বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পুরান ঢাকায় আগুন লাগে, আবার নেভে। কিন্তু সরে না দাহ্য পদার্থের কারখানা। বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) রাতে পুড়ে যাওয়া চারতলা ভবনটিতে এর আগেও তিনবার আগুন লাগে। পরিত্যক্ত হওয়া একটি ভবনে কীভাবে চলত প্লাস্টিক কারখানা সেই প্রশ্নের উত্তর অধরাই থেকে যায়। এই কারখানা ঝুঁকি নিয়ে যারা চালাত, তারা দিলেন বরাবরের মতো অজুহাত।

পুরান ঢাকার উর্দু রোডের নোয়াখালী ভবন। বাইরে থেকে আবাসিক মনে হলেও চারতলা এ ভবনে রয়েছে ৩০টি প্লাস্টিকের কারখানা ও ৭০টি গোডাউন। যদিও পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে আগেই।

স্থানীয়রা জানান, দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এভাবেই দাহ্য পদার্থের কারখানা ও গুদাম রয়েছে এই ভবনে। চুড়িহাট্টার ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর পুরান ঢাকাজুড়ে অভিযান হলেও নজরদারির বাইরেই ছিল নোয়াখালী ভবন। যদিও এখানে চারবার লেগেছে আগুন।

স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, এখানে প্লাস্টিকের জিনিস থাকে, বিভিন্ন ক্যামিকেল থাকে। যে কোনো সময় এই কারখানাগুলো থেকে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এবং এর ফলে আশপাশের বাসিন্দারা দুর্ঘটনার কবলে পড়তে পারে।

আরেক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, আমাদের বাসা এই কারখানার পাশে হওয়ার কারণে আমাদের সবসময় আতঙ্কে থাকতে হয়। এই কারখানাগুলোতে যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আমি সরকারের কাছে আবেদন করি, এই কারখানা যেন উঠায় দেওয়া হয়।

কারখানা সরিয়ে নেওয়ার কোনো নির্দেশনা না পাওয়ার অজুহাত দিলেন কারখানা মালিকরা।

এক কারখানা মালিক বলেন, কারখানা সরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে আমাদের কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি।

ফায়ার সার্ভিস বলছে, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এভাবে কারখানা চালিয়ে আগুনের ঝুঁকিতে ফেলা হয়েছে পুরো এলাকাকে।

ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্সের ঢাকা সদর জোন-১-এর উপসহকারী পরিচালক মো. বজলুর রশিদ বলেন, ‘প্লাস্টিক হচ্ছে সহজ দাহ্য বস্তু। ভবনটিতে এখনো অনেক প্লাস্টিকের স্তূপ রয়েছে। বর্তমানে ভবনটি অনেক ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে ভবনটিতে আগুন কীভাবে লেগেছে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে নোয়াখালী ভবনে অগ্নিকাণ্ড হয়। প্রায় ২ ঘণ্টার চেষ্টায় ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

Previous articleগত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আরও ১৯ জনের মৃত্যু
Next article‘ক্ষুধা মহামারি’ করোনার চেয়েও ভয়ংকর হবে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।