জয়নাল অঅবেদীন: রংপুরে শিল্প ও সংস্কৃতির বিকাশে বিশেষ অবদান রাখায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা পেয়েছেন ১০ গুণীজন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সংস্কৃতির বিকাশে শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা-২০২০ পেয়েছেন সংগঠক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ডা. মফিজুল ইসলাম মান্টু, নাট্যকলায় নাট্য ব্যক্তিত্ব বিপ্লব প্রসাদ, আবৃত্তি ও উপস্থাপনায় রেজিনা সাফরিন, কণ্ঠসংগীতে জিয়াউল হক লিপু, যন্ত্রসংগীতে সুবীরেশ দাশ গুপ্ত। এ ছাড়া শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা- ২০২১ পেয়েছেন লোকসংস্কৃতিতে ভাওয়াইয়া সংগঠক এ.কে.এম মোস্তাফিজুর রহমান, চারুকলায় জিয়াউল কবির, কণ্ঠসংগীতে রওশন আরা সোহেলী, নাট্যকলায় শীলা মনসুর ও যন্ত্রসংগীতে সোলায়মান।অনুষ্ঠানে গুণীজনদের উত্তরীয় পরিয়ে সম্মাননা জানানো ছাড়াও ১০ জনকে মেডেল ও সম্মাননা চেক প্রদান করেন অতিথিরা। পরে সম্মাননা প্রদান শেষে গুণীজনরা তাদের অনুভূতি প্রকাশ করেন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলার সেবক রংপুর জেলা প্রশাসক ও রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি আসিব আহসান। এ সময় তিনি বলেন, আমরা করোনার মধ্যে পিছিয়ে পড়লেও এবার তাদের সম্মাননা দিতে পেরেছি। গুণীজনদের সম্মান জানানো আমাদের দায়িত্ব। এটি নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা দেবে পথ দেখাবে। আমি রংপুর জেলায় দায়িত্ব পালনের সুযোগ পেয়ে গর্বিত। রংপুরের সাংস্কৃতিক আমেজ আছে। এখানকার মানুষ সাহিত্য-সংস্কৃতানুরাগী। দেশের সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে এখানকার মানুষের বিশেষ অবদান আছে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলার পুলিশ সুপার প্রকৌশলী ফেরদৌস আলী চৌধুরী, জাতীয় মহিলা সংস্থার রংপুরের চেয়ারম্যান রোজি রহমান। সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি ফিরুজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার নুঝাত তাবাসসুম রিমু।

Previous articleরংপুরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় খুন, ইভটিজার ছেলে এবং তাঁর বাবাকে ফাঁসির আদেশ
Next articleবাউফলে রথযাত্রা উৎসব পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।