ত পানি। দুর্গতরা বাড়ি-ঘর ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যা-কবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি, শুকনা খাবারের তীব্র সঙ্কট বিরাজ করছে। ভুক্তভোগীদের মধ্যে লক্ষিটারী ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলি এলাকায় শুক্রবার যে খাবার বিতরণ করা হয়েছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই নগণ্য বলে জানিয়েছেন বানভাসী মানুষ।

এদিকে গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বন্যার্তরা। শনিবার দুপুরে বন্যাকবলিত লক্ষিটারী ইউনিয়নের বাগেরহাট-ইচলি এলাকার লিপি বেগম জানান, ‘আমার ১২টি গরু। তিনদিন আগে উঁচাতে এক বাড়িতে রাইখছিলাম। এখন ত্যামরা আর রাইখপার দেয় না। এ্যালা ফির পানিতে নিয়া আইনো। গরু গুলাক নিয়ে খুব সমস্যাস পইরচি।’

লক্ষিটারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল-হাদী জানান, আমার ইউনিয়নের পাঁচটি ওয়ার্ডের ইতোমধ্যেই ১০ হাজার বাড়ি-ঘর তলিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, শুক্রবার আমরা যতটুকু সহযোগিতা করেছি। তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই সামান্য।

কোলকোন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ জানান, তার ইউনিয়নের ছয়টি ওয়ার্ডের প্রায় ১২ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সেখানে বিশুদ্ধ পানি ও শুকনা খাবারের সঙ্কট বিরাজ করছে। কিন্ত এখন পর্যন্ত আমরা তাদেরকে কিছুই দিতে পারি না।

নোহালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ টিটুল জানান, ওই ইউনিয়নের ১৬ হাজার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তাদের খাবারের তীব্র সঙ্কট বিরাজ করছে।

মরনেয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান জানান, তার ইউনিয়নের প্রায় তিন হাজার মানুষ পাবিবন্দি হয়ে পড়েছে। তিনি এখন পর্যন্ত কাউকে কোনো খাদ্য সহায়তা দিতে পারেননি।

গজঘণ্টা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী জানান, প্রতিদিনই তার ইউনিয়নের চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলে পানি বাড়ছে। মানুষ পানিবন্দি হচ্ছে। বাদামের সব ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা এবং নদীপাড়ের মানুষের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যমতে, তিস্তায় পানি বাড়ায় নীলফামারীর ডিমলার ছাতনাই এলাকা থেকে জলঢাকা, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম হাতীবান্ধা, কালীগঞ্জ, আদিতমারী, সদর, রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছা, কুড়িগ্রামের রাজারহাট, উলিপুর, চিলমারী ও গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের হরিপুরের ব্রহ্মপুত্র নদ পর্যন্ত অববাহিকার ৩৫২ কিলোমিটার এলাকার চরাঞ্চল এবং নিম্নাঞ্চলে পানি উঠেছে। কোথাও কোথাও কোনো কোনো বাড়িতে কোমর অবধি পানি ঢুকেছে। এসব এলাকার উঠতি বাদাম, আমনের চারা, পাট, সবজিসহ বিভিন্ন ফসল ডু্বে গেছে। দুর্গত এলাকায় মানুষ খুবই বিপাকে পড়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোনো ত্রাণ-সহযোগিতা পৌঁছেনি।

Previous articleসেনাবাহিনীতে চাকরির প্রলোভন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতারণার শিকার যুবকের আত্মহত্যা, গ্রেফতার ১
Next articleবন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ দিয়েও কেন বন্যা ঠেকানো যাচ্ছে না?
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।