রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাহুমকিতে জীববৈচিত্র্য, প্লাস্টিক দূষণের কবলে টাঙ্গুয়ার হাওর

হুমকিতে জীববৈচিত্র্য, প্লাস্টিক দূষণের কবলে টাঙ্গুয়ার হাওর

আহম্মদ কবির: প্লাস্টিক বর্জ্য দূষণের কবলে পড়েছে,সুনামগঞ্জের মা মাছের অভয়ারণ্য খ্যাত প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা, টাঙ্গুয়ার হাওর।পানি কমে যাওয়ায় হাওরের খালবিল নদী-নালায় উঁকি দিয়েছে,মাছ ধরতে পেলে রাখা জেলেদের ব্যবহৃত অপ্রয়োজনীয় প্লাস্টিকের ছাই।

টাঙ্গুয়ার হাওরের রৌহা,লেচুয়ামারা, রুপাবুই,বেরবেরিয়া,তেকুইন্যা,সহ সবকটি নদী-খাল বিলে যত্রতত্র এসব প্লাস্টিকের ছাই ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে।প্রকৃতির এই অপার সম্ভাবনাময় স্থানটি যেন দখল করে নিচ্ছে প্লাস্টিকের বর্জ্যে।

এ বিষয়ে পরিবেশবিদরা জানান এসব প্লাস্টিকের বর্জ্যে শুধু হাওরের পরিবেশই নষ্ট হচ্ছে না।একই সাথে হাওরের জীববৈচিত্র্যও হুমকির মুখে পড়বে। বিশেষ করে হাওরের বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, জলজপ্রাণীর বংশ বিস্তার এবং প্রজনন কার্যক্রম বাঁধাগ্রস্ত হবে। এছাড়াও পরিযায়ী পাখির খাবারের সংকট দেখা দিবে।

স্থানীয় সচেতন মহল জানান এই প্লাস্টিকের চাই দিয়ে খুব সহজে বেশি পরিমাণ ছোট-বড় চিংড়ি মাছ ধরার জন্য বর্ষা মৌসুমে হাওরের বিল নদী-নালায় পানির নিচে সারিবদ্ধভাবে সুতা দিয়ে বেধে টোপ দিয়ে ছাঁই গুলো রাখা হয়।সকালে ছাই গুলো তুলে চিংড়ি মাছ গুলো সংগ্রহ করে পুনরায় সেখানেই রাখা হয়।এক সময় ছাই গুলো নষ্ট হয়ে গেলে জেলেরা ছাইগুলো তুলে না এনে পানিতেই ফেলে রাখে।এ কারণেই হাওরের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে প্লাস্টিকের ছাঁই।

টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের সচেতন মহল অনেকেই জানান টাঙ্গুয়ার হাওরে চিংড়ি মাছ ধরার ছাইগুলো দেখতে গোলাকার বৈশিষ্ট্য হয়।প্লাস্টিক মুড়িয়ে বাঁশের কঞ্চি ও তার দিয়ে এই ছাই তৈরি করা হয়।১০-১২ বছর পূর্বে এই হাওরে বাঁশের তৈরি ছাই দিয়ে চিংড়ি মাছ ধরা হতো। কিন্তু বিগত ১০১২ বছর ধরে এই ছাইয়ের ব্যবহার শুরু হয়।কম খরচে তৈরি করা প্লাস্টিকের ছাই এখন স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। খুব সহজে বেশি পরিমাণ চিংড়ি মাছ ধরা যায় বলে এই ছাই টাঙ্গুয়ার হাওরে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments