অতুল পাল: গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে ঝড়ের কবলে পড়ে ভারতে আটকে পড়া ১১ জেলে এখনো দেশে ফিরতে পারেনি। পরিবারের একমাত্র উপার্জনাক্ষমরা আটকে থাকায় তাদের পরিবারের সদস্যরা নারী-শিশুদের নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে মানবেতর জীবনযপন করছে। আটকে পড়া জেলেদের দ্রুত ফিরিয়ে আনতে সরকারের কাছে জোর আবেদন জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট পরিবারের স্বজনরা।

সূত্র জানায়, গত ১৫ আগস্ট বাউফলের চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের বাবুল বেপারীর মালিকানাধীন (৫০) এমভি সামিরা নামক একটি ট্রলারে বাবুল বেপারী (৫০), চর মিয়াজান গ্রামের জসিম বয়াতী (৪০), আবুল মাতব্বর (৪৮), মো. সুমন (৩০), মো. সোহরাব মাঝি (৩৭), চর রায় সাহেব গ্রামের সবুজ বেপারী (৪৫), দিয়ারা কচুয়া গ্রামের কমাল সরদার (৪০), কায়েস হাওলাদার (৩৫), ফিরোজ খলিফা (৪০), নাজিরপুর-তাঁতেরকাঠী গ্রামের জসিম হাওলাদার (২০), ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলার নাজিরপুর গ্রামের মোতাহার (৪০) এবং বরিশাল জেলার মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের করিম হোসেন (৪৫) বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যান। ১৭ আগস্ট তারা গভীর সমুদ্রে মাছ শিকারে নামেন। ১৯ আগস্ট বেলা ১১ টার দিকে আকস্মিক ঝড়ের কবলে পড়ে ট্রলারটি সাগরে ডুবে যায়। ট্রলারে থাকা ১২ জন জেলের মধ্যে জসিম হাওলাদার (২০) নামের এক জেলে নিখোঁজ হন এবং বাকি ১১ জন জেলে বাঁশ ও প্লাষ্টিকের জারের সহায়তায় ভাসতে ভাসতে ভারতীয় জল সিমানায় চলে যান।

ঘটনার পর ২১ আগস্ট বাবুল বেপারীর সাথে তার ছেলে আসিফ বেপারীর (২০) মুঠোফোনে কথা হলে জেলেরা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিং থানার জীবনতলা এলাকার মৌখালী গ্রামে একজনের জিম্মায় রয়েছেন বলে জানান। তাদের সাথে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার ৫ জেলেও রয়েছেন। এব্যাপারে বাবুল বেপারীর ছেলে আসিফ বেপারী বাউফল থানায় একটি সাধারন ডায়েরীও করেছেন।

আসিফ বেপারী “আজকের বাংলাদেশকে” জানান, ঝড়ের কবলে পড়ে ট্রলার ডুবে যাওয়ার পর তার বাবাসহ অন্যান্য জেলেরা প্লাষ্টিকের জার ও বাঁশ ধরে ভাসতে থাকেন। এসময় প্রবল ¯্রােতে জসিম হাওলাদার তাদের থেকে থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এখনো তার খোঁজ মেলেনি। একটানা ১৭ ঘন্টা সাগরে ভেসে তারা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের তালপট্টি জঙ্গলে আশ্রয় নিয়ে রাত কাটান।

২১ আগষ্ট ক্যানিং থানার জীবনতলা এলকার মৌখালী গ্রামের জোনাব মোল্লা নামের এক ট্রলার মালিক তাদেরকে উদ্ধার করে তার বাড়িতে নিয়ে যায় এবং পরে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করান। খবর পেয়ে ভারতীয় পুলিশ এসে তাদেরকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জোনাব মোল্লার জিম্মায় জেলেদেরকে দিয়ে দেন। বর্তমানে তারা জোনাব মোল্লার বাড়িতেই রয়েছেন। এদিকে ভারতে আটকে পরা জেলেদের পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন এনজিও’র ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন। সরকার কিংবা কোন জনপ্রতিনিধিদের থেকে আদৌ কোন সহায়তা পায়নি।

ভারতে অটকে থাকা সোহরাব মাঝির স্ত্রী পারভিন বেগম জানান, আমাদের সংসারে আর কোন উপার্জনাক্ষম ব্যাক্তি নেই। তিন ছেলে মেয়ে নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাই। আবুল মাতব্বরের স্ত্রী শিল্পী বেগম জানান, ভারতে আটকে পরা স্বামীসহ অন্যান্য জেলেদের ফিরিয়ে আনতে থানা পুলিশ, ইউএনও, ডিসি, এসপির দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছি। কেউ কোন সারা দেন না। এব্যপারে আমরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এব্যাপারে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন জানান, ঝড়ের কবলে পড়ে ভারতে আটকে পড়া জেলেদের ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে ভারতীয় দুতাবাসে পাঠানো হচ্ছে। কলকাতায় বাংলাদেশের উপ হাইকমিশনার বিষয়টি দেখভাল করছেন। আসা করি ভারতে আটকে পড়া জেলেরা দ্রুত দেশে ফিরতে পারবেন।

Previous articleকেশবপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্রীড়া সামগ্রী ও হুইল চেয়ার বিতরণ
Next articleইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা অমান্য, বাউফলে ৫ জেলে আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।