মাসুদ রানা রাব্বানী: রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় র‍্যাব পরিচয়ে চাঁদাবাজির মামলার আসামী মোঃ তারিক হোসেন (৩৪) নামের এক কথিত এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৫। বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাতে চারঘাট থানা এলাকার কাকড়ামারী বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার ভুয়া র‌্যাব মোঃ তারিক হোসেন চারঘাট থানাধীন মেরামতপুর গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। শুক্রবার বিকেল ৩টায় র‌্যাব-৫ সদর কোম্পানী পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। র‌্যাব জানায়, গত মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টার দিকে তারিক হোসেনসহ পাঁচ ব্যক্তি গুড় ব্যবসায়ী ইব্রাহিম আলীর বাড়িতে যান। এ সময় তারিক নিজেকে সাংবাদিক এবং তাঁর সঙ্গে থাকা চার ব্যক্তিকে র‍্যাবের সদস্য বলে পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘ইব্রাহিমের নামে ভেজাল গুড় তৈরির মামলা রয়েছে। র‍্যাব তাঁকে আটক করতে এসেছে। পাঁচ লাখ টাকা দিলে ইব্রাহিমকে আটক করা হবে না।এতে ইব্রাহিম আলী ও তাঁর পরিবার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। তাঁরা কিছু টাকা কমানোর জন্য অনুরোধ করেন। এ সময় মোবাইলে তারিক নাটক করে ভুয়া এক র‍্যাব সদস্যদের সঙ্গে পরামর্শ করে দুই লাখ টাকা নিতে রাজি হয়। ইব্রাহিম আলীর স্ত্রী জরিনা বেগম ও প্রতিবেশীরা দুই লাখ টাকা প্রদান করলে তারা

তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। বিষয়টি চারদিকে জানাজানি হলে ইব্রাহিম আলী জানতে পারে ওই ঘটনায় অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিরা কোনো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য না। এরপর বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে ভুক্তভোগী ইব্রাহিম আলী তারিক হোসেনকে প্রধান আসামি করে অজ্ঞাত আরও চার ব্যক্তির নামে চারঘাট মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। জিজ্ঞাসাবাদে আসামী তারিক র‌্যাব পরিচয়ে চাঁদাবাজীর কথা স্বীকার করে। গ্রেফতার তারিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে সংশ্লিষ্ঠ থানার মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানায় র‌্যাব।

রাজশাহী সীমান্তে বিএসএফের নির্যাতনে বাংলাদেশী যুবকের মৃত্যু মাসুদ রানা রাব্বানী, রাজশাহী: ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) বাংলাদেশী এক যুবকে তুলে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিএসএফের নির্যাতনে ওই যুবকের মৃত্যুর পর তার মরদেহ ফেরত দেয়নি বলে তার পরিবার অভিযোগ করেছে। স্থানীয়রা জানান, গত সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে গোদাগাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী দিয়াড় মানিকচক কামারপাড়া গ্রামের বাবলু রহমানের ছেলে আব্দুর রহিম মাসুদসহ (১৮) চারজন

কৃষি জমিতে কাজ করছিল। এক পর্যায়ে কাঁটাতারের বেড়া সংলগ্ন বাংলাদেশী সীমান্ত থেকে চারজনকে ধরে নিয়ে যায় বিএসএফ। এরপর তিনজন পালিয়ে আসলেও আব্দুর রহিম মাসুদকে বিএসএফের হারুপুর ক্যাম্পে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করে। বিএসএফের নির্যাতনে আব্দুর রহিম মাসুদ মারা গেছে বলে জানায় তার বাবা বাবলু রহমান। তিনি বলেন, গত বুধবার পর্যন্ত হারুপুর বিএসএফ ক্যাম্পে মাসুদের লাশ পড়েছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার থেকে মাসুদের লাশের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। বিএসএফ আমার ছেলে মেরে লাশ গুম করেছে। চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আসরাফুল ইসলাম বলেন, ভারতের মুর্শিদাবাদের রানীতলা থানায় মাসুদের মরদেহ রাখা আছে। সেখান থেকে নিয়ে আসার চেষ্টা চলছে।

Previous articleমৌলভীবাজারের বেড়েছে ‘চোখ উঠা’ রোগের প্রকোপ
Next articleকলাপাড়ায় ৪ হাজার লিটার চোরাই ডিজেলসহ আটক ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।