অতুল পাল: বাউফল উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষকক সংকটের কারণে সহা¯্রাধিক শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন হুমকির মধ্যে পড়েছে। ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে গোটা শিক্ষা ব্যবস্থা। শিক্ষক সংকটের কারণে ওই ইউনিয়নের প্রাথমিক শিক্ষার বেহাল অবস্থা হলেও বিষয়টি নিয়ে কর্তৃপক্ষ উদাসীন রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রমত্তা তেঁতুলিয়া নদীর বুকে অবস্থিত চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের সঙ্গে উপজেলার মূল ভূখন্ডে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে খেয়া নৌকা। দুর্গম ওই ইউনিয়নের মানুষের প্রধান পেশা মাছ শিকার ও কৃষিকাজ। জেলে ও কৃষক পরিবারের অধিকাংশ শিশু লেখাপড়ার পাশাপাশি বাবাকে মাছ শিকার ও কৃষিকাজে সহায়তা করছে। পিছিয়ে পড়া কৃষক ও জেলে শিশুদের শিক্ষার আওতায় আনার জন্য স্থানীয় এমপি আ.স.ম. ফিরোজের প্রচেষ্টায় চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নে সরকার ৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপণ করেছেন। বর্তমানে এসব বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা রয়েছে ১ হাজার ৫০ জন এবং শিক্ষকের পদ রয়েছে ৩৩টি। কিন্তু বাস্তবে ৬টি বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন মাত্র ১৩ জন শিক্ষক। এরমধ্যে চরওয়াডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ জন, দক্ষিণ চরওয়াডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ জন, চর রায়সাহেব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ জন, চরকচুয়া- মিয়াজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ জন, চরব্যারেট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১ জন এবং আসম ফিরোজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ জন শিক্ষক রয়েছেন। শিক্ষক সংকটের কারণে কখনও কখনও একই কক্ষে একাধিক শ্রেণির শিক্ষার্থী একসঙ্গে বসিয়ে পাঠদান করাতে হচ্ছে। এরফলে শিশু শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে আসা এবং শিক্ষা গ্রহণে অনিয়মিত এবং অনাগ্রহী হয়ে পড়ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক বলেন, দারিদ্র্যতার কারণে এখানকার শিশুদের সহজেই স্কুলমূখী করা যাচ্ছে না। তার উপর শিক্ষক সংকটের কারণে প্রতিটি বিদ্যালয়ে পাঠদান করাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এ অবস্থায় এখানে মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। দীর্ঘদিন শিক্ষক বদলী এবং সংযুক্তি বন্ধ করে রাখায় এ সমস্যার সমাধানও হচ্ছে না।

চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য আফরোজা বেগম বলেন, এমনিতেই আমরা পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী। তার উপর মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা না হলে আরও পিছিয়ে যাব। তিনি বলেন, দূর্গম জনপদ হওয়ায় শিক্ষা কর্মকর্তারা নিয়মিত স্কুল পরিদর্শনও করেন না। আমি চন্দ্রদ্বীপের প্রতিটি বিদ্যালয়ে শিক্ষকের শূণ্যপদ পূরণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি করছি। চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হক আলকাচ মোল্লা বলেন, প্রতিটি বিদ্যালয়ে মাত্র ২-৩ জন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করতে হচ্ছে। এখানে শিক্ষক সংকট থাকায় বেশ কিছু শিশু প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তেঁতুলিয়া পাড়ি দিয়ে মূলভূখন্ডের স্কুলে গিয়ে লেখাপড়া করছে।

তিনি বলেন, শিক্ষক সংকট দুর করার জন্য উর্ধতন কতৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে পদক্ষেপ নেয়া হবে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা দেবাশীষ ঘোষ বলেন, বদলি ও সংযুক্তি বন্ধ থাকায় সেখানে শিক্ষক পোষ্টিং দেয়া যাচ্ছে না। তবে বদলি বা সংযুক্তির আদেশ পেলেই দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleরাজীব গান্ধী হত্যাকাণ্ডে জড়িত নলিনীসহ ৬ জনকে মুক্ত করে দিলো সুপ্রিম কোর্ট
Next articleসরকারি আটা কালাবাজারি: স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাসহ আটক ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।