বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা আবদুল্লাপুর ইউনিয়ন দক্ষিণ শিবা গ্রামের বৃদ্ধ জলিল ফরাজী ৮০ বছর বয়সে দুই লাখ টাকা দেনমোহরের বিনিময়ে দ্বিতীয় বিয়ের কাজ সেরেছেন। এক যুগ আগে তার স্ত্রী ইন্তেকাল করায় একা হয়ে পড়েছিলেন তিনি। একাকীত্ব ঘোচাতেই ৮০ বছর বয়সেই নিয়েছেন এই সাহসী উদ্যোগ।

বুধবার রাতে তিনি একই উপজেলার জাহানপুর ইউনিয়ন তুলাগাছিয়া গ্রামের জাহানারা বেগমকে বিয়ে করেছেন।

জানা যায়, জাহানারার স্বামী ইন্তেকাল করেছেন প্রায় তিন বছর আগে। বৃদ্ধের ছেলেমেয়ে, নাতি-নাতনি থাকলেও কনে জাহানারা বেগমের একমাত্র মেয়ে মারা গেছে। এ প্রবীণের বিয়ে ঘিরে গ্রামজুড়ে চলছে আনন্দ উৎসব। বিয়ের সব আনুষ্ঠানিকতায় দু’জনের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রামের বাসিন্দারা জানায়, স্ত্রী মারা যাওয়ার পর জলিল ফরাজী প্রায় এক যুগ ধরে টিনের চৌচালা ঘরে একাই বসবাস করছিলেন। তার ছেলে ও মেয়ের আলাদা সংসার হয়েছে। তারা তেমন খোঁজখবর নেন না। ইটভাটায় কাজ করে নিজের খরচ চালান তিনি। তিনি হাসিখুশি মানুষ। এতদিন দ্বিতীয় বিয়ের কথা বললেও তিনি রাজি হননি। নিজের স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে বৃদ্ধ বয়সে দেখভালের জন্য হঠাৎ বিয়ে করতে রাজি হলেন।

বর জলিল ফরাজী জানান, ঘটকের মাধ্যমে কনে জাহানারা বেগমের সাথে পরিচয় হয়। উভয়ের সম্মতিতে দুই লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে সম্পন্ন হয়।

কনে জাহানারা বেগম জানান, স্বামী ও কন্যা সন্তানের মৃত্যুর পর তিনি খুব অসহায় হয়ে পড়েন। একাকীত্ব ও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তিনি বিয়েতে রাজি হয়েছেন।

Previous articleরাজশাহীতে বাড়ছে ‘হ্যান্ড ফুট অ্যান্ড মাউথ ডিজিজ’
Next articleবিকাশ প্রতারকের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা উদ্ধার, ভূক্তভোগীর হাতে তুলে দিলেন ওসি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।