ফজলুর রহমান: মাল্টা চাষের দিকে ঝুঁকছে রংপুরের পীরগাছায় উপজেলার ৯ ইউনিয়নের অনেক চাষী। উপজেলার অন্নদানগর ইউনিয়নের গোবড়া পাড়া গ্রামের বেকার যুবক রেজোয়ান করিম মাল্টা চাষ করে লাভবান হওয়ায় তার দেখাদেখি অনেকে মাল্টা চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছে।

রেজোয়ান করিম চার বছর আগে ৩০ শতক জমিতে বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষ শুরু করেন। বর্তমানে প্রতিটি গাছে অসংখ্য মাল্টা ধরেছে। মাল্টা চাষী রেজোয়ানকে সার্বক্ষণিকভাবে সহযোগিতা করছে উপজেলা কৃষি অফিস।

উপজেলার গোবড়া পাড়া গ্রামের ফয়জার রহমানের ছেলে রেজোয়ান করিম ছিলেন এলাকার বেকার যুবক। পৈত্রিক জমিতে একাধিকবার বিভিন্ন ধরনের ফসল উৎপাদন করলেও লাভের মুখ দেখেননি। ইতিপূর্বে ধান, পাট, গম ও ভুট্টাসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ করেছেন রেজোয়ান করিম। কিন্তু লোকসানের কারণে সফল হতে পারেননি।

উপজেলা কৃষি অফিস ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের রাজস্ব খাতের টাকা দিয়ে রেজোয়ানকে ৫০টি মাল্টার চারা ক্রয় করে দেয় । একই সাথে রেজোয়ান নিজ অর্থ দিয়ে আরো ৫০টি চারা ক্রয় করে জমিতে লাগায়। বর্তমানে তার মাল্টা বাগানের প্রতিটি গাছে প্রচুর মাল্টা ধরেছে। চারা রোপণের পর থেকে নিয়মিত পরিচর্যা করায় ২ বছরের মাথায় প্রতিটি গাছে ৪০ থেকে ৫০ পিস মাল্টা ধরেছে। তার ক্ষেতের মাল্টা বেশ সুস্বাদু। প্রতি কেজি মাল্টা ১‘শ থেকে ১‘শ ২০ টাকা দরে বিক্রি হবে বলে তিনি আশা করছেন। তার বাগানে শুধু মাল্টা রয়েছে।

অন্নদানগর ইউনিয়নের গোবড়াপাড়া গ্রামের মাল্টা চাষী রেজোয়ান করিম বলেন, আমি দীর্ঘদিন বেকার ছিলাম। উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ১ বিঘা জমিতে বারি-১ জাতের মাল্টা চাষ করেছি। বর্তমানে প্রতিটি গাছে প্রচুর মাল্টা ধরেছে। আশা করছি মাল্টা বিক্রি করে লাভের মুখ দেখবো। বারি-১ জাতের মাল্টা সুস্বাদু হওয়ায় এর চাহিদাও রয়েছে বাজারে।

এ ব্যাপারে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আহসানুল হক বলেন, এ দেশের আবহাওয়ায় বারি-১ জাতের মাল্টা খুবই উপযোগী। খেতেও খুব সুস্বাদু। এ জাতের মাল্টা আবাদে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। যদি কোন কৃষক ১ বিঘা জমিতে মাল্টার চাষ করে তবে সমস্ত খরচ বাদ দিয়ে তার ১ লাখ টাকা লাভ হবে। দিন দিন কৃষকরা এ চাষাবাদে ঝুঁকছে। পীরগাছা উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা আশরাফুজ্জামান বলেন, উপজেলা কৃষি বিভাগ প্রতিটি মাল্টা বাগান পরিদর্শন করেন থাকেন। তারই অংশ হিসেবে মাল্টা বাগান পরিদর্শন করে ফলন ভালো করতে মাল্টা চাষীদের বিভিন্ন ধরণের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১০/১২ টি মাল্টা প্রদর্শশনী দেয়া হয়েছে। এছাড়া অনেক চাষী তারা নিজ উদ্দ্যেগে মাল্টা বাগান করেছেন। আমরা তাদেরকেও পরামর্ম প্রদান করছি।

পীরগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম বলেন, উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে বেকার যুবকদের মাল্টা চাষের দিকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে । এজন্য কৃষি বিভাগ থেকে চারাসহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

Previous articleরংপুরে সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সংবাদ সম্মেলন
Next articleরংপুরে ইউনিয়ন পরিষদের পরিকল্পনা উন্নয়ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।