মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকেশবপুরে টেন্ডার ছাড়াই কমিউনিটি ক্লিনিকের লক্ষাধিক টাকার গাছ কর্তন

কেশবপুরে টেন্ডার ছাড়াই কমিউনিটি ক্লিনিকের লক্ষাধিক টাকার গাছ কর্তন

জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরের বেলোকাটি গ্রামের মেম্বার রফিকুল ইসলাম বুলুর বিরুদ্ধে কমিউনিটি ক্লিনিকের লক্ষাধিক টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রজাতির গাছ টেন্ডার ছাড়াই কর্তনের অভিযোগ উঠেছে। গাছ কর্তনকালে এলাকাবাসি বাধা দিলে গাছ টেন্ডারে বিক্রি করা হয়েছে বলে গ্রামবাসিকে জানিয়ে ওই মেম্বার ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছে।

পরবর্তীতে ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এলাকাবাসি জানায়, উপজেলার পাঁজিয়া ইউনিয়নের বলোকাটি গ্রামের নুড়িতলা বাজারের পাশে অবস্থিত বলোকাটি কমিউনিটি ক্লিনিকের চারপাশ দিয়ে লক্ষাধিক টাকা মূল্যের মেহগনি, নারকেল ও বিলুপ্ত প্রজাতির একটি চটকাগাছ লাগানো ছিল। ওই ক্লিনিকের নতুন ভবন নির্মাণের স্বার্থে সম্প্রতি পুরাতন ভবন টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি করা হয়। ঠিকাদার ভবনটি ভেঙে নিয়ে যাওয়ার পরপরই বলোকাটি কমিউনিটি ক্লিনিকের সভাপতি ও সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার রফিকুল ইসলাম বুলু কমিটির সদস্যদের কোন মিটিং ছাড়াই লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ৯টি মেহগনি, ২টি নারকেল ও একটি চটকাগাছ মোটা অংকের টাকায় কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম শফির কাছে বিক্রি করে দেয়।

কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম শফি গত ১৩ জুন থেকে গাছগুলি কর্তন শুরু করে এবং ১৫ জুন কাঠ নিয়ে চলে যায়। ক্লিনিকের জমিদাতা সদস্য আমজাদ হোসেন, কমিটির সদস্য আব্দুল হামিদ জানান, কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম শফি গাছ কর্তনকালে আমরা এলাকাবাসির পক্ষে বাধা দিয়েছিলাম। এসময় ওয়ার্ড মেম্বার রফিকুল ইসলাম বুলু তাদের জানায় গাছ টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি করা হয়েছে। পরবর্তীতে উপজেলা বন বিভাগে গিয়ে জানতে পারি কোন প্রকার টেন্ডার ছাড়াই গাছগুলি কর্তন করা হয়েছে। গাছ কেটে আতœসাতের ঘটনা ফাঁস হয়ে পড়ায় ওই মেম্বার তড়িঘড়ি করে ১৬ জুন ক্লিনিক কমিটির মিটিং আহবান করে। মিটিং এ সভাপতি গাছ কাটার কথা উত্থাপণ করলে কমিটির অন্য সদস্যরা কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই সভা বর্জন করে চলে যায়।

বেলোকাটি কমিউনিটি ক্লিনিকের সভাপতি ও ওয়ার্ড মেম্বার রফিকুল ইসলাম বুলু টাকা আতœসাতের কথা অস্বীকার করে বলেন, গাছ কাটার ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। ১৫ জুন কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম শফি নিরাপত্তার স্বার্থে আমার কাছে গাছ বিক্রির ৩০ হাজার টাকা জমা দিয়েছে। আমি ওই টাকা কমিউনিটি ক্লিনিকের ফান্ডে জমা দিয়ে দেব। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আলমগীর বলেন, প্রত্যেক কমিউনিটি ক্লিনিকে এলাকার ১৭ জন গণ্যমান্য ব্যক্তিকে নিয়ে একটি কমিটি রয়েছে। পদাধিকার বলে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার ওই কমিটির সভাপতি। গাছ বিক্রির টেন্ডার করা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। তাছাড়া, সরকারের মেয়াদও শেষের দিকে। তাই অত্যাধুনিক নতুন ভবন নির্মাণের স্বার্থে তড়িঘড়ি করে গাছগুলি বিক্রি করে টাকা ক্লিনিকের ফান্ডে জমা রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিক প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত একটি প্রকল্প। এনিয়ে খবর না লেখাই ভালো।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments