আহম্মদ কবির: আহম্মদ কবির তাহিরপুর সুনামগঞ্জঃবন্যায় ঘরবাড়ি হারানো অসহায় অতি দরিদ্র পরিবার কে বিনামূল্যে সরকারি ঘর দেওয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে, সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আলী হায়দার এর ঘনিষ্ঠ অনুসারী জুসেক মিয়ার বিরুদ্ধে।

বন্যায় ঘরবাড়ি হারানো অসহায় অতি দরিদ্র ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলো একটু মাতা গোঁছার ঠাঁই পাবার আশায় অনেকেই শেষ সম্বল ধান-চাউল বিক্রি ও কড়া সুদে টাকা নিয়ে,দিতে হয়েছে চেয়ারম্যান এর অনুসারী জুসেক মিয়া কে।

তবে এ ব্যাপারে জুসেক মিয়া অস্বীকার করলেও,জয়পুর গ্রামের নুর আলম,গোলাবাড়ি গ্রামের খসরুল আলম সহ একাধিকজন বলেন জুসেক ভূল স্বীকার করছে আর এসব করবেনা স্থানীয় ভাবে বসে আমরা শেষ করবো, এ বিষয়ে নিউজ বা কাউকে জানানোর দরকার নেই।এবাদুল সহ যাদের কাছ হতে টাকা নিয়েছে টাকা ফেরত দিয়ে দিবে।

জানাযায় বন্যায় ঘরবাড়ি হারিয়ে দিশেহারা অসহায় অতি দরিদ্র পরিবারের জন্য প্রধানমন্ত্রী ত্রান ও কল্যাণ তহবিল হতে ঘর মেরামত ও সংস্কারের জন্য ১০ হাজার টাকা করে নগদ অর্থ সহায়তা করার সিদ্ধান্ত হয়,আর এই সহায়তার আওতায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় ৫০৮টি পরিবারের জন্য বরাদ্দ হয়েছে। কিন্তু বন্যায় ঘরবাড়ি হারানো অসহায় মানুষদের সরকার বিনামূল্যে ঘর প্রদান করবে এমন সংবাদ ছড়িয়ে দিয়ে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আলী হায়দার এর ঘনিষ্ঠ অনুসারীরা বন্যায় ঘরবাড়ি হারিয়ে দিশেহারা অসহায় অতি দরিদ্র মানুষদের কাছ হতে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন।

অভিযোগ উঠেছে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এর ঘনিষ্ঠ অনুসারী জুসেক মিয়া জয়পুর নতুন হাটির দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কামাল মিয়া ও আয়েশা বেগম এর কাছে ১৪হাজার টাকা করে দাবি করলে সে দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তার নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। কিন্তু একই গ্রামের এবাদুল মিয়ার কাছে ১৩হাজার টাকা দাবি করলে এবাদুল ধান বিক্রি করে ৪হাজার টাকা পরিশোধ করে বাকি টাকা দিবে বলে সম্মতি প্রকাশ করলে তার নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।এছাড়াও জয়পুর গ্রামের কবির মিয়ার ঘরবাড়ির কোন ক্ষয়ক্ষতি না হলেও অন্যের ঘরের সামনে এনে ছবি তুলে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের অর্থ সহায়তা হতে ১০হাজার টাকা দেওয়া হয়।এ নিয়ে স্থানীয়রা প্রতিবাদ করলে তাদের সাথে ইউপি চেয়ারম্যান আলী হায়দার বাকবিতন্ডায় লিপ্ত হয়।

এ ব্যাপারে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মোঃ সাজিনুর মিয়া জানান এ বিষয়ে আমি অনেকবার বাধা দিয়েছি কিন্তু চেয়ারম্যান সাহেব আমার কথা কর্ণপাত করেন নি,কবির মিয়াকে টাকা দেওয়ার সময় অনেকবার বলেছি কবির মিয়ার ঘর কই, কিন্তু তারা নুর উদ্দিন মিয়ার ঘরের সামনে এনে ছবি তুলে টাকা দিয়ে দিয়েছে।উনি আর বলেন এ ব্যাপারে অন্য কারো দুষ নেই আমরা যারা ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বার রয়েছি আমরা দায়ি।

এ ব্যাপারে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আলী হায়দার টানা নেওয়ার বিষয়ে স্বীকার করেন যখন বলা হল যে আপনার কথা বলে টাকা নিচ্ছে তখন উনি অস্বীকার করে বলেন জুসেক কেন টাকা নিয়েছে আমি জানিনা তাকে জিজ্ঞাস করুন। আর যাদের টাকা দেওয়া হয়েছে বা যাদের তালিকা করা হয়েছে সবকিছু প্রশাসনের লোকজন দেখে এসে করেছে। এ ব্যাপারে আমার কোন হস্তক্ষেপ নেই।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জায়মন জাহান বলেন তালিকায় আমি যাহা দেখেছি সবাই পাওয়ার উপযুক্ত এতে কোন অনিয়ম হয়নি।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির বলেন এ বিষয়টি আমি তদন্ত করে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

Previous articleফের চোখ রাঙাচ্ছে করোনা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী
Next articleসাম্প্রতিক পাঠ : রফিক সুলায়মান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।