বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে বিভিন্ন রুটে নতুন ট্রেন বরাদ্দ করলেও রংপুর বিভাগে...

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে বিভিন্ন রুটে নতুন ট্রেন বরাদ্দ করলেও রংপুর বিভাগে একটি ট্রেনও নেই

জয়নাল আবেদীন: বাংলাদেশ রেলওয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে বিভিন্ন রুটে ৮ জোড়া নতুন ট্রেন বরাদ্দ করলেও রংপুর বিভাগে একটি ট্রেনও নেই। গত বছরের ন্যায় এবারও বৈষম্যের শিকার হয়েছে রংপুর বিভাগ। আর এ নিয়ে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে রংপুর অঞ্চলবাসীর মধ্যে। ঈদকে কেন্দ্র করে যাত্রীর সংখ্যা দুই—তিন গুণ পর্যন্ত বেড়ে যায়। যাত্রীদের চাপ কমাতে বিশেষ ট্রেন চালুর উদ্যোগ নেওয়া হলেও বরাদ্দের বেলায় রংপুর বরাবরই উপেক্ষিত। অথচ রাজধানী ঢাকা থেকে ঈদ করতে ঘরে ফেরা রংপুর বিভাগের মানুষের সংখ্যাই বেশি। বিশেষ করে পোশাক শ্রমিকদের একটি বড় অংশই রংপুর বিভাগের বাসিন্দা। যারা প্রতি বছর ঈদে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরার পথে অসহনীয় ভোগান্তির শিকার হয়ে আসছে। এ কারণে অন্যান্য অঞ্চলের মতো রংপুর বিভাগেও ঈদে নতুন ট্রেন বরাদ্দের দাবি দীর্ঘদিনের।

বিভাগীয় লেখক পরিষদের সভাপতি ও সাবেক পৌর চেয়ারম্যান কাজী মো. জুননুন বলেন, রংপুর বিভাগ থেকে বেশিরভাগ মানুষ ঢাকা, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, সিলেট এলাকায় কাজ করে। বিপুল সংখ্যক মানুষ পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে বাড়ি আসে। প্রতি বছর নতুন ট্রেন বরাদ্দ হলেও রংপুর থাকে উপেক্ষিত। এমন বৈষম্য নিরসনে সরকারকে উদ্যোগী হওয়া উচিত। কারমাইকেল কলেজের সাবেক ভিপি আলাউদ্দিন মিয়া বলেন রংপুর ২৮২ বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহী জেলা হলেও এখানে রেল ব্যবস্থার উন্নয়ন হয়নি। রংপুর বিভাগ থেকে সারাদেশে ধান, আলু, কয়লা, কঠিন শিলা রপ্তানি হয়। লাখ লাখ মানুষ ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করছে। কিন্তু তাদের যাতায়াতের জন্য কোনো বিশেষ ট্রেন বরাদ্দ নেই। অবিলম্বে ঈদ উপলক্ষ্যে রংপুরে বিশেষ ট্রেন বরাদ্দসহ রংপুর—ঢাকা ইন্টারসিটি রেল চালুর জোর দাবি জানাচ্ছি। নারী উদ্যেক্তা ইরা বলেন, ঈদযাত্রায় সব বিভাগের মানুষ বিশেষ সুবিধা পেয়ে থাকে। শুধু রংপুরের বেলায় চিত্রটা ভিন্ন। এখানে নতুন ট্রেন বরাদ্দ থাকে না। ফিটনেসবিহীন বাসে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে দূর—দূরান্ত থেকে ঈদে গ্রামে ফেরে মানুষ। কখনো কখনো বড় বড় দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। অথচ রংপুরের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে আধুনিক রেলসেবাসহ এ অঞ্চলের জন্য বিশেষ ট্রেনের দাবি জানিয়ে আসছে।রংপুর মহানগরীর খামার এলাকার কামরুল হাসান বলেন, রংপুর রেলওয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ অন্যান্য সুবিধার ক্ষেত্রে বরাবরই অবহেলিত। এর সঙ্গে তো ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় বিড়ম্বনা লেগেই আছে। এখনো প্রায়ই রংপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ রংপুর এক্সপ্রেস ছাড়ার কথা থাকলেও তা ঢাকার উদ্দেশে ১০—১১টার পর যাত্রা করছে। বেশ কিছুদিন ধরে ট্রেনের এমন শিডিউল বিপর্যয় হচ্ছে। ঈদের আগে এভাবে চলতে থাকলে ঘরমুখো মানুষদের সমস্যায় পড়তে হবে।

রংপুর রেলস্টেশনের সুপার শংকর গাঙ্গুলী বলেন, রংপুর এক্সপ্রেসসহ অন্য ট্রেন কিছুটা দেরিতে ছাড়লেও শিডিউল বিপর্যয়ের শঙ্কা নেই। ট্রেন দেরিতে আসা—যাওয়ার কারণ অনেক স্থানে সিঙ্গেল লাইন রয়েছে। এছাড়া ট্রেনের ক্রসিংয়েও সময় ক্ষেপণ হচ্ছে।পশ্চিমাঞ্চল রেলের লালমনিরহাট বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাট বিভাগ থেকে ২০টি আন্তঃনগর ট্রেন ঢাকায় যাতায়াত করে। এগুলো হচ্ছে রংপুর এক্সপ্রেস, লালমনি এক্সপ্রেস, বুড়িমারী এক্সপ্রেস, কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস, একতা, দ্রুতযান, দোলনচাঁপা, করতোয়া এক্সপ্রেস ও বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস। প্রতিদিন এসব ট্রেনে ৮ থেকে ১০ হাজার যাত্রী ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments