বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কলাপাড়ায় জন্মের ঠিক ১২দিন পরে মাকে হারায় আবদুল্লাহ। জীবদ্দশায় মা দারুনভাবে অসুস্থ থাকায় গর্ভধারীনিকে হাসাপাতালের শয্যায় কাছে পেয়েও মাতৃত্বের সুধা পান করতে পারিনি শিশুটি। শুধু তাই নয় মায়ের মৃত্যুর পর সুন্দর দেখতে ফুটফুটে আবদুল্লাহর ভাগ্যে তাচ্ছিল্য ছাড়া যত্নে বেড়ে উঠার সৌভাগ্য মেলেনি।

দরিদ্র পরিবারের ভ্যান চালক বাবা তার স্ত্রীকে হারিয়ে যখন কিংকর্তব্যবিমূঢ়, তখন মুখে তুলে খাওয়ানোর মত পাশে ছিল না তেমন কেউ। আর মমতায় আগলে রাখা একমাত্র বোনটিও বিয়ের পর অন্যত্র চলে গিয়েছেন স্বামীর ঘরে। ফলে অযত্ন-অবহেলায় বেড়ে ওঠা তিন বছরের আবদুল্লাহ আজ রোগাক্রান্ত হয়ে দিন রাত পরে থাকছে বিছানায়।

টিয়াখালী ইউপির নাচনাপাড়া বঙ্গবন্ধু কলোনির বাসীন্দা আবদুল রউব। তিনি পেশায় একজন ভ্যান চালক। এক স্ত্রী তাছলিমা ও একমাত্র কণ্যা জান্নাতুলকে নিয়ে সুখেই দিন পার করছিলেন তিনি। কিন্তু হঠাৎই তার স্ত্রী দ্বিতীয় সন্তান গর্ভধারণের পর হৃদরোগে আক্রান্ত হন তার ভালোবাসার মানুষটি। এর পরেই সুখের সংসারে নেমে আসে দুঃখ দুর্দশার খড়গ। আর আবদুল্লাহকে গর্ভে রেখেই হাসপাতালে শয়্যাসায়ী হন তিনি। দীর্ঘ প্রায় ৭ মাস মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আবদুল্লাহ’র জন্মের ১২ দিন পর চির নিদ্রায় শায়িত হন নবজাতকের মা জননী।

আবদুল রউবের ভাষ্যমতে, তার স্ত্রীর মৃত্যুর পর নতুন করে তার পুত্র সন্তানকে নিয়ে দুঃসংবাদ দেন বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের চিকিৎসক। তিনি জানান, চিকিৎসক নবজাতক আবদুল্লাহও কঠিন রোগে আক্রান্তের কথা জানালে ওই হাসপাতালেই দীর্ঘদিন চলে তার চিকিৎসা। পরে সর্বস্ব বিক্রি করেও চিকিৎসা ব্যয়বহন করতে না পেরে বাধ্য হয়ে ফিরে আসেন কলোনির ঝুপড়ি ঘরে। এর পরে শিশুটি বেড়ে উঠলেও তিন বছর বয়সেও দাঁড়ানো তো দুরের কথা ঘুরেও শুতে পারছেনা তার একমাত্র পুত্র সন্তানটি। তিনি আরো জানান, দিনভর কঠোর পরিশ্রম শেষে ঘরে ফিরে তরল খাবার তৈরি করে খাওয়াতে হয় শিশু সন্তানকে। এমনকি অধিকাংশ সময় পুত্রকে কোলে রেখেই কাটাতে তাকে। তবে বর্তমানে আবদুল্লাহ’র শ্বাসকষ্টসহ নানান উপসর্গ থাকলেও অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি।

কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.চিনময় হালদার জানান, শিশুটি জন্মগত ভাবেই রোগাক্রান্ত। তবে তাকে দেশে অথবা বিদেশে উন্নত চিকিৎসা দেয়া হলে স্বাভাবিক সুস্থতা ফিরে পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। কলাপাড়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অলিউল ইসলাম জানান, আমাদের সমাজসেবা পরিষদ থেকে যতটুকু সম্ভব চেষ্টা করা হবে। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে ভুক্তভোগী পরিবারকে লিখিতভাবে আর্থিক সহযোগীতা চেয়ে আবেদন দেয়ার কথা জানান তিনি।

Previous articleজবিতে অন্যের ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে গ্রেফতার ঢাবি শিক্ষার্থী
Next articleএশিয়া কাপের জন্য ১৭ সদস্যের দল ঘোষণা, ফিরলেন সাব্বির
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।