মাসুদ রানা রাব্বানী: আলাপ আলোচনা আর দেনদরবারের মধ্য দিয়েই যুগ যুগ ধরে মাদকের রাজধানী গোড়াগাড়ী উপজেলার হেরোইন সহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্যের কারবার চালিয়ে আসছে মাদক কারবারিরা।

মাঝে মধ্যে পুলিশ, ডিবি পুলিশ ও র‌্যাবের হাতে কেজি কেজি হোরোইনসহ মাদকের ছোট-বড় চালান আটকও হচ্ছে। তবে আটককৃতদের মধ্যে অধিকাংশই মাদক বহনকারী লেবার ও গডফাদাদের কর্মচারী। আর যেসব গডফাদাররা কোটি কোটি টাকার হেরোইন সহ বিভিন্ন মাদকের চালান নিয়ন্ত্রণ করছে তারা সব সময়ই থাকছে ধরা ছোয়ার বাইরে, পর্দার আড়ালে। তারা রাজশাহী মহানগরী, রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জেলা শহরে আরাম আয়েশি জিবন যাপন করছেন। তারা এসি গাড়ী, এসি বাড়ি, এসি চেম্বারে বসেই হাজার হাজার কোটি টাকার মাদকের চালান নিয়ন্ত্রণ করছে। দাপটের সাথে চলছে সমাজে। আবার তাদের মধ্যে অনেকরেই রয়েছে রাজনৈনিক পরিচয়। সে বল্লে দেশ ত্যাগ না হলে দেহ ত্যাগ করতে হবে এমনই বক্তব্য স্থানীয়দের। তাদের পরিচয় সকলেরই জানা। তবে না জানার ভান করে থাকতে বাধ্য।

সরেজনি গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘ দিনের অভিযোগ গোদাগাড়ী উপজেলায় মশালবাড়িতে দিনরাত ২৪ ঘন্টাই চলছে মাদকের রমরমা ব্যবসা। পুলিশ, ডিবি, র‍্যাব সহ আইনশৃঙ্খলার বাহিনীগুলো প্রতিনিয়ত অভিযান চালাচ্ছে এবং প্রচুর পরিমাণে মাদক উদ্ধার করলেও তারপরও থেমে নেই মাদক ব্যবসা। কেই প্রকাশ্যে আবার কেউ গোপনে চালাচ্ছে মাদক কারবার।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, মাদক সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণকারীরা হাতে মাদক ধরেনা। যাবতীয় লেনদেন তারা তাদের লেবার এবং কর্মচারীদের দিয়ে করিয়ে থাকেন। ফলে তারা সব সময়ই ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছেন। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসব মাদক সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করা হয়। আর এ ভাবেই পর্দার আড়ালে থেকে মাদক নিয়ন্ত্রণকারিরা এবং মাদক কারবারিরা হয়ে উঠেছেন বিপুল অর্থ সম্পদের মালিক। এরা এতই প্রভাবশালী যে তাদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলবে এমন কাউকে টর্চ লাইট জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবেনা।

একাধিক মাদক কারবারি সূত্রে জানা যায়, গোদাগাড়ি উপজেলার মশালবাড়ি ও আশেপাশে এলাকার বাসিন্দা চিহিৃত মাদক ডিলার হলো: জনৈক মোঃ মেকাইল, মোঃ গোলাম মোস্তফা, মোঃ সিরাজ, মোঃ আমিনুল ইসলাম বাবু , মোঃ আব্দুল করিম, মোঃ শফিকুল ইসলাম লুঠু , মোঃ বিপ্লব , মোঃ মইদুল ইসলাম ন্যাংড়া, মোসাঃ নুর নাহার, মোসাঃ মরিয়ম , মোসাঃ ফুরকান, মো হৃদয়, মোঃ আরিফ, মোঃ পিয়ারুল, মোঃ রবি , আনারুল হাজী , মোঃ জোহাক , মোঃ জিয়া, মোসাঃ সুইটি, মোঃ ধুলা , মোঃ মানিক , মোঃ আব্দুল্লাহ , মোঃ ভনডল , মোঃ বিসু, মোঃ সাগর ,মোঃ ইসাহাক , মোঃ নাহিদ , মোঃ টিপু , মোঃ সোহেল।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ কামরুল ইসলাম বলেন, মাদদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বিভিন্ন সময় মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ মাদক কারবারীদের গ্রেফতার করেছি। এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান ওসি।

Previous articleসিরাজগঞ্জে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান লতিফ বিশ্বাসকে সংবর্ধনা
Next articleদূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালালো উত্তর কোরিয়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।