বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে ভুমিদস্যুদের ভয়ে এক পঙ্গু শিক্ষক পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বরিশাল জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েও বাড়ি যেতে পারছেন ওই পঙ্গু শিক্ষক। শিক্ষক মোহাম্মদ আলী উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের মৃত আব্দুল ওয়াজেদ আলী চৌকিদারের ছেলে।

প্রভাবশালীদের ভয়ে দীর্ঘ দিন ধরে এলাকায় যেতে পারছেন না। মোহাম্মদ আলী বানারীপাড়া উপজেলার চাখার চাউলাকাঠী ইসলামিয়া ফাযিল মাদ্রাসার শিক্ষকতা করেন। ৫/৬ বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় বাম পা হারিয়েছেন। জমি দখলকারীরা তাকে হত্যার হুমকি দেওয়ায় তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন। নিজের জমি ফিরে পেতে এবং নিরাপত্তা চেয়ে মোহাম্মদ আলী ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে বরিশাল জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছেন। ওই আবেদনের প্রায় ১ বছর হলেও মোহাম্মদ আলী কোনে প্রতিকার পাননি বলে জানিয়েছেন।

মোহাম্মদ আলী জানান, মুলাদী সদর ইউনিয়নের দড়িচর লক্ষ্মীপুর মৌজায় তাঁর প্রায় ১ একর ৯০ শতাংশ জমি রয়েছে। এর মধ্যে মাত্র ৪০ শতাংশ জমিতে বাড়ি-ঘর নির্মাণ করেছেন। বাকী জমি একই এলাকার মৃত খোরশেদ আলমের ছেলে ফজলুল হক রিপন, আঃ রশিদ চৌকিদােেরর ছেলে হোচেন চৌকিদার ও মোফাজ্জেল চৌকিদার ও তাদের লোকজন দখল করে নিয়েছেন। বাড়ির মধ্যে ৪০ শতাংশ জমি থেকেও দখলকারীরা গাছপালা কেটে নিয়েছে। ২০১৯ সালে জমি ফিরে পেতে আদালতে মামলা করলে দখলকারীরা ক্ষিপ্ত হয় এবং মোহাম্মদ আলী ও তার স্ত্রীকে মারধর করে এলাকা ছাড়া করেন। এর পর থেকে মোহাম্মদ আলী এলাকায় যেতে পারছেন না।

মোহাম্মদ আলী আরও বলেন, জমির দখল পেতে আদালতে মামলা করার পর থেকে আমাকে গালিগালাজ করা হতো। আমার বাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও বাড়ির সামনে ময়লা নোংরা করা হতো। অত্যাচারে অতিষ্ট এবং জীবনের ভয়ে এখন বাড়ি-ঘরে যেতে পারছি না। নিরাপত্তা চেয়ে ২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর বরিশাল জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছিলাম। জেলা প্রশাসক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা গ্রহণের নিদের্শনা দিয়েছিলেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে বলেছিলেন। দীর্ঘ দিনেও থানা পুলিশ কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় আমি জমি ফিরে পাইনি কিংবা বাড়ি-ঘরে যেতে পারিনি। এছাড়া গত ২২ জুলাই মুলাদী থানায় নতুন করে একটি অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু রহস্যজনক কারণে পুলিশ আমার অভিযোগ গ্রহণ করেনি।

এব্যাপারে দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ফজলুল হক রিপন জমি দখল ও পঙ্গু শিক্ষককে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমাদের পূর্বপুরুষরা ৭৯ বছর আগে মোহাম্মদ আলীর ওয়ারিশদের কাছ থেকে জমি ক্রয় করে ভোগদখল করছি। ওই জমি নিয়ে হাইকোর্টে মামলা চলমান রয়েছে। মামলায় মোহাম্মদ আলী জমি পেলে আমরা দখল ছেড়ে দেব। মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস.এম মাকসুদুর রহমান বলেন, মোহাম্মদ আলীর অভিযোগের বিষয়টি আমার জানা নাই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleবঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
Next articleবিএনপির অনেক নেতা আওয়ামী লীগে যোগ দিতে আসেন: ওবায়দুল কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।