পাভেল মিয়া: কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতাঃ কুড়িগ্রামে চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফুলকপি ও বাঁধাকপির বাম্পার ফলন হয়েছে। এদিকে ভালো ফলনের পাশাপশি ভালো দাম পাওয়ায় জেলাজুড়ে কৃষক-কৃষানীর মুখে হাসি ফুটেছে। প্রতি বছর প্রান্তিক চাষিরা ভালো দামের আশায় আগাম হাইব্রিট জাতের ফুলকপি ও বাঁধাকপি চাষ করে আসছেন। শীত মৌসুমে আগাম ফুলকপি ও বাঁধাকপিসহ বিভিন্ন সবজির চাষাবাদ করে লাভবান হচ্ছেন এ অঞ্চলের হাজারও প্রান্তিক চাষি। এসব চাষি আগাম ফুলকপি ও বাঁধাকপিসহ বিভিন্ন সবজি চাষে নানামুখী ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও অক্লান্ত পরিশ্রম করে পরিবার-পরিজনদের নিয়ে সাফল্যের সঙ্গে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছেন এ অঞ্চলের কৃষক পরিবারগুলো।

জেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, চলতি মৌসুমে কোনও জমি আর পতিত নেই। বিস্তৃর্ণ জমিতে এখন শোভা পাচ্ছে সবুজের সমাহার। বিশেষ করে উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের কুটিবাড়ী ও কৃষ্ণনন্দ বকসী এলাকার শত শত কৃষক পতিত জমিতে কেউ আগাম জাতের ফুলকপি আবার কেউ আগাম জাতের বাঁধাকপি চাষ করেছেন। এরই মধ্যে ক্ষেতের ফুলকপি বিক্রি করা শুরু করেছেন কৃষকরা। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে স্বপ্নের ফসল ফুলকপি ও বাঁধাকপি ব্যাপক হারে বিক্রি করতে পারবেন চাষিরা। চাষির আগাম হাইব্রিট জাতের ফুলকপি-বাঁধাকপি চাষ করে পরিবার-পরিজন নিয়ে ক্ষেতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ অঞ্চলের মানুষ সারা বছর আগাম জাতের বিভিন্ন ধরনের সবজির চাষাবাদ করে শত শত কৃষক পরিবার স্বাবলম্বী হয়েছেন। জ্বালানিসহ কৃষি খাতে সব ধরনের কাচামালের মূল্য বৃদ্ধি পেলেও ওই সব ফসলের ভালো ফলন ও ভালো দাম থাকে তাহলে চাষিদের লোকসান গুনতে হবে না বলে একাধিক চাষি জানিয়েছেন।

ফুলবাড়ী উপজেলার কৃষ্ণানন্দ বকসি এলাকার কৃষক জহির ও জামাল আলী জানান, তারা প্রত্যেকেই ১ বিঘা জমিতে আগাম জাতের ফুলকপি আবার কেউ বাঁধাকপির চাষ করেছেন। কৃষক জামাল আলীর বাঁধাকপি বিক্রি করতে আরও ১০ থেকে ১৫ দিন সময় লাগবে। তবে কেউ কেউ গত এক সপ্তাহ ধরে ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা দরে প্রতি মন ফুলকপি বিক্রি করছেন। ফুলকপির বাজার দর এমন থাকলে ১ বিঘা জমিতে ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা বিক্রি করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান,বর্তমান বাজার দর থাকলে বিঘা প্রতি ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব।

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিপ্লব কুমার মোহন্ত, এই অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে আমন ধান নুয়ে পড়লেও সবজিতে তেমন ক্ষতি হয়নি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষকরা কৃষি বিভাগের পরামর্শে আগাম হাইব্রিট জাতের ফুলকপি চাষ করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা সৃষ্টি করেছেন। চলতি মৌসুমে চাষিরা আগাম ১৬৫ হেক্টর জমিতে ফুলকপি ও ১৪৫ হেক্টর জমিতে বাঁধাকপির চাষবাদ করেছে। এখনও ফুলকপি ও বাধাকপি রোপন চলমান আছে। অধিকাংশ কৃষক ফুলকপি ও বাঁধাকপি বিক্রি শুরু করেছেন। কয়েক দিন কৃষকরা উৎপাদিত ফুলকপি ও বাঁধাকপি ব্যাপক হারে বিক্রি শুরু করবেন। বর্তমান ফুলকপির বাজার দর প্রতি মন ১ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা বিক্রি করায় চাষিরা লাভবান হচ্ছে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে মহানন্দা নদী থেকে জেলের মরদেহ উদ্ধার
Next articleউলিপুরে মাদক ব্যাবসায়ী লিটন গাঁজা ও ইয়াবাসহ আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।