রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাজয়পুরহাটে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে কিশোর কুপিয়ে হত্যা মামলার আসামী দিনাজপুর থেকে গ্রেপ্তার

জয়পুরহাটে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে কিশোর কুপিয়ে হত্যা মামলার আসামী দিনাজপুর থেকে গ্রেপ্তার

এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাট শহরের গুলশান মোড়ে এন এ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে গত মঙ্গলবার আব্দুর রহমান নামে এক কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলার একমাত্র আসামী আবু জাফরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে দিনাজপুর শহর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। ঘটনার পর থেকে আবু জাফর দিনাজপুর শহরে গিয়ে আত্নগোপনে ছিলেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জয়পুরহাট সদর থানার উপপরির্দশক (এসআই) যোবায়ের বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটায় সাংবাদিকদের বলেন, হত্যা মামলার একমাত্র আসামী আবু জাফরকে গ্রেফতার করা হয়েছে । গ্রেপ্তার হওয়া আবু জাফর (২৮) দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার ডুগডুগি গ্রামের মৃত বারী মাস্টারের ছেলে। তিনি ওই মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান বাবুর্চি ছিলেন। নিহত কিশোর আব্দুর রহমান তাঁর সহকারী ছিল।

মঙ্গলবার সকাল আটটার দিকে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের রান্নাঘর থেকে কিশোর আব্দুর ররহমানের (১৫) রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান বাবুর্চি আবু জাফর নিখোঁজ ছিলেন। এ ঘটনায় নিহত কিশোর আব্দুর রহমানের মা মোছাঃ আমিরুন বাদী হয়ে আবু জাফরের বিরুদ্ধে জয়পুরহাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান বাবুর্চি আবু জাফরকে দিনাজপুর শহর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের বাবুর্চির সহকারী কিশোর আব্দুর রহমানকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। এঘটনায় নিহত কিশোরের মা মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান বাবুর্চির আবু জাফরকে আসামী করে থানায় মামলা করেন। পুলিশ আসামী আবু জাফরকে গ্রেপ্তার করেছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে হত্যার রহস্য উদঘাটন করা হবে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, কিশোর আব্দুর রহমান মাদকাসক্ত পাশাপাশি মুঠোফোনে গেম খেলায় আসক্ত ছিল। প্রায় দেড় বছর আগে অভিভাবকেরা তাকে সুস্থ করার জন্য জয়পুরহাট শহরের গুলশান মোড়ে এন,এ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করার জন্য নিয়ে আসে। বয়স কম হওয়ায় তাকে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র ভর্তি করেনি। ভর্তি ছাড়ায় তাকে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র রাখা হয়। সে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক বিল্পব সরকার পিটারের ফরমাশ শুনত আবার মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান বাবুর্চি আবু জাফরের সহকারী হিসেবে কাজ করত।

প্রধান বাবুর্চি আবু জাফর ও তাঁর সহকারী আব্দুর রহমান মিলে প্রতিদিন দুপুরের খাবার খিঁচুরি সকালে রান্না করতেন। মঙ্গলবার সকালে তারা দুজনেরই কেউই সকালে দুপুরে রান্না করছিল না। তখন নিরাময় কেন্দ্রের একজন স্বেচ্ছাসেবী রান্না ঘরে গিয়ে আব্দুর রহমানকে রক্তাক্ত পড়ে থাকতে দেখেন। সেখানে প্রধান বাবুৃচি ছিলেন না। এরপর নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালকসহ অন্যরা রান্নাঘর থেকে আব্দুর রহমানের লাশ উদ্ধার করে আধুনিক জেলা হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের চিকিৎসকেরা আব্দুর রহমানকে মৃত ঘোষনা করে। পরে লাশটি উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এরপর পুলিশ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে গিয়ে পরিচালকসহ আট জন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায়।

এন, এ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক বিল্পব কুমার পিটার বলেন, বয়স কম হওয়ায় আব্দুর রহমানকে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র ভর্তি করানো হয়নি। তাকে ভালো করতে জয়পুরহাট পুলিশ লাইনস স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি করে দিয়েছিলাম । এ ছাড়া আমার ফরমাশ ও প্রধান বাবুর্চি আবু জাফরের সহকারী হিসেবে কাজ করত সে। মঙ্গলবার সকালে রান্না ঘরে রক্তাক্ত অবস্থায় তার লাশ পড়ে ছিল। ঘটনার পর থেকে প্রধান বাবুর্চি আবু জাফরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments