জয়নাল আবেদীন: রংপুরের গঙ্গাচড়ায় নানাকে হত্যা করার দৃশ্য দেখে ফেলায় কাল হয়ে দাড়ায় ১২ বছরের শিশু মোনালিসার। তাকেও হত্যা করার জন্য আসামীরা একাধিকবার চেস্টাও চালিয়ে ব্যার্থ হয়ে অতপর নানা কৌশল অবলম্বন করে অবশেষে শিশু মোনালিসাকেও হত্যা করে ।

সোমবার দুপুরে নগরীর কেরানীপাড়ায় সংবাদ সম্মেলনে রংপুর সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার আতাউর রহমান এসব কথা বলেন । তিনি সাংবাদিকদের জানান আধিপত্য বিচস্তারকে কেন্দ্র করে ২০২১ সালের ৬ এপ্রিল রংপুরের গংগাচড়া উপজেলার নোহালী ইউনিয়নের আনন্দ বাজার এলাকায় সাবেক ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আজিজুল ইসলাকে হত্যা করে। হত্যাকান্ডটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য সাইফুল তার চাচাতো ভাই রেয়াজুল ইসলামকেও হত্যা করে। এদিকে রেয়াজুল ইসলামকে হত্যার দৃশ্য দেখে ফেলে তার ১২ বছরের নাতনি মোনালিসা। নানাকে হত্যার কথা তার নানিকে জানালে আসামীরা মোনালিসাকে হত্যার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে।

মেয়ের জীবন বাঁচাতে দুই মাস আত্মগোপনে থাকে মা ও মেয়ে। এর পর আসামীরা উপ-বিত্তি দেওয়ার কথা ৬ জুন কৌশলে মা মেয়েকে ডেকে নিয়ে আসে। কয়েক দিন চেষ্টার পর আসামীরা ৯ জুন শিশু মোনালিসাকে শ্বাস রোধ করে হত্যার পর তার লাশ ঘরের মধ্যে ঝুলিয়ে রাখে।

আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় থানায় মামলা করতে সাহস পায়নি শিশুটির পরিবার। এ ঘটনায় সিআইডি চলতি বছরের ৪ আগষ্ট গংগাচড়া থানায় একটি মামলা করে এবং হত্যাকান্ডের ১৫ মাস এর পর সিআইডি গংগাচড়া উপজেলার চড় বাগডহড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মোতাহারা বেগম ও ময়না বেগমকে গ্রেফতার করে হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন করে।

Previous articleরংপুরে অটো চালককে গলাকেটে হত্যা ও অটোরিক্সা ছিনতাই, প্রধান আসামীসহ গ্রেফতার ২
Next articleশাহজাদপুরে রবীন্দ্র-নজরুল প্রয়ান দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।