বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের নাপিত্তাছড়া ঝরনায় নিহত পর্যটকের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম মো: ইশতিয়াক (২০)। তিনি চট্টগ্রাম শহরের হালিশহর বি ব্লকের বাসিন্দা জনতা ব্যাংকের জিএম জাকারিয়ার ছেলে।

ইশতিয়াক ২০২১ সালে ইস্পাহানি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় পাস করেছেন।

ইশতিয়াকের সাথে থাকা অপর দুই ভাই মো: তৌফিক ও তারেক এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। তারা চট্টগ্রামের হালিশহর এলাকার বি ব্লকের বাসিন্দা সাহাব উদ্দিনের ছেলে। তাদের উদ্ধারে কাজ করছে মিরসরাই ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের একটি টিম।

জানা গেছে, রোববার (১৯ জুন) সকালে চট্টগ্রাম শহর থেকে তিন বন্ধু নাপিত্তাছড়া ঝরনায় ঘুরতে যান। যাওয়ার সময় তারা স্থানীয় খানসাবের হোটেলে দুপুরের ভাতের অর্ডার করে যান। দুপুরে তারা আর ফেরেননি। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে খবর আসে ঝরনা থেকে পড়ে ইশতিয়াক নামে এক যুবক মারা গেছেন। খবর পেয়ে মিরসরাই থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠিয়েছে। গতকাল থেকে ইশতিয়াকের সাথে ঝরনায় যাওয়া ওই দুই ভাই নিখোঁজ রয়েছেন।

মিরসরাই থানার ওসি কবির হোসেন জানান, নয়দুয়ারিয়া এলাকার নাপিত্তাছড়া ঝরনায় নিহত কলেজছাত্র ইশতিয়াকের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চমেকে পাঠানো হয়েছে। তবে এখনে পর্যন্ত তার সাথে যাওয়া অন্য দুজন নিখোঁজ রয়েছে। তারা কি নিখোঁজ না পালিয়ে গেছে বিষয়টি জানতে আমরা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি।

নাপিত্তাছড়া ঝরনার দায়িত্বে থাকা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান টিএসআর ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তা আয়েচ আহমেদ জানান, প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে আজ আমরাও টিকেট কাউন্টার বন্ধ রেখেছি। পর্যটকও খুব কম ছিল। এই তিনজন রোববার বেলা ১১টার দিকে ঝরনায় গেছে শুনেছি। বিকেলে খবর এলো তাদের একজন মারা গেছে।

মিরসরাই ফায়াস সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের স্টেশন কর্মকর্তা ইমাম হোসেন পাটোয়ারি বলেন, সোমবার সকাল থেকে নিখোঁজ দুই যুবককে উদ্ধারে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

Previous article‘ইরানের টর্পেডো মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে’
Next articleস্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রীসহ গ্রেফতার ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।