মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকেশবপুরে কৃষকের ৮ লক্ষাধিক টাকার ফলদ বৃক্ষ কর্তন, আদালতে মামলা

কেশবপুরে কৃষকের ৮ লক্ষাধিক টাকার ফলদ বৃক্ষ কর্তন, আদালতে মামলা

জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে গৌরীঘোনা গ্রামে জমি বিবাদে প্রভাবশালী প্রতিপক্ষরা জোর করে এক কৃষকের ৮ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের বিভিন্ন ফলদ বৃক্ষ কেটে ক্ষতিসাধন করেছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিয়েও বিচার না পেয়ে অবশেষে ওই কৃষক ৩ জনকে আসামী করে যশোর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে মামলা করেছেন।

আদালত অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে কেশবপুর থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গৌরীঘোনা গ্রামের মৃত জাহান আলী শেখের ছেলে শেখ গোলাম মোস্তফা পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত জমিতে বিভিন্ন প্রজাতীর ফলদ বৃক্ষ রোপণ করে ভোগ দখল করে আসছেন। তিনি ২০১১ সালের ৩০ মার্চ ওই জমি স্ত্রী ছালেয়া বেগম ও ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুনের নামে হেবা নামার মাধ্যমে হস্তান্তর করেন।

গেল বছরের ১৬ অক্টোবর জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে একই গ্রামের করিম মোল্যার ছেলে মিজানুর রহমান ও ভরতভায়না গ্রামের ইদ্রিস মোড়ল যোগসাজশে বিভিন্ন এলাকা থেকে ভাড়াটে লোকজন এনে বিরোধীয় জমির বৃহদাকার ৮টি আম, ৯টি কাঁঠাল গাছসহ অসংখ্য গাছ কেটে ৮ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন করে। এ সময় তার স্ত্রী ছালেয়া বেগম বাধা দিলে তাকে মারপিট করে আহত করা হয়। শেখ গোলাম মোস্তফার অভিযোগ, তিনি থানায় অভিযোগ দিয়েও গাছ কর্তন বন্ধ করতে ব্যর্থ হন। অবশেষে ৯৯৯ নম্বরে কল করলে কেশবপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কর্তনকৃত কাঠ জব্দ করে। এ ঘটনায় শেখ গোলাম মোস্তফা বাদি হয়ে গেল বছরের ২৩ অক্টোবর মিজানুর রহমান, ইদ্রিস মোড়ল ও আজিজ মোড়লের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১৮/২০ জনের বিরুদ্ধে যশোর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং- সিআর- ৫৪৭/২২।

আদালত অভিযোগটি আমলে নিয়ে ২১ ডিসেম্বর পরবর্তী দিন ধার্য় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে কেশবপুর থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়। কিন্তু ঘটনাটি ৪ মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও পুলিশ প্রতিবেদন দাখিলের নামে সময় ক্ষেপণ করে উল্টো তাকে মিমাংশার জন্য চাপ সৃষ্টি করছে। ওয়ারেশ হিসেবে আমার বোন ১৮টি দাগের জমি তাদের কাছে বিক্রি করেছে। কিন্তু মিজানুর রহমান এক জায়গা জবর দখল করে গাছ কর্তন করেছে। প্রতিপক্ষ মিজানুর রহমান বলেন, আমরা শেখ গোলাম মোস্তফার বোনের কাছ থেকে ওই জমি ক্রয় করেছি। সে যেখানে দেখিয়ে দিয়েছে সেখান থেকে গাছ কর্তন করেছি। পুলিশ তাদের মিমাংশা করে নিতে বলেছে। কিন্তু তারা মানছে না। এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার ওসি তদন্ত শুভ্র প্রকাশ দাস জানান, কর্তনকৃত কাঠ জব্দ করা হয়েছে। অচিরেই আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments