জয়নাল আবেদীন: রংপুর অঞ্চলে আষাঢের প্রথম সপ্তাহেই দেখা দেয় স্বস্তির বৃষ্টি। এই বৃষ্টির পর থেকে আমন ধানের বীজতলা তৈরীতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন এ অঞ্চলের কৃষক। সকালে হালের গরু, লাঙ্গল, যোয়াল নিয়ে বেড়িয়ে পড়ে জমি চাষের জন্য।

গরুর হাল ছাড়াও পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি প্রস্তুত করে নেন। কৃষকদের দম ফেলার ফুরসত নেই। চলতি আমন মৌসুমে এ অঞ্চলের ৫ জেলায় ৬ লাখ ১৫ হাজার ৬শ৮৫ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। কৃষি অফিস জানায়, বোরো ধান কাটা মাড়াইয়ের পরেই কৃষক আমনের ক্ষেত তৈরি এবং বীজতলা তৈরির কাজ শুরু করেন। এ পর্যন্ত এ অঞ্চলে ৮৮ ভাগ বীজতলা তৈরির কাজ হয়েছে।

আমন আবাদের উপযোগী সব জমিকে চাষের আওতায় আনতে জমির সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করে, কৃষি পণ্য উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষকদের নিয়মিত পরামর্শ, প্রশিক্ষণ ও কৃষি প্রণোদনা প্রদান করা হয়। কৃষকরা জানান, এক বিঘা জমিতে আমন ধান আবাদ করতে বীজতলা, চাষ, সার, কীটনাশক, কাটা-মাড়াইসহ সব মিলিয়ে ১৩ থেকে ১৪ হাজার টাকা খরচ হয়। রংপুরের তারাগঞ্জের কৃষক শাকিল , মনজুর আলী বলেন, আষাঢের প্রথম সপ্তাহ থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়। তাই আমরা আষাঢ়ের বৃষ্টির পানিতেই রোপা আমন ধান চাষের প্রস্তুতি নেই।

মিঠাপুকুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বুজরুক হরিপুর গ্রামের বর্গাচাষি মো: খয়বর হোসেন বুধবার ১বিঘা জমিতে বীজ তলা তৈরি করেছেন । তিনি জানান বৃষ্টির পানি না থাকায় সেচ ব্যবহার করে বিনা ১৭ জাতের ধানের বীজ তলা তৈরি করেছেন । অতিরিক্ত পরিচালকের কার্যালয় কৃকি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর সূত্রে জানা যায়, এ অঞ্চলের ৫ জেলায় ৬ লাখ ১৫ হাজার ৬শ৮৫ হেক্টর জমি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এর মধ্যে রংপুরে ১ লাখ ৬৬ হাজার ৬শ৩৫ হেক্টর, গাইবান্ধায় ১ লাখ ২৯ হাজার ৫শ০০ হেক্টর, কুড়িগ্রামে ১ লাখ ১৯ হাজার ৯শ৫০ হেক্টর, লালমনিরহাটে ৮৬ হাজার ৫শ০০ হেক্ট্র এবং নীলফামারীতে ১ লাখ ১৩ হাজার ১শ০০ হেক্টর। অতিরিক্ত পরিচালকের কার্যালয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুরের উপ পরিচালক মাহাবুব রহমান জানান, বীজতলার মাধ্যমে ধানের চারা উৎপাদন শেষের দিকে। কৃষকেরা ইতোমধ্যে মাঠের জমি তৈরি করেছেন।

কৃষকদের সুষম মাত্রার সার ব্যবহার, জৈব, অজৈব ও গুটি ইউরিয়া সার প্রয়োগ এবং পোকা দমনসহ বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ কৃষিবিদ ওবায়দুর রহমান মন্ডল জানান চলতি বছর রংপুর জেলায় খরিপ-২ মৌসুমে উফসী রোপা আমন ও গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ আবাদ ও উৎপাদন বৃদ্ধির নিমিত্ত প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় ৭ হাজার কৃসককে আনা হয়েছে । তিনি আর ও বলেন একজন কৃষককে উচ্চ ফলনশীল ৫ কেজি ধান ১০ কেজি ডিএপি ও এসপি সার দেয়া হয়েছে ।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫ লাখ টাকা করে অর্থ সহায়তা পেল একসঙ্গে বজ্রপাতে নিহতের ১৪ পরিবার
Next articleনোয়াখালীতে উদ্বোধনের একদিন পর বিআরটিসির বাস চলাচল বন্ধ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।