বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কলাপাড়ায় খাদ্যশস্য সংগ্রহ নীতিমালা ২০১৭ এবং চাল সংগ্রহ ও নিয়ন্ত্রণ আদেশ ২০০৮ এর নিয়ম পরিপন্থী উপায়ে ধান-চাল সংগ্রহে ঘুষ, দুর্নীতি-ানিয়ম ও উৎকোচ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে। নির্বাচিত কৃষক তালিকায় রয়েছে ঠিকাদার, ব্যবসায়ী ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের নাম।

তালিকাভুক্ত একাধিক কৃষক তালিকায় নাম থাকার তথ্য জানেন না বলে জানিয়েছেন। এতে প্রকৃত কৃষক লাভবান হতে পারেনি, লাভবান হয়েছে অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট একটি মধ্যস্বত্ত্বভোগী চক্র। একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্রের তথ্যমতে, মোটা অংকের উৎকোচে কাঁচা-পাকা ধান সহ ট্রলার ডুবির ধান ছাঁটাই করে তৈরী নি¤œমানের চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। নি¤œ মানের এসব চাল গুদাম থেকে সরকারী বরাদ্দের অনুকূলে ইতিমধ্যেই সরবরাহ করা হয়েছে। চুক্তি বদ্ধ চাল কল বন্ধ থাকলেও এর নামে কম মূল্যে নি¤œমানের চাল কিনে সংগ্রহ করছেন গুদাম কর্তৃপক্ষ। এরপর বিল করে মিল মালিকের পরিবর্তে নিজেদের ব্যাংক হিসাবে জমা দিয়ে উত্তোলন করে নিচ্ছেন। এরফলে কলাপাড়ার ধান, চাল সংগ্রহ কমিটির দায়িত্ব পালন নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

খাদ্য অধিদপ্তর সূত্র থেকে জানা যায়, অভ্যন্তরীন বোরো সংগ্রহ ২০২২ মৌসুমে কলাপাড়ায় ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৮৬ মেট্রিক টন। অনলাইনে আবেদনের পর লটারির মাধ্যমে কৃষি বিভাগ ও অধিদপ্তর ১২৮ কৃষকের তালিকা নির্বাচন করে, যা ৬ সদস্যের সংগ্রহ কমিটির প্রধান ইউএনও’র আইডি থেকে অনুমোদন হয়ে অধিদপ্তরে প্রেরন করা হয়। প্রতি কেজি ধানের মূল্য নির্ধারন করা হয় ২৭ টাকা। এছাড়া অধিদপ্তরের ১৬ মে ২০২২ তারিখের ১৭৮০(১৩) স্মারকে বীচ অটো রাইস ইন্ডাষ্ট্রিজ লি:’র অনুকূলে ৭৮১ মে.টন এবং ১৮০১ (১৩) স্মারকে মেসার্স খেপুপাড়া অটো রাইস মিল’র অনুকূলে ৩৮৬.২২০ মে.টন চালের বরাদ্দ প্রদান করা হয়। প্রতি কেজি সিদ্ধ চালের মূল্য নির্ধারন করা হয় ৪০ টাকা। ধান সংগ্রহের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শতকরা ১৪ ভাগ আদ্রতা, ০.৫ ভাগ বিজাতীয় পদার্থ, ৮ ভাগ ভিন্ন জাতের ধানের মিশ্রন, ২ ভাগ অপুষ্ট ও বিনষ্ট দানা এবং শতকরা ০.৫ আগ চিটা এর বিনির্দেশ রয়েছে। এছাড়া সিদ্ধ চাল সংগ্রহের ক্ষেত্রে শতকরা ১৪ ভাগ আদ্রতা, ৬ ভাগ বড় ভাঙ্গা দানা, ২ ভাগ ছোট ভাঙ্গা দানা, ৮ ভাগ ভিন্ন জাতের মিশ্রন, ০.৫ আগ বিনষ্ট দানা, বিবর্ন দানা ০.৫ ভাগ, ধান প্রতি কেজিতে ১টি, বিজাতীয় পদার্থ ০.৩ ভাগ, অর্ধসিদ্ধ দানা শতকরা ১ ভাগ এবং ছাঁটাই উত্তম হওয়ার বিনির্দেশ রয়েছে।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ডিজিটাল পদ্ধতিতে তৈরী তালিকার চম্পাপুর ইউনিয়নের কৃষক মিকুন সিমলাই তালিকায় তার নাম থাকার তথ্য জানেন না, তিনি ক্ষেত থেকে স্থানীয় ফড়িয়াদের কাছে ধান বিক্রী করেছেন। বালিয়াতলী ইউনিয়নের গৃহবধূ হেনা তালিকার বিষয়ে কিছুই জানেন না অথচ নির্বাচিত কৃষক তালিকায় তার নাম রয়েছে। ধানখালী ইউনিয়নের শামসুদ্দিন তদ্বির করে কৃষক তালিকায় নাম অন্তর্ভূক্ত করার কথা বলেছেন। ধূলাসার ইউনিয়নের কবির সিকদার চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তালিকায় নাম উঠিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। চাল সংগ্রহে প্রতি কেজি ১ নম্বর চাল ১.৫০ টাকা, মধ্যম মানের চাল ২ টাকা এবং নি¤œ মানের লাল চাল ৩.৫০ টাকা উৎকোচ নিচ্ছে খাদ্য অধিদপ্তর। চুক্তিবদ্ধ মেসার্স খেপুপাড়া অটো রাইস মিল দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকলেও বরাদ্দকৃত সমুদয় চাল সংগ্রহ দেখানো হয়েছে। যা টিআর, কাবিখা, ভিজিডি, ভিজিএফ, ওএমএস সহ অন্যান্য বরাদ্দের চাল অর্ধেক মূল্যে ক্রয় করে মিলারের অনুকূলে এডজাষ্ট করা হয়েছে। জনপ্রতিনিধিরা সরকারী বরাদ্দের কিছু চাল গুদামে বিক্রী করেছেন পরিবহন খরচ বহনে। পরে চুক্তিবদ্ধ চাল কলের নামে বিল করে মিল মালিককে কিছু টাকা দিয়ে সমুদয় টাকা পকেটস্থ করেছেন গুদাম পরিদর্শক ও সহকারী উপ-খাদ্য পরিদর্শক। এছাড়া মোটা অংকের উৎকোচে চুক্তিবদ্ধ অপর চাল কল বীচ অটো রাইস ইন্ডাষ্ট্রিজ লি:’র কাঁচা-পাকা ধান সহ ট্রলার ডুবির ধান ছাঁটাই করা নি¤œ মানের চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। খাদ্য গুদামের উপ-খাদ্য পরিদর্শকের সোনালী ব্যাংক কলাপাড়া বন্দর শাখা এবং মার্কেন্টাইল ব্যাংক, কলাপাড়া শাখা’র ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে উৎকোচের টাকা জমা করা হয়েছে।

কলাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এম আর সাইফুল্লাহ বলেন, অনলাইনে আবেদনের পর অধিদপ্তর ও খাদ্য সংগ্রহ কমিটির সমন্বয়ে তালিকা যাচাই করে কৃষক তালিকা নির্বাচন করা হয়েছে। প্রকৃত কৃষক ছাড়া কারও নাম নেই তালিকায়।

কলাপাড়া উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো: নুরুল্লাহ বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তিতে এনআইডি ও মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে তালিকা করা হয়েছে। এখানে অনিয়মের সুযোগ নেই।

সহকারী উপ খাদ্য গুদাম পরিদর্শক মো: মেহেদী হাসান উৎকোচ গ্রহনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বীচ অটোর মালিকের কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা ধার নিয়েছিলাম, যা পরবর্তীতে পরিশোধ করে দিয়েছি।

খাদ্য গুদাম পরিদর্শক মো: ফারুক হোসেন বিপ্লব বলেন, খাদ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী ধান, চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। এখানে দুর্নীতি, অনিয়মের প্রশ্নই আসেনা।

পটুয়াখালী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো: লিয়াকত হোসেন বলেন, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০৫৮ মে.টন, সংগ্রহ হয়েছে ১৪১৩ মে.টন। চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৯১০ মে.টন, সংগ্রহ হয়েছে ৬১০০ মে.টন। তিনি আরো বলেন, কলাপাড়ায় চুক্তিবদ্ধ বীচ অটোর ২০০ মে.টন চাল এখনও সংগ্রহ হয়নি, ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত সময় আছে। তবে কলাপাড়া এলএসডির অনিয়ম সংক্রান্ত কোন তথ্য আমার জানা নেই।

Previous article১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্টের শহীদদের স্মরণে চাঁপাইনবাবগঞ্জে আ’লীগের উদ্যোগে শোক সমাবেশ
Next articleকলাপাড়ার বিভিন্ন স্থাপনায় বসানো হলো সিসি ক্যামেরা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।