বুধবার, জুন ১২, ২০২৪
Homeসারাবাংলামেহেরপুরে দুই ভাইকে হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

মেহেরপুরে দুই ভাইকে হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মেহেরপুরে গাংনীতে রফিকুল ইসলাম ও আবু জেল নামের দুই ভাইকে হত্যা মামলায় নয়জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার দুপুরে মেহেরপুর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রিপতি কুমার বিশ্বাস এর দণ্ডাদেশ প্রদান করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন গাংনী উপজেলার কাজিপুর গ্রামের কিয়ামতের ছেলে হালিম (৩৫), আছের উদ্দীনের ছেলে আতিয়ার (৪০), নজির আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম (৪০), মরহুম দবীর উদ্দীনের ছেলে শরিফ (৪০) ও ফরিদ (৪৫), আব্দুল জলিলের ছেলে জালাল উদ্দীন (৪৩), আফেল উদ্দীনের ছেলে আজিজুল (৩৬), মুনছারের ছেলে মনি (২৫) এবং নজির উদ্দীনের ছেলে দবির উদ্দীন (৩২)। এদের মধ্যে জালাল উদ্দীন পলাতক রয়েছেন। অন্যরা রায় প্রদানের সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার আরো পাঁচ আসামি আরিফ, রাজিব, আলমেস, হারুন ও ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাদের বেকসুর খালাস দিয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১২ সালের ৫ জুন কাজিপুর গ্রামের একটি মাঠ থেকে পরিত্যাক্ত অবস্থায় ফেন্সিডিল উদ্ধার করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। রফিকুল ইসলাম ও আবু জেল দুই ভাই বিজিবেকে তথ্য দিয়েছে বলে অভিযোগ তোলে এ মামলার আসামিরা। ওই দিন রাতে রফিকুল ইসলামকে ডেকে মারধর করে তারা। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন গিয়ে রফিকুলকে উদ্ধার করে। ১৫ জুন রাত ১০টার দিকে বিষয়টি মীমাংসার নামে তাদের দুই ভাইকে ডেকে নেয় তারা। এরপর তারা দু’জন আর বাড়ি ফেরেননি। পরদিন সকালে কাজীপুর গ্রামের ভারতীয় সীমান্তের মেইন পিলার ১৪৫-এর সাব পিলার ৬-এর পাশে তাদের ক্ষত-বিক্ষত লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় নিহতদের বোন জরিনা বেগম গাংনী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আরো জানা গেছে, ২০১২ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ১৪ জনকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান। এ মামলায় তিনজন আসামি ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত ওই মামলায় নয়জনকে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করেছে। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট কাজী শহীদুল হক ও আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট এ কে এম শফিকুল আলম, অ্যাডভোকেট আতাউল গনি আন্টু।

মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাজী শহীদুল হক। তিনি বলেন, ‘এটি একটি দৃষ্টান্তমূলক রায়। এ রায় নজির হয়ে থাকবে। কারণ, এ মামলায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও রয়েছে।’

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments