বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে হাতিয়া উপজেলায় রোববার রাত থেকে শুরু হয় অব্যাহত বৃষ্টিপাত। মেঘাচ্ছন্ন অন্ধকারময় পরিবেশ, সাথে প্রচণ্ড দমকা বাতাসে কাঁচা ঘরবাড়ি ও গাছপালা উপড়ে গেছে। মাঠে আমন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। রাস্তাঘাট একেবারে ফাঁকা রয়েছে।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং মোকাবেলায় হাতিয়া উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির উদ্যোগে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সেলিম হোসেন।

তিনি বলেন, সিত্রাং মোকাবেলায় হাতিয়াতে ২৪২টি সাইক্লোন শেল্টার এবং তিন হাজার ৫৪০ জন সিপিপি স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রয়েছে। রোববার থেকে হাতিয়ায় সকল ধরনের নৌ-যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

ইতোমধ্যে আবহাওয়া দফতর থেকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেয়া হয়েছে।

উপজেলা সিপিপি কর্মকর্তা বলেন, দ্বীপের প্রশিক্ষিত ভলান্টিয়াররা উপকূল অঞ্চলের সর্বত্র মাইকিং অব্যাহত রেখেছে।

নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান দিনাজ উদ্দিন জানান, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে নিঝুমদ্বীপে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত দমকা হাওয়া বৃদ্ধি পেয়েছে। অমাবশ্যার ভরা জোয়ারে ইতোমধ্যে বান্ধাখালী, মোল্লাগ্রাম, মুন্সিগ্রাম ও মদিনা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে গ্রামের বাসিন্দারা ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে।

এছাড়াও নলচিরা, চরঈশ্বর, সুখচর, তমরদ্দি, সোনাদিয়া, নঙ্গলিয়া, নলেরচর. কেয়ারিংচরসহ চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মান না করার কারণে জোয়ারে এসব এলাকা দিয়ে পানি ঢুকে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। মারাত্মক দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছে এসব এলাকার লক্ষাধিক মানুষ। সাধারণ জোয়ারে চেয়ে ৪ থেকে ৫ ফুট জোয়ারে তলিয়ে গেছে প্রায় ২০টি গ্রাম।

উপজেলা সিপিপি কর্মকর্তা মো: বদিউজ্জামান জানান, সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ হাতিয়া উপজেলায় সিত্রাংয়ের আঘাত শুরু হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Previous articleঅন্য কোনো দেশে দুর্ভিক্ষ হতে পারে বাংলাদেশে হবে না: কৃষিমন্ত্রী
Next articleরংপুর সিটি কর্পোরেশনের ফোয়ারা চত্বর নজর কাড়ছে সবার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।