বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ার শেরপুরে বকশিশের টাকা নিয়ে পৌরসভার সচিব ইমরোজ মুজিব ও নাইটগার্ড সন্তোষ সরকারের মধ্যে মারামা‌রি হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুর সোয়া ৩টার দিকে বগুড়ার শেরপুর পৌরসভা কার্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাসিক সম্মানি ভাতার টাকা উত্তোলনের জন্য নাইটগার্ড সন্তোষকে ব্যাংকে পাঠানো হয়। তিনি টাকা উত্তোলন করে পৌরসভা কার্যালয়ে এলে তাকে নিজের কক্ষে ডেকে পাঠান সচিব ইমরোজ মুজিব। তখন নাইটগার্ডের কাছে তার নির্দেশ ছাড়া ব্যাংকে যাওয়ার কারণ জানতে চান সচিব।

নাইটগার্ডের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে তার দিকে স্ট্যাপলার মেশিন ছুড়ে মারেন সচিব। উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হলে অন্য কর্মচারীরা এসে থামিয়ে দেন তাদের।

পৌরসভার নাইটগার্ড সন্তোষ সরকার জানান, ’পৌরসভার কাউন্সিলরসহ প্রত্যেক কর্মচারীর চেকের টাকা উত্তোলন করে বকশিশ নেন সচিব ইমরোজ মুজিব। কিন্তু এই চেকের টাকার বকশিশ না পাওয়ায় আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়েছেন।’

সন্তোষ সরকার অভিযোগ করেন, তাকে ডেকে নিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে পৌরসভার সচিব ইমরোজ মুজিব বলেন, আপনারা (সাংবাদিকরা) এসব খবর পেলেন কোথায়? মারধর বা ধস্তাধস্তির কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে মোবাইল ফোনের সংযোগ কেটে দেন তিনি।

পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৌমেন্দ্র নাথ ঠাকুর শ্যাম বলেন, আমি নাইটগার্ড সন্তোষকে চেক নিয়ে ব্যাংকে পাঠিয়েছিলাম। আমি আর কিছু জানি না।

শেরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র নাজমুল আলম খোকন জানান, তাদের দু’জনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। পরে সমাধান হয়েছে। এছাড়া তেমন কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি দাবি করেন।

Previous articleযে কারণে বিপিএল ছেড়ে চলে যাচ্ছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা
Next articleদেশের মানুষ আর কোনদিন অন্ধকারে যাবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।