জয়নাল আবেদীন: প্রশাসনিক হয়রানি ও মহাসড়কে নছিমন করিমন বন্ধের দাবিতে রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতির আহবানে পরিবহন ধর্মঘটের প্রথম দিন গতকাল শুক্রবার রংপুরের পথে পথে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ ও ভোগান্তি দেখা দিয়েছে। পরিবহন ধর্মঘটের কারণে আন্তজেলা ও দূরপাল্লার সব ধরনের বাস, ট্রাক, পিকআপ চলাচল বন্ধ রয়েছে। বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশের একদিন আগে হঠাৎ পরিবহন ধর্মঘট শুরু হওয়ায় দুর্ভোগ বলে সাধারণ জনগণের অভিযোগ।

শুক্রবার ভোর থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত রংপুর-ঢাকা মহাসড়ের মডার্ন মোড়, কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট মহাসড়কের মাহিগঞ্জ সাতমাথা, দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড়- নীলফামারী মহাসড়কের মেডিকেল মোড়, নগরের কামারপাড়া ঢাকা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মহাসড়কে কোনো যাত্রীবাহী বাস চলছে না। নেই ট্রাকও। কিছু অটোরিকশা চলাচল করছে। এরপরও মানুষ ঢাকায় যাওয়ার জন্য বিভিন্ন স্থানে ছুটে এসেছেন, যদি কোনো বাস বা অন্য কোনো পরিবহন মেলে।কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল, কুড়িগ্রাম বাস স্টান্ড, মেডিকেল বাসস্টান্ডের সামনে মোটর মালিক সমিতির লোকজন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছেড়ে আসা নাইট কোচ থামিয়ে দিচ্ছে। তারা যেন ধর্মঘটের এই দুইদিন কোনো বাস না চালায় কিংবা রাস্তায় বাস নিয়ে না নামে সে বিষয়ে সতর্ক করে দিচ্ছে ।

মালিক সমিতির অধীনে থাকা কয়েকজন চেইন মাস্টার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানান, মোটর মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ সকাল থেকে পাহারা দেওয়ার কঠোর নির্দেশ দিয়েছে। সেই নির্দেশে আমরা সবাইকে সতর্ক করে দিচ্ছি।তবে হঠাৎ করে প্রশাসনিক হয়রানি ও মহাসড়কে নছিমন করিমন বন্ধের দাবিতে পরিবহন ধর্মঘট না রংপুরে বিএনপির গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে ডাকা এই ধর্মঘট এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে রাজি হননি তারা। তবে বিএনপি বলছে, গণসমাবেশে যেন মানুষ আসতে না পারে সেজন্য এই পরিবহন ধর্মঘট।

এদিকে দূরপাল্লার বাসচালকরা বলছেন, অধিকাংশ বাস রাতে ঢাকা থেকে ছেড়ে এসেছে, গন্তব্যে না যাওয়া পর্যন্ত তো বন্ধ করার সুযোগ নেই। কিন্তু এরমধ্যে পথে পথে গাড়ি থামায় হুমকিধামকি দিচ্ছে। এটা জুলুম অত্যাচার, হয়রানি ছাড়া কিছুই না। আর এভাবে বাস থামানোর কারণে সঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। অন্যদিকে পরিবহন ধর্মঘটের কারণে বিড়ম্বনায় পড়ছেন অনেক যাত্রী।

বাস টার্মিনালে, বিভিন্ন বাসস্টান্ডে গিয়ে দেখা যায়, যাত্রীরা সকালেই এসেছেন কিন্তু কোনো গাড়ি না ছাড়ায় তারা দুর্ভোগে পড়েছেন। বিকল্প উপায় হিসেবে অনেকেই অটোরিকশা নিয়ে নিজ গন্তব্যে ছুটছেন।রংপুরে বিএনপির গণসমাবেশ শনিবার কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে। এই সমাবেশের আগে খুলনা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহের গণসমাবেশের পর একইভাবে সমাবেশের আগে পরিবহন মালিক সমিতির সংগঠন রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতি পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয়।

শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত এই ধর্মঘট চলবে। ফলে সাধারণ মানুষদের এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে। পথে পথে যেন ভোগান্তির শেষ নেই। তবে বিএনপির নেতা কর্মীরা বিভিন্ন জেলা এবং উপজেলা থেকে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই আসতে শুরু করেছে । শুক্রবার নগরির বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছে সেই সঙ্গে খেলার মাঠগুলোতে সামিয়ানা টাঙিয়ে রাত্রি যাপনের আয়োজন করছে ।

Previous articleটাঙ্গুয়ার হাওরে বহিরাগতদের আয়ের সুযোগ হলেও স্থানীয়দের নিছক বাসস্থান
Next articleবড় ছক্কা হাঁকানোর সামর্থ্য বাংলাদেশের নেই: সিডন্স
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।