ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: একটি শান্তিপূর্ণ দেশে অরাজকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিএনপি-জামায়াতের প্রত্যক্ষ মদদে সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলা করা হয়েছিল। দেশকে অশান্ত করতে ও বর্হিবিশ্বে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে উপস্থাপন করতেই ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট এই সিরিজ বোমা হামলা করা হয়। সেদিন সন্ত্রাসীদের এই কর্মকান্ডে ৬৩ জেলার প্রায় জায়গায় বোমা হামলা করা হয়। এতে সারাদেশে দুইজনের প্রাণহানি হয়। এছাড়াও সারাদেশে হাজার হাজার মানুষ এখনও এর ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন। জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বুধবার (১৭ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নবাবগঞ্জ ক্লাব (টাউন ক্লাব) চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চের সামনে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বিএনপি-জামায়াত সরকার সবসময়ই দেশে অরাজকতা করতে চেয়েছে। দেশকে হুমকির মুখে ঠেলে দিতেই এমন হামলার নীল নকশা করা হয়েছিল৷ সিরিজ বোমা হামলার মাস্টার মাইন্ড ছিল তারেক রহমান। ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিএনপি সন্ত্রাসবাদের আদর্শ ধারন করে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্টের স্মৃতিচারণ করে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব রুহুল আমিন বলেন, হামলার দিন ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল চাঁপাইনবাবগঞ্জে। এই জেলাতেও একজনের মৃত্যু হয়েছিল বোমা হামলার কারনে। সেদিন কিছু বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে বসে ছিলাম। তার কয়েকশ মিটার পাশেই জেলা শহরের বিশ্বরোড মোড়ে বোমা হামলা হয়েছিল। হামলার পর সকলেই ভীত ও দিশাহীন হয়ে পড়েছিল।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ বলেন, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই দেশের বিরুদ্ধে নানারকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট বেলা ১১টায় দেশের ৬৩ জেলার প্রায় ৫০০টি স্থানে বোমা হামলায় একযোগে কম্পিত হয়ে উঠে দেশ। ভয়ঙ্কর এ হামলায় জনমনে সৃষ্টি হয়েছিল আতঙ্ক। হামলার পর আতঙ্কে লোকজন ঘর থেকে বাইরে বেরোতেও ভয় পেত। দেশে তৎকালীন সময়ে এটিই ছিল সব থেকে বড় জঙ্গি হামলা।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. গোলাম রাব্বানী, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যাপক শরিফুল আলম, পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ রোকনুজ্জামান, সাবেক ছাত্রনেতা জিয়াউর রহমান আরমান, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আরিফুর রেজা ইমন, কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোসফিকুর রহমান টিটো, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাহিদ শিকদারসহ অন্যান্যরা। এসময় আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Previous articleজ্বালানির দাম বাড়িয়ে অর্থনীতির কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেয়া হয়েছে: মির্জা ফখরুল
Next articleখালেদা জিয়ার জামিন হলে দেশ ৩ মাসে পরিবর্তন হবে: ডা. জাফরুল্লাহ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।