অতুল পাল: বাউফলের কাছিপাড়া ইউনিয়নের কারখানা নদীর ভাঙনরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক কোটি টাকা ব্যয়ে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফালানোর এক মাস যেতে না যেতেই সেগুলো নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। অপরিকল্পিত ভাবে ওই জিও ব্যাগ ফালানোয় সরকারের উদ্দেশ্য ভেস্তে যেতে বসেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাউফল উপজেলার কাছিপাড়া ইউনিয়নের কারখানা নদী ভাঙ্গণের কবল থেকে বাহেরচর বাজার ও চর রঘুনদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত ৩০০ মিটারের মধ্যে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফলানো হয়। পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধানে গত মাসের মাঝামাঝি সময় ওই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয়েছিল। এর জন্য ব্যয় ধরা হয় ৯৫ লাখ টাকা। মের্সাস লুৎফর রহমান নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওই কাজ বাস্তবায়ন করে।

সরেজমিন দেখা গেছে, অধিকাংশ জিও ব্যাগ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ায় আবারো নদী পাড় ভাঙতে শুরু করেছে। কিছু কিছু জিও ব্যাগ ঢিলে হয়ে গেছে। জিও ব্যাগগুলো এলোপাতাড়ি ভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। নদীর ঢেউয়ে ওই ব্যাগগুলোও হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। সাইদুল নামের স্থানীয় একজন অভিযোগ করেন, নিয়ম অনুযায়ি জিও ব্যাগগুলোতে বালু ভর্তি করা হয়নি। প্রত্যেকটি জিও ব্যাগে ১৫০ কেজি করে বালু ভর্তি করার কথা থাকলেও করা হয়েছে সর্বোচ্চ ১১০ থেকে ১২০ কেজি। তাও আবার কাদাবালু। ফলে পানির ঢেউয়ে কাদা ধুয়ে গিয়ে ব্যাগ ঢিলেঠালা হয়ে গেছে। এলাকার লোকজন শুরু থেকেই নিয়ম বর্হিভূত কাজে বাধা দিলেও ঠিকাদারের লোকজন বাধা মানেননি। এরফলে ওই এলাকায় কয়েক শত পরিবার, একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ভেড়িবাধ কাম পাকা সড়ক হুমকির মুখে রয়েছে।

এ ব্যাপারে ঠিকাদার লুৎফর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, কাজে কোন অনিয়ম হয়নি। নিয়ম মেনেই ভাঙণ কবলিত এলাকায় জিও ব্যাগ ফালানো হয়েছে।

পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কাওসার আলম বলেন, এটি পার্মানেন্ট কোন প্রকল্প নয়, অস্থায়ী প্রকল্প। কারখানা নদীর ভাঙণ থেকে বাজার, স্কুল ও জনপথ রক্ষার জন্য জরুরী ভিত্তিতে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

Previous articleনতুন প্রজন্মের কাছে মালেক উকিলের আদর্শ অনুকরণীয়
Next articleবাউফলে অর্ধশাতাধিক স্পটে বিক্রি হচ্ছে মাদক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।