অতুল পাল: বাউফলে শহর থেকে গ্রাম যেখানেই যান হাত বাড়ালেই মিলবে হরেক রকমের ইয়াবা, গাঁজা, ঝাঁকানি, কেরু এবং বিদেশী মদ ইত্যাদি নানা ধরণের মাদক। কোন কোন ক্ষেত্রে প্রকাশ্যেও বিক্রি ও সেবন করতে দেখা যায় এই সব মাদক। বাউফল যেন মাদকের বাজার।

রাজনৈতিক দলের প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এই ব্যাবসা করে একটি মহল রাতারাতি লাখপতি বনে গেছেন। মাঝেমধ্যে পুলিশের অভিযান চললেও রাঘববোয়ালরা রয়ে যাচ্চে ধরাছোঁয়ার বাহিরে।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, উপজেলায় অর্ধশতাধিক স্পটে দেদারসে চলছে মাদক বিক্রি ও সেবন। এই স্পটগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে পৌর শহরের মুক্তিযোদ্ধা অডিটোরিয়াম, সরকারি কলেজ ক্যাম্পাস, মহিলা কলেজের পশ্চিম পাসের মাঠ, নবারুন সার্ভে ইনস্টিটিউট ক্যাম্পাস, কাগুজিরপুল মল্লিক পাড়া, ইউনিয়ন পরিষদ ক্যাম্পাস, ইটভাটা এলাকা, উপজেলা পরিষদ চত্বর এবং এমপি ব্রীজ, ধুলিয়া ইউনিয়নের ধুলিয়া লঞ্চঘাট, ধুলিয়া স্কুল এন্ড কলেজ এলাকা, মঠবাড়িয়া চৌরাস্তা এলাকা, জামালকাঠি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকা, চাঁদকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয় এলাকা, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ক্যাম্পাস, কালিশুরী ইউনিয়নের কালিশুরী ব্রীজ এলাকা, পোঁনাহুরা, বাহেরচর বাজার ও ব্রীজের এপাড়-ওপাড়, নাজিরপুর ইউনিয়নের নিমদী লঞ্চঘাট, ধানদী বাজার, বাংলা বাজার, মেম্বার বাজার, বড় ডালিমা এলাকা, কালাইয়া ইউনিয়নের কবরস্থান রোড, মুড়িপট্টি, খাদ্যগুদাম ক্যাম্পাস, কালাইয়া কলেজ ক্যাম্পাস, ডকইয়ার্ড, কালাইয়া নাগাশী কান্দা এলাকা, দক্ষিণ কালাইয়া দুই নম্বর ব্রীজ এলাকা, দক্ষিণ কালাইয়া সরকারী পুকুর এলাকা, দাশপাড়া ইউনিয়নের কাঠের পোল, চৌমুহুনী বাজার এলাকা, বোর্ড অফিস ক্যাম্পাস, ল্যারা মুন্সির পুল এলাকা, নওমালা ইউনিয়নের বাবুর হাট, নগরের হাট, ভাঙ্গা ব্রীজ, আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের কাশিপুর বাজার, মাধবপুর বাজার, বগা ইউনিয়নের বগা লঞ্চঘাট, হোগলার পোল, কেশবপুর ইউনিয়নের কেশবপুর বাজার, মমিনপুর বাজার, ভরিপাশা খেয়াঘাট এবং কালামিয়ার বাজার মাদকের হটস্পট হিসেবে পরিচিত। এসব স্পটে হরহামেশাই চলে গাঁজা ও ইয়াবা সেবন এবং বিক্রি। একাধিক সূত্রের তথ্য মতে, উপজেলায় প্রধান চারটি রুট দিয়ে মাদকের চালান আসে। এই রুটগুলো হচ্ছে, ঢাকা-কালাইয়া নৌ রুট। ঢাকা সদরঘাট, ফতুল্লা ও চাঁদপুর থেকে লঞ্চযোগে আসে গাঁজা ও ইয়াবা। এসব চালান ধুলিয়া, নিমদী ও কালাইয়া লঞ্চঘাট থেকে চলে যায় বিভিন্ন স্পটে।

এছাড়াও সড়ক পথে বরিশাল থেকে ভাতশালা হয়ে কালিশুরীর পথে, দুমকি থেকে বগা ও পটুয়াখালীর লোহালিয়া থেকে বাউফলে মাদকের চালান আসে। মাদক ব্যাবসায়ীরা সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের নাম ব্যাবহার করে এসব মাদক লঞ্চ এবং বাস সহ অন্যান্য যানবাহনে সরবরাহ করে। যাতে পুলিশ তাদের নাম জেনে কোন ব্যবস্থা না নেন। এসব মাদকের চালান প্রথমে চলে যায় মাদক কারবারিদের হাতে। দ্বিতীয় ধাপে চলে যায় মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের হাতে। বিভিন্ন কলাকৌশলে চলে মাদকের খুচরা বিক্রি। মোবাইল কল, হোম ডেলিভারি ও হাতে হাতে হয় কেনা-বেচাও।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক মাদকসেবী জানায়, প্রতি গাঁজার পোটলা বিক্রি হয় ২০০ এবং প্রতি পিস গুণগত কারণে প্রতিটি ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রি হয় ২০০ থেকে ৪০০ টাকায়। সেবনকারীদের মধ্যে উঠতি বয়সের তরুণ ও যুবকরাই বেশি। অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাউফলে গাঁজা ও মাদক ব্যবসার সাথে শক্তিশালী কয়েকটি সিন্ডিকেট জড়িত রয়েছে। যারমধ্যে গাঁজার বড় সিন্ডিকেট হলো বাউফল, কালাইয়া এবং ধুলিয়াতে। কালাইয়াতে ৪/৫জন গাঁজা ও ইয়াবা ব্যবসায়ী থাকলেও এদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে বন্দরের দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়ার একটি পরিবার। ওই পরিবারের সকলেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। ওই পরিবারের প্রধান, তাঁর স্ত্রী, ভাই, ছেলে, মেয়ে এবং মেয়ে জামাই একটি কিশোর গ্যাংয়ের মাধ্যমে মাদক ব্যাবসা চালাচ্ছে। এখান থেকে নাজিরপুর, দাশপাড়া ও চন্দ্রদ্বীপে গাঁজা সরবরাহ করা হয় বলে ওয়াকিবহাল সূত্র জানিয়েছেন। এদের মধ্যে কেউ কেউ নিজেকে পুলিশের সোর্স হিসেবেও পরিচয় দেন। যাতে কেউ কিছু বলার সাহস না পান। কেউ প্রতিবাদ করলে ওই গ্যাং বাহিনীর হামলার শিকার হতে হয়। মাদক ব্যবসা করে ভাগ্য খুলে গেছে ওই সিন্ডিকেটের। এক সময় শ্রমিকের কাজ করলেও এখনতারা লাখপতি। দিন দিন বাড়ছে অর্থ-সম্পদ। সম্প্রতি কালাইয়া বন্দরের উত্তর পাশে বড় ডালিমা খানকা এলাকায় একাধিক মাদকসহ গ্রেপ্তার এক মাদক ব্যবসায়ীর রয়েছে একাধিক সিন্ডিকেট।

এদিকে কালিশুরীতে রয়েছে আরও তিনিটি মাদক ব্যবসায়ী সিন্ডেকেট। এসব মাদক স¤্রাটদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতারা। এদিকে পুলিশ নামে মাত্র মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করলেও রাঘববোয়ালরা রয়ে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাহিরে। সচেতন নাগরিকেরা বলেছেন, মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই। এগিয়ে আসতে হবে জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতাদের।

এবিষয়ে বাউফল থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আল-মামুন বলেন, পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশে নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযান চলছে। এ অভিযান আরও জোরদার করা হবে।

Previous articleবাউফলে কোটি টাকার জিও ব্যাগ নদী গর্ভে বিলীন
Next articleসলঙ্গার টবের চাহিদা বেড়েছে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।