আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওর নামটি কারও অজানা নয়।এক সময় টাঙ্গুয়ার হাওরের অসম প্রকৃতির সৌন্দর্যের লীলাভূমি বুঝানো হত,ছয় কুড়ি কান্দা নয় কুড়ি বিল এই প্রবাদ বাক্য দিয়ে। তবে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের লোকজনের কাছে টাংগুয়ার হাওর একটি পরিবেশ বান্ধব পর্যটন এলাকা নামেই খুব বেশি পরিচিত।

টাংগুয়ার হাওর সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর ও নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলা সীমান্ত মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত।মেঘালয় পাহাড় থেকে ৩৮টি ঝর্ণা এসে মিশেছে এই টাঙ্গুয়ার হাওরে।বিশাল এই জলরাশিতে প্রকৃতি বেড়ে উঠেছে আপন মনে।বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব প্রান্তে সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর ও মধ্যনগর উপজেলার ১৮টি মৌজা, প্রধান বিল ৫৪টি হলেও ছোট-বড় মোট বিলের পরিমাণ ১০৯টি। নয় হাজার ৭২৭ হেক্টর অঞ্চল নিয়ে গড়ে উঠা টাঙ্গুয়ার হাওর দেশের অন্যতম বড় জলাভূমি। এই হাওরে জালের মতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে অসংখ্য খাল, বিলও নদী-নালা।বর্ষায় সব মিলেমিশে একাকার হয়ে হাওর যেন রূপ নেয় সমুদ্রের।টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকায় ৮৮টি গ্রামের প্রায় ৬০ হাজার মানুষ হাওরের উপর বিভিন্ন ভাবে নির্ভরশীল।

প্রকৃতির সৌন্দর্যের লীলাভূমি টাঙ্গুয়ার হাওর নিঃসন্দেহে ভ্রমণপিপাসুরা ভ্রমণের ক্ষেত্রে পছন্দের তালিকায় এগিয়ে রাখে। তবে এই হাওরটি পর্যটকদের আনন্দ-বিনোদনের খোরাক ও বহিরাগতদের আয়ের সুযোগ হলেও স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে নিছক বাসস্থান। প্রায় এক যুগ ধরে পর্যটকদের প্রকৃতির নান্দনিক রূপ দিয়ে নানাভাবে আনন্দ মিটিয়ে আসা এই টাঙ্গুয়ার হাওর এখন নানা সমস্যায় জর্জরিত। পরিবেশবাদীদের মতে এখনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে কয়েক বছরের মধ্যেই হাওরের পরিবেশ হুমকির মুখে পড়বে। অন্যদিকে পর্যটন ব্যবসায়ী বা পর্যটনখাতের সংশ্লিষ্টরা ভাবছেন কিভাবে এই টাঙ্গুয়ার হাওর ব্যবহার করে প্রচুর অর্থ আয় করা যায়।কিন্তু এই প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চলে বসবাস করা সাধারণ মানুষগুলো নিয়ে ক’জনে চিন্তা করে? তাদের জীবনযাপন নিয়ে ক’জনের মাথাব্যথা।

টাঙ্গুয়ার হাওরের ওয়াচ-টাওয়ার এলাকায় পর্যটকবাহী নৌকা আসলেই স্থানীয় ৫-১০ বছর বয়সী একদল শিশু ছোট ছোট নৌকা নিয়ে হাজির।সামান্য কিছু টাকার জন্য,ওরা বলতে থাকে মামা আমার নৌকায় আসেন আমি ভাল গান জানি,গান গাইতে গাইতে আপনাদের সব ঘুরাইয়া দেখাইমু।কেউবা আবার ছোট ছোট নৌকা নিয়ে ঘুরে ঘুরে চা বিক্রি করছে।টাঙ্গুয়ার হাওর এলাক সুবিধাবঞ্চিত মানুষ গুলো অত্যন্ত সহজ-সরল। আর্থিকভাবে হাওরবাসীকে অসচ্ছল বললে ভুল হবে না।বলা যায় হাওর পাড়ের বেশিরভাগ মানুষ নিতান্তই গরীব।তাদের বাড়িঘর দেখলেই বিষটি স্পষ্ট বুঝা যায়।সেখানকার অধিকাংশ মানুষ জেলে হওয়ায় টাঙ্গুয়ার হাওর তাদের আয়ের প্রধান উৎসস্থল। এখানকার বেশিরভাগ মানুষ হাওরের উপর নির্ভরশীল। এছাড়াও বিভিন্ন ফসলের জমি করে খাদ্যের জোগান দিয়ে থাকেন তারা।কিন্তু অনেকেই মনে করেন টাঙ্গুয়ার হাওরের স্থায়ী বাসিন্দারা সারাবছর প্রচুর টাকা আয় করে।সেটা নিতান্তই ভুল।

স্থানীয়রা জানিয়েছে প্রতিবছর হেমন্তে হাওরের পানি কমতে শুরু করলে বিভিন্ন ভাবে মাছ ধরে কিছু টাকা আয় করে,বর্তমানে হাওরে মাছও আগের মতো নেই।হেমন্ত শেষ হলে বাকি মাস গুলো খুব কষ্টে কাটাতে হয় তাদের।কিন্তু টাঙ্গুয়ার হাওর পরিবেশ বান্ধব পর্যটন এলাকায়,হাওরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখতে পর্যটকদের আনাগোনা বৃদ্ধি পাওয়ায় এখানকার মানুষ বিকল্প আয়ের স্বপ্ন দেখছিল,কিন্তু বহিরাগত টাকাওয়ালা মানুষের দাপটে তাদের সেই স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্থানীয় চা বিক্রেতা নিজাম উদ্দিন বলেন। স্থানীয় মানুষ একধরণের নির্যাতিত বলতে গেলে।টাঙ্গুয়ার হাওর ইক্যুট্যুরিজম খাত বহিরাগত ব্যবসায়ীদের দখলে চলে গেছে।ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের টাকাওয়ালা লোকজন বড় বড় হাউজবোট তৈরি করে এতে থাকা-খাওয়া সহ চা বিস্কিট বিক্রি সবই তাদের দখলে। পূর্বে চা বিস্কুট বিক্রি করে চার-পাঁচ শত টাকা দৈনিক আয় করলেও এখন আর তেমনটা হচ্ছে না।আমাদের বেচে থাকাটাই এখন কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্থানীয় লাইফ জ্যাকেট ব্যবসায়ী নবাব মিয়া জানান আগে পর্যটকদের কাছে লাইফ জ্যাকেট ভাড়া দিয়ে দিনে চারপাঁচ শত আয় করতাম এখন এখন এটাও সম্ভব নয়,নৌকাওয়ালারা সব নিয়ে আইয়ে,আগের মতো কামাই না হইলে চকমু কিভাবে।

কিন্তু ইকোট্যুরিজম এর মূলনীতি হচ্ছে কোন এলাকার স্থানীয় জনগনের অংশগ্রহণ ও ব্যবস্থাপনায় পরিবেশ প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র‍্যের ক্ষতি না করে প্রকৃতিকে উপভোগ করার এমন একটি দায়িত্বপূর্ণ ভ্রমন যা ঐ এলাকার জনগনের ধর্মীয় ও সামাজিক সংস্কৃতির উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে না এবং স্থানীয় জনগনের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।ইকোট্যুরিজমে স্থানীয় জনগণ সক্রিয় অংশগ্রহণ থাকায় তারা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয় এবং অর্জিত আয়ের একটি অংশ ঐ এলাকার পরিবেশ উন্নয়নে ও জীববৈচিত্র‍্য সংরক্ষণের পাশাপাশি পরিবেশ বান্ধব পর্যটনের বিকাশে ব্যবহার হয়ে থাকে।

অথচ টাঙ্গুয়ার ঘুরে দেখাযায় পর্যটকদের পরিবহণ নৌকা,থাকা,খাওয়া,সহ চা পানির ব্যবসা থেকে শুরু করে সবই করছে বহিরাগত ব্যবসায়ীরা।মাঝেমধ্যে ছোট-ছোট নৌকায় করে চা-বিস্কুট বিক্রি করতে স্থানীয়দের ঘুরতে দেখা যায়।কিন্তু তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন বহিরাগত ব্যবসায়ীদের কারণে তারা তেমন একটা বিক্রি করতে পারছে না।

বিভিন্ন তথ্যসুত্রে জানাযায় ঢাকার মালিকের হাউজ বোটসহ প্রায় শতাধিক বোট চলে এই টাঙ্গুয়ার হাওরে এবং তাহিরপুর ও মধ্যনগর উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার রয়েছে আর শতাধিক সব মিলিয়ে দুই শতাধিক বোট চলে টাঙ্গুয়ার হাওরে।এতে গড়ে প্রতি নৌকায় ২০জন করে পর্যটক আসলেও প্রতিদিন ৪হাজার পর্যটক টাঙ্গুয়ার হাওরে আসে।এবং পর্যটকদের ব্যবহৃত পলিথিনসহ নানা ধরনের ময়লা আবর্জনা অবাধে ফেলা হয় টাঙ্গুয়ার হাওরের পানিতে, এতে দিন দিন হাওরের পানির স্বচ্ছতা হারিয়ে দূষিত হচ্ছে টাঙ্গুয়ার হাওরের পরিবেশ, বিলুপ্ত হচ্ছে প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নেয়া দেশীয় প্রজাতির অনেক সুস্বাদু মাছও। পরিবেশবাদীরা বলছেন টাঙ্গুয়ার হাওরের বর্তমান চিত্র অনুযায়ী অনেক প্রাণী ও বিভিন্ন সম্ভাবনাময়ী উদ্ভিদ বিলুপ্তির পথে।তাই টাঙ্গুয়ার হাওরকে জাতীয় সম্পদ হিসাবে বিবেচনা করে এর সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া দরকার।

স্থানীয় সচেতন বলছে টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের মানুষদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করতে শিক্ষা ও চিকিৎসা ও বিকল্প কর্মের ব্যবস্থা করা সংশ্লিষ্টদের বেশি নজর দিতে হবে।তারা বলেন টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর বিকল্প আয়ের সুযোগ না থাকায়, বেকারত্ব বেড়েই চলছে,এতে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে অনেক।এমতাবস্থায় তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য জরুরি ব্যবস্থা গ্রহন করা দরকার। এছাড়াও কত সম্ভাবনাময়ী শিশু-কিশোর বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। হাওরাঞ্চলে বসবাস বলে সম্ভাবনাময়ী স্বপ্নবাজ তারুণ্য হারাচ্ছে বাংলাদেশ।

Previous articleজনগণের টাকা গিলে খাওয়া বিশ্বচোরদের এখন বড় গলা: তথ্যমন্ত্রী
Next articleরংপুরে পরিবহন ধর্মঘট: পথে পথে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ ও ভোগান্তি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।