বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঝালকাঠি জেলার নলছিটিতে পঙ্কজ চন্দ্র শীল নামে এক নরসুন্দরকে হত্যার ঘটনায় পুলিশ তার স্ত্রী সোনালী শীলসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

রোববার গভীর রাতে উপজেলার বারইকরণ গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে তারা হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন। সোমবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেবেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত ১২ জুন রাতে জগন্নাথপুর গ্রামের পোনাবালিয়া বাজারের পাশের খাল থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় নরসুন্দর পঙ্কজ চন্দ্র শীলের (৩২) ভাসমান লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় পরের দিন পঙ্কজের বাবা নরেন্দ্রনাথ শীল অজ্ঞাত আসামি করে নলছিটি থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ধারণা করছিলো তাকে হত্যা করে লাশ খালে ফেলে দেয়া হয়। এরই সূত্র ধরে পুলিশ তদন্ত শুরু করে।

রোববার রাতে পুলিশ পঙ্কজ শীলের স্ত্রী সোনালীকে (৩২) বারইকরণ গ্রামে তার বাবার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত সোনালীর চাচাতো দুই ভাই বিশ্বজিত চন্দ্র শীল (২২) ও শুভ শীলকে (২০) গ্রেফতার করা হয়। থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে প্রাথমিকভাবে পুলিশের কাছে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা স্বীকার করেন তারা।

নিহত পঙ্কজ চন্দ্র শীল ঝালকাঠি শহরের ফায়ার সার্ভিস মোড়ে একটি সেলুনে কাজ করতেন। সে শহরের বাহের রোড এলাকার নরেন্দ্রনাথ শীলের ছেলে। তিনি বারইকরণ শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন। মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে স্ত্রীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সাথে তার সম্পর্ক ভালো ছিল না বলে জানায় পুলিশ।

নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আতাউর রহমান জানান, মাত্র সাত দিনের মাথায় পুলিশ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করা হয়েছে।

Previous articleমিরসরাইয়ে ঝরনায় নিহত যুবকের পরিচয় মিলেছে, এখনো নিখোঁজ ২ ভাই
Next articleপাঁচবিবিতে কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।