নিহত নুরুল আমিন

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পাওনা টাকা পরিশোধের আশ্বাসে নূরুল আমিনকে নারায়নগঞ্জ থেকে বরিশালের মুলাদীতে শ্বশুর বাড়ি ডেকে আনেন পার্শ্ববর্তী বাড়ির কামরুল ইসলাম। পরে নূরুল আমিনকে হত্যা করে হাত-পায়ে ইট বেধে ফেলে দেন আড়িয়াল নদীতে। ঘটনার ৩ দিন পর গোপনে দেশ ছেড়ে সিঙ্গাপুর চলে যান কামরুল। এই ঘটনায় অভিযুক্ত কামরুলের শ্বশুর মো. খোরশেদ আলম গত মঙ্গলবার বশিাল আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

নিহত নূরুল আমিন নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার চরবক্তাবলী উপজেলার লক্ষ্মীনগর গ্রামের পিয়ার আলী ফকিরের ছেলে। অন্যদিকে কামরুল ইসলাম একই গ্রামের হানিফ ফকিরের ছেলে। কামরুল ইসলামের শ্বশুর বাড়ি বরিশালের মুলাদী উপজেলার সফিপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামে। এর আগে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ কামরুল ইসলামের শ্বশুর মো. খোরশেদ আলমকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

আদালতে খোরশেদ আলম স্বীকার করেছেন, তাঁর জামাতা কামরুল ইসলাম খুন করে দেশ ছেড়ে সিঙ্গাপুর চলে গেছে। এই খুনের সঙ্গে আর কেউ জড়িত আছে কিনা তা তিনি জানেন না। গত ১২ অক্টোবর রাতে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের সাহেবেরচর গ্রামের আড়িয়াল খাঁ নদীর উত্তর তীরবর্তী চর থেকে নূরুল আমিনের মরদেহ উদ্ধার করে নৌপুলিশ। মরদেহের হাত-পায়ে ইট বাঁধা পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে হত্যার সন্দেহ করা হয়।

ঘটনার পরদিন নৌপুলিশ বাদী হয়ে মুলাদী থানায় মামলা দায়ের করে। বিভিন্ন থানায় সংবাদ পাঠিয়ে মরদেহের পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় বেওয়ারিশ হিসেবে বরিশালে দাফন করা হয়। গত সোমবার (১৭ অক্টোবর) নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার একটি সাধারণ ডায়েরির সূত্রধরে নূরুল আমিনের মরদেহের পরিচয় শনাক্ত হয়।

গত ১০ অক্টোবর বাসা থেকে বের হয়ে মুলাদীতে আসেন। পরবর্তীতে মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে তাঁর বোন সোনিয়া আক্তার ১৪ অক্টোবর ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। নিহত নূরুল আমিনের বোন সোনিয়া আক্তার জানান, নূরুল আমিন ও কামরুল ইসলাম এক সঙ্গে সিঙ্গাপুর ছিলেন। তাঁরা একসঙ্গে সেখানে থাকতেন। বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুর লোক নেওয়ার ব্যবসাও (আদম ব্যবসা) করতেন তাঁরা। নূরুল আমিন সিঙ্গাপুরে থাকাকালীন কামরুল তাঁর কাছ থেকে ১৫ লাখ টাকা নেন। এক বছর আগে নূরুল আমিন সিঙ্গাপুর থেকে বাড়িতে আসেন।

পরবর্তীতে নূরুল আমিনকে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে নেওয়ার কথা বলে আরও ১০ লাখ টাকা নেন কামরুল। নূরুল আমিনকে দীর্ঘদিন ধরে মধ্যপ্রাচ্যে না নেওয়ায় তিন ২৫ লাখ টাকা ফেরৎ চান। কিন্তু কামরুল ইসলাম আজকাল করে সময় ক্ষেপণ করতে থাকেন। সোনিয়া আক্তার আরও জানান, গত ৭ অক্টোবর গোপনে বাংলাদেশে আসেন কামরুল। এলাকার লোকজন টাকার জন্য চাপ দেবেন এই ভয়ে নিজ গ্রামে যাননি তিনি। নূরুল আমিনকে মোবাইল ফোনে ইমুতে কামরুল তার শ্বশুর বাড়ি মুলাদীতে আসতে বলেন। কিন্তু টাকা না থাকায় আসতে পারবেন না জানিয়ে দেন নূরুল আমিন। পরে কামরুল ইসলাম তার ছোট ভাই আরিফের মাধ্যমে নূরুল আমিনকে ৩ হাজার টাকা দেয়। গত ১০ অক্টোবর সকালে নূরুল আমিন বাসা থেকে বের হন। ওই সময় নূরুল আমিন জানিয়েছিল, কামরুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলতে বরিশালের মুলাদীতে যাচ্ছেন।

পরবর্তীতে খোঁজ না পেয়ে ১৪ অক্টোবর ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। পরিবারের সদস্যদের ধারণা, পাওনা টাকা চাওয়ায় কামরুল তার শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সহায়তায় নূরুল আমিনকে হত্যা করেছে। নাজিরপুর নৌপুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ প্রবীর মিত্র বলেন, ‘কামরুলের পাসপোর্ট তদন্তে দেখা গেছে তিনি ৭ অক্টোবর বাংলাদেশে এসেছেন এবং ১৩ অক্টোবর সকালে সিঙ্গাপুর চলে গেছেন। বাংলাদেশে অবস্থানকালীন তিনি তাঁর শ্বশুর বাড়ি মুলাদী উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামে ছিলেন। এ ছাড়া কামরুল ইসলামের শ্বশুর খোরশেদ আলম গত মঙ্গলবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বরিশাল আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন যে, তাঁর জামাতা নূরুল আমিনকে মোবাইল ফোনে ডেকে এনে খুন করেছে এবং সিঙ্গাপুর চলে গেছে। হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্যান্যদের শনাক্ত এবং গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’ অপরদিকে, নিহতের মরদেহ ফেরত পেতে বরিশাল আদালতে আবেদন করেছেন তাঁর স্বজনেরা। আগামী ২৩ অক্টোবর এই বিষয়ে আদেশ দেওয়ার দিন ধার্য করেছেন বিচারক।

Previous articleইসলাম সম্পর্কে অনেক মানুষের ভুল ধারণা রয়েছে: কানাডীয় নওমুসলিম
Next articleমৌলভীবাজারে ৩৮ প্রকল্পের কাজ না করেই টাকা লুটপাট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।