জয়নাল আবেদীন: রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জয় পরাজয়ের পর গত দুদিন থেকে সহিংস ঘটনা অব্যাহত রয়েছে । বৃহস্পতিবার বিকেলে নগরীর শাপলা চত্বরে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী মাহাবুব মোর্শেদ শামীমের সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

বিকেল ৩টার দিকে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডেও সাবেক কাউন্সিলর মাহাবুব মোর্শেদ শামীমের পক্ষে তার কর্মী-সমর্থকরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও করতে গাড়িবহরে মিছিল নিয়ে শাপলা চত্বরে পৌঁছালে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এসময় বিক্ষুব্ধরা বাধা পেরিয়ে সামনে যেতে চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এর আগে বুধবার রাত ১১টা পর্যন্তু ২৬নম্বর ওয়ার্ডে পরাজিত প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক মন্ডল সহ ২০জন সমর্থককে দাদিয়ে কুপিয়ে ২০ জনকে আহত করে । বর্তমানে এরা রংপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন ।

প্রাথী রাজ্জাক মন্ডল মৃত্যু পথযাত্রী । অবস্থা গুরুতর। বুধবার বিকেল রাজ্জাক সহ তার সমর্থরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসক ও নির্বাচন কার্যালয় ঘেরাও কর্মসুচি পালন করে ফিওে আসার সময় নুরপুর এলাকায় ফুলু এবং রাজ্জাক গ্রুপের সংঘর্ষ বেধে যায় । ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ফল জালিয়াতি, ভোট দিতে না পারাসহ নানা অভিযোগ এনে বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করছেন পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকরা। ফলে নির্বাচন পরবর্তী নানা ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নগরীর বিভিন্ন এলাকা।এদিকে ২৭ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএমের কারণে ভোটগ্রহণে নানা জটিলতা এবং বিপুল সংখ্যক ভোটার ভোট দিতে না পারার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন ভোটাররা।

দুপুরে নগরীর ৪, ২০, ২৬, ৩২ ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডেও ভোটাররা নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এছাড়া ২০ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটাররা নির্বাচন কমিশনের সামনে ব্যাপক বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।অন্যদিকে ২০ নম্বর ওয়ার্ডে দুপুরে মানববন্ধন করেছেন পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী বহুলুল ইসলাম জেপলিনের সমর্থকরা। এর আগে ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শাহাজাদা আরমান সংবাদ সম্মেলন করে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদ জানান। ওই ওর্য়াডের কাউন্সিলর প্রার্থী এম এ রাজ্জাক মন্ডলকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। তিনি এখন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।এছাডা ভোটের দিন ৪ নম্বর ওয়ার্ডে বিজিবির গাড়িতে আগুন দেওয়া এবং সেখানে নির্বাচিত কাউন্সিলর হারাধন রায়কে গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, যেকোনো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি ট্রাইব্যুনালে যেতে পারবেন। নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ দায়েরে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনাল গঠন করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। যেকোনো প্রার্থী বা তার পক্ষে অন্য কেউ এ ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ দায়ের করতে পারবেন।ইসির আইন শাখার উপসচিব মো. আব্দুছ সালাম জানিয়েছেন, রংপুর সদর সিনিয়র জজ আদালতের সিনিয়র সহকারী জজকে নিয়ে ট্রাইব্যুনাল এবং অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে নিয়ে নির্বাচনী আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছে।ভোটের ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যে ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ দায়ের করতে হবে।

ট্রাইব্যুনাল পরবর্তী ১৮০ দিনের মধ্যে সে অভিযোগ নিষ্পত্তি করবে। সেখানে সুবিচার না পেলে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালের দেওয়া রায়ের ৩০ দিনের মধ্যে নির্বাচনী আপিল ট্রাইব্যুনালে যাওয়া যাবে। আপিল ট্রাইব্যুনাল সে অভিযোগ পরবর্তী ১২০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করবে।

Previous article২ কোটি ৯ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কেনার অনুমোদন পেল টিসিবি
Next articleহাতীবান্ধায় ভারতীয় সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশি নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।