শুক্রবার, এপ্রিল ১২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাউল্লাপাড়ায় মানত পূরণে তেতুঁল গাছে গামছা !

উল্লাপাড়ায় মানত পূরণে তেতুঁল গাছে গামছা !

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় একটি তেতুঁল গাছে মনের বাসনা মানত পূরণে নতুন গামছা , শাড়ী কাপড় বেধে রাখা হয়। গাছের তলায় মোমবাতি ও ধুপকাঠি জ্বালানো হয়ে থাকে । পুরানো গাছটিতে বেধে রাখা গামছা , শাড়ী কাপড়ে বেশ কটি ডাল সব সময় ভরপুর হয়ে থাকে। এখন যেমন আছে। নামকরণ হয়েছে পীত তলা। এলাকার কেউ বেধে রাখা গামছা , শাড়ী কাপড় ক্ষতি হবে ভয়ে খুলে নেয় না।

উল্লাপাড়া উপজেলার বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের খাদুলী গ্রামের দক্ষিণপাড়ায় তেতুঁল গাছটি খোলা জায়গার এক পাশে । গাছটির চারপাশ ঘিরে ইটের গাঁথুনিতে বেধে দেওয়া হয়েছে । গাছটি খুব বেশী উচু নয়। তবে গাছের গোড়া বেশ জায়গা জুড়ে আর গুল বেশ মোটা । এখানে গাছটির কাছাকাছিতে দুটি মন্দির আছে। নিয়মিত পূজা অর্চনা করা হয় বলে জানানো হয়। এখানকার ভিটেবাড়ীর আশে পাশে মুসলমান ও হিন্দু সম্প্রদায় মিলে কয়েকটি বসতবাড়ী আছে। সরেজমিনে গিয়ে আরো দেখা ও জানা গেছে তেতুঁল গাছটির নীচের ডালগুলোয় নতুন পুরাতন মিলে বহু সংখ্যক গামছা , শাড়ী কাপড় বাধা আছে। গাছটির বয়স সঠিক করে কেউ বলতে পারেন না।

খাদুলী গ্রামের বসতি প্রায় ছিয়াত্তর ( ৭৬ ) বছর বয়সী রামেশ্বর চন্দ্র দাস বলেন তার জ্ঞান বুদ্ধি হওয়ার পর থেকেই গাছটি এমন অবস্থায় দেখছেন। তার পিতাও এমনি দেখেছেন বলে জানিয়েছেন। একই গ্রামের মোজাহার আলী (৭০) , শহিদুল ইসলাম (৪৮) , ইছাহাক আলী আকন্দ (৬০), সঞ্চয় ভৌমিক( ৩৮), গৃহবধূ সবিতা রাণী , আনোয়ারাসহ আরো কজন জানান তারা সেই ছোটো বেলা থেকেই গাছটি এখনকার অবস্থায় দেখে আসছেন। সবার কথায় গাছটি শত বছরের বেশী বয়সী। প্রায় বিশ বছর ধরে গাছটিতে বিভিন্ন এলাকার জনগণ তাদের মনের বাসনা মানত পূরণে নতুন গামছা নয়তো শাড়ী কাপড় বেধে রেখে যাচ্ছেন। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মুসলমান , হিন্দু সম্প্রদায়ের এরা আসেন বলে জানানো হয়। এখানে বেধে রেখে যাওয়া গামছা , শাড়ী কাপড় ক্ষতি হবে ভয়ে খুলে নেয় না।

প্রতিবেদককে রামেশ্বর চন্দ্র দাস বলেন এখানে মানত করে আসা ব্যক্তিগণ পরম ভক্তি শ্রদ্ধায় গামছা কিংবা শাড়ী কাপড় বেধে রেখে যান। এখানকার বসতি সঞ্চয় ভৌমিক বলেন ভক্তি আর বিশ্বাসে মানতকারীরা গামছা শাড়ী কাপড় বেধে রাখেন। তিনি মানতকারী বহুজনের কাছে জেনেছেন বিভিন্ন রোগ ব্যাধি ও নানা মনের বাসনা পূরণ হয়ে থাকে বলে তারা এসে গামছা শাড়ী কাপড় বেধে রেখে যান। এলাকার ইউপি সদস্য মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন তিনি ছোটো বেলা থেকেই দেখে আসছেন শুধু নিজ খাদুলী গ্রামের নয় বিভিন্ন এলাকার বহু ব্যক্তি বিশ্বাস করে মানত পূরণে এখানে আসেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments