জয়নাল আবেদীন: রংপুর সিটি কর্পোরেশনের দৃষ্টি নন্দন প্রধান ফটকের উদ্ধোধন করা হয়েছে । গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব মোঃ মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা দৃষ্টি নন্দন এই গেটটির ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে নবনির্মিত ফটকের প্রবেশদ্বার উন্মুক্ত করে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন মিঞা, সচিব উম্মে ফাতিমা,প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায়, তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী আবু তালেব সরকার, নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আজম আলী, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদ হাসান মৃধা, প্যানেল মেয়র সামসুল হক, ফরিদা কালাম, ডরিক ডেভেলপারস লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ তাইফুল ইসলাম, পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার জাহিদ বিন হোসেন ও লজিষ্টিক ম্যানেজার মোঃ হুমায়ুন কবীর সেলিম , জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব হাজী আব্দুর রাজ্জাক, রসিকের কাউন্সিলর মাহাবুবার রহমান মঞ্জু, হারাধন রায়, নজরুল ইসলাম দেওয়ানী, আবুল কালাম আজাদ, হাসনা বানু, ফেরদৌসি বেগম,সিটি প্রশাসনিক কর্মকর্তা নাঈম আহমেদ সহ রংপুর সিটি কর্পোরেশনের সকল কাউন্সিলর, অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।

এদিকে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে মেয়র মোস্তফা সাংবাদিকদের বলেছেন রংপুর মহানগরীতে প্রবেশের মূল সড়কে চারটি দৃষ্টিনন্দন ফটক নির্মাণ করা হবে আর এসব ফটকে রংপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরে দর্শনার্থীসহ আগতদের স্বাগত জানানো হবে। ইতোমধ্যে এসব ফটক নির্মাণের প্রাথমিক নকশা তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে । চারটি ফটকে থাকবে আধুনিক স্থাপত্যের ছোঁয়া। এগুলো দৃষ্টিনন্দন হবে এবং বাংলাদেশের অন্য এলাকার মানুষদের নজর কাড়বে। মেয়র মোস্তাফিজার রহমান বলেন, রংপুর পৌরসভা বিলুপ্ত হলেও কিন্তু আমরা আগের পুরাতন ফটকটি এতদিন ব্যবহার করেছি। সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার দশ বছর পর বর্তমান পর্ষদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় পুরাতন ফটক ভেঙে জরুরি ভিত্তিতে দৃষ্টিনন্দন ও আধুনিক একটি নির্মাণ করা হয়েছে। এটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৪০ লাখ টাকা ।

রংপুরে প্রবেশপথ রংপুর-ঢাকা, রংপুর-কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট, রংপুর-বদরগঞ্জ ও রংপুর-দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়কের মহানগরের অংশে চারটি ফটক নির্মাণ করা হবে। এসব ফটকে ভাওয়াইয়ার প্রতিচ্ছবিসহ গরুর গাড়ি, হাড়িভাঙ্গা আম, দর্শনীয় স্থাপনা ও ঐতিহ্য তুলে ধরা হবে। এসম মেয়র আরো বলেন, রংপুরকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়তে হলে অবৈধ স্থাপনা ও দখলদারদের উচ্ছেদের বিকল্প নেই। কিন্তু এখন সিটির নির্বাচন ঘনিয়ে এসেছে। এ কারণে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হচ্ছে না। তবে আজ হোক আর কাল হোক অবৈধ স্থাপনা থাকতে দেওয়া হবে না। আমি সবার সহযোগিতা ও পরামর্শে রংপুরকে একটি পরিকল্পিত আধুনিক ও পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

Previous articleমাছ ধরার আধুনিক নৌকা পেলো জেলেরা, এবার উন্মুক্ত জলাশয়ের দাবি
Next articleভিনদেশী অপ্রয়োজনীয়, অপসংস্কৃতি বর্জন করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।