শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রথম স্ত্রীকে শাররিক ও মানুষিক নিয়াতনের অভিযোগ উঠেছে। এমন ঘটনায় প্রথম স্ত্রী এক সন্তানের জননী আম্বিয়া খাতুন (৪১) স্বামী ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

ওই মামলায় হাজিরা দিতে তিনি গত দুইদিন ধরে ছুটিতে আছেন। তবে বৃহস্পতিবার বিকেলে ওসি সাইদুর রহমানকে থানার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে বলে জানান জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার মাছুম আহম্মদ ভূঞা। অভিযুক্ত পুলিশ পরিদর্শক ছাইদুর রহমান সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলার মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়নের দিঘী সগুনা গ্রামের মৃত কোরবান আলীর ছেলে। তিনি বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত জয়পুরহাটের আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা গেছে, তাড়াশ পৌর সদরের বাসিন্দা আবুল হোসেনের মেয়ে আম্বিয়া খাতুনের বিয়ে হয় ১৯৯৭ সালে একই উপজেলার দিঘী সগুনা গ্রামের মৃত কোরবান আলীর ছেলে ছাইদুর রহমানের সাথে। বর্তমানে তাদের সংসারে কলেজ পড়–য়া একজন কন্যা সন্তানও আছে। ২০১৩ সালে সাইদুর রহমান রাজশাহী জেলার পুঠিয়া থানায় উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে কর্মরত থাকা কালে প্রথম স্ত্রী আম্বিয়া খাতুনের বিনা অনুমোতিতে গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিয়ের বিষয়টি জানাজানির পর প্রথম স্ত্রী আম্বিয়ার সাথে সাইদুর রহমানের ঝগড়া-বিবাদের সুত্রপাত শুরু হয়। এরপর প্রথম স্ত্রী আম্বিয়া খাতুনের উপর নেমে আসে নানা ধরনের নির্যাতন। সেই থেকে স্ত্রী ও তার সন্তানের মাসে সামান্য খরচ দিয়ে আলাদা রেখে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে প্রায় আট বছর ধরে চাকুরির সুবাদে বিভিন্ন স্থানে বসবাস করছেন সাইদুর রহমান। মাঝে মধ্যে তিনি তাড়াশের বাসায় এসে প্রথম স্ত্রী আম্বিয়াকে শাররীক নির্যাতন করে চলে যান। ফলে পুলিশ স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে আম্বিয়া খাতুন বাদী হয়ে ২০১৯ সালের ১২ জুন স্বামী ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলা দায়ের করেন। সে সময় সাইদুর রহমান আইনী ঝামেলা এড়াতে শান্তিপূর্ণ ঘর সংসার করার শর্তে রাজী হয়ে আপোষ মিমাংসা করে নেন। এতে মামলার বাদী আম্বিয়া খাতুন সরল বিশ্বাসে মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন।

কিন্তু মামলা প্রত্যাহারের পরপরই আম্বিয়া খাতুনের উপর আবারও শুরু হয় পাশবিক নির্যাতন। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে তিনি আবারও ২০২১ সালের ৮ জানুয়ারি সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতে আরেকটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলাতেও সাইদুর রহমান ও তার স্বজনদের আসামী করা হয়। বিজ্ঞ আদালতের বিচারক গত ৯ জানুয়ারি আসামী ছাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। এরপরও তিনি জামিন না নিয়েই দীর্ঘ ছয় মাস ধরে পুলিশি ক্ষমতায় বহালতবীয়তে থেকে আক্কেলপুর থানার দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বিষয়টি জানাজানি হলে তিনি দুইদিনের ছুটি নিয়ে গত ৬ জুলাই বিজ্ঞ আদালত থেকে জামিন নেন। এরপর তিনি থানায় না এসে বরং মামলার বাদী আম্বিয়া খাতুনকে তার বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিতে এবং বিষয়টি মিমাংশার জন্য চাপ দিয়ে যাচ্ছেন।

জয়পুরহাটের পুলিশ মাসুম আহম্মদ ভূঞা বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমানকে থানার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে তাকে জয়পুরহাট পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

মুঠোফোনে মামলার আসামি ও আক্কেলপুর থানা থেকে প্রত্যাহার হওয়া পুলিশ পরিদর্শক ছাইদুর রহমান বলেন, বিষয়টি পারিবারিক। মীমাংসার চেষ্টা চলছে। তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল ইসলাম বলেন, আমি সদ্য যোগদান করেছি। ঘটনাটি জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleজাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
Next articleমালয়েশিয়ান স্ত্রীকে নিয়ে হেলিকপ্টারে বাড়ি ফিরলেন প্রবাসী ব্যবসায়ী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।